Naya Diganta

‘ঘুম’ থেকে জেগে পুলিশকর্মী শুনলেন তিনি মৃত, চাকরিও নেই

রুবেন কিমুতাই লেল

দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হয়ে কোমায় চলে যাওয়া এক পুলিশ কর্মী ৯ মাস পরে সুস্থ হয়ে জানতে পারলেন তার চাকরিটা চলে গেছে। এমনকি সরকারি খাতায় তিনি মৃতও।

বস্তুত ওই পুলিশকর্মী মারা গিয়েছেন ভেবে নিয়েই চাকরি থেকে সরানো হয়েছিল তাকে। আর সেই রিপোর্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে দিয়েছিলেন তার সহকর্মীরাই। যদিও মারা যাওয়ার কোনো প্রমাণ পুলিশ বিভাগের হাতে ছিল না। এমনকি ‘মৃত’ পুলিশকর্মীর দেহও খুঁজে পাননি তারা।

ঘটনাটি কেনিয়ার। ওই পুলিশ কর্মীর নাম রুবেন কিমুতাই লেল। ৯ মাস আগে একটি দুর্ঘটনায় আহত হন রুবেন। তারপর আর তার খোঁজ পাওয়া যায়নি। রুবেনের বাড়ির লোক জানিয়েছেন, হাসপাতালের পাশাপাশি মর্গেও খোঁজ করেছিলেন তারা। কিন্তু রুবেনকে পাওয়া যায়নি। বাধ্য হয়েই তাকে মৃত বলে ধরে নেয়া হয়। বাড়ির লোকদের যুক্তি, ‘তার ফোনও গত ৯ মাস ধরে অফ ছিল। মৃত ভেবে নেয়ার সেটাও একটা কারণ।’

রুবেনের চিকিৎসকেরা যদিও জানাচ্ছেন, রুবেনের চিকিৎসা চলছিল কেনিয়ার সবচেয়ে বড় হাসপাতাল কেনিয়াট্টা ন্যাশনাল হসপিটালে। গত ৯ মাস তিনি সেখানেই ছিলেন। তারপরও তার খোঁজ না পাওয়ার কারণ হাসপাতালের খাতায় রুবেনের কোনো নাম ছিল না। রুবেনের কাছে তার পরিচয়ের কোনো প্রমাণপত্র পাওয়া যায়নি তাকে ভর্তি করার সময়। পরে জ্ঞান ফিরলেও নিজের নাম মনে করতে পারেননি রুবেন। ফলে কেনিয়ার হাসপাতালে নামহীন রোগী হিসেবেই রয়ে যান তিনি।

সম্প্রতি স্মৃতি ফিরে পান রুবেন। চিকিৎসকদের নিজের পরিচয় জানান, তারপরই তার পরিবারের সাথে যোগাযোগ করা হয়।

কিন্তু ৫০ বছর বয়সী রুবেন তার চাকরি শেষ পর্যন্ত ফিরে পাবেন কি না, তা নিয়ে এখনো সংশয় রয়েছে। পুলিশ বিভাগ জানিয়েছে, রুবেনকে আবার চাকরিতে বহাল করা যায় কি না তা দেখা হচ্ছে। যদিও রুবেনের পরিবার জানিয়েছে, তিনি নিজে আর চাকরি করতে বিশেষ আগ্রহী নন। হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে বরং রুবেন আগাম অবসরের ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

সূত্র : বিবিসি