Naya Diganta

দুধ-ঘি-মদ্যপানে অভ্যস্ত ২১ কোটির সুলতানের প্রাণ গেল হৃদরোগে

হৃদরোগে ‍মৃত্যু হয়েছে ‘সুলতানের’।

দাম ছিল ২১ কোটি টাকা। দুধ-ঘি তো খেতই, প্রতিদিন সন্ধ্যা হলেই চলত সুরাপানও! হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু ‘সুলতানের’।

না, এই সুলতান কোনো ব্যক্তি নয়। ভারতের হরিয়ানার একটি মহিষ। নিছক একটি মহিষ বলে ভেবে বসলেও ভুল হবে। হরিয়ানাসহ গোটা দেশে পরিচিত ছিল সুলতান।

পুরো নাম সুলতান ঝোটে। হরিয়ানার এই মহিষ সংবাদের শিরোনামে এসেছিল তার দামের জন্যই। দাম উঠেছিল ২১ কোটি টাকা। সেই সুলতানের হঠাৎ করে হৃদরোগে মৃত্যু হওয়ায় শোরগোল পড়ে গেছে হরিয়ানায়।

সুলতানের মালিক নরেশ বেনিওয়াল। হরিয়ানার কৈথলের বুড়াখেড়া গ্রামের বাসিন্দা। খুব ছোট থেকেই সুলতানের লালনপালন করছেন নরেশ। সুলতান ছিল তার সন্তানের মতো। দেশী ঘি আর দুধ ছিল সুলতানের খাদ্য। শুধু তাই নয়, ৬ ফুট দৈর্ঘ্য এবং দেড় টন ওজনের সুলতান এক দিনে ১০ কেজি দুধ, ২০ কেজি গাজর, ১০ কেজি সবজি এবং ১২ কেজি পাতা খেত। তবে আরেকটা নেশা ছিল সুলতানের। সন্ধ্যা হলে মদ্যপান করত।

কিন্তু কেন এত দাম, কেনইবা এত পরিচিতি সুলতানের?

শুধু হরিয়ানা বা পাঞ্জাবই নয়, যেখানে পশু মেলা হতো, সেখানেই সুলতান তার গুণের জন্য পুরস্কার জিতত। ২০১৩ সালে সর্বভারতীয় পশু সৌন্দর্য প্রতিযোগিতায় ঝাঝর, কারনাল এবং হিসারে সেরার পুরস্কার জিতেছিল সুলতান।

সুলতানের এত চাহিদার কারণ? সুলতানের বীর্যের বিশাল চাহিদা ছিল। তার মালিক নরেশের দাবি, সুলতানের বীর্য বিক্রি করে বছর ভর লাখ লাখ টাকা আয় করতেন তিনি। বছরে সুলতানের ৩০ হাজার ডোজ বীর্য বিক্রি হত। প্রতি ডোজের দাম ৩০৬ টাকা। আর এ কারণেই সুলতানের দাম এত বিপুল ছিল। রাজস্থানের পুষ্কর পশুমেলায় সুলতানের দাম উঠেছিল ২১ কোটি টাকা। কিন্তু তার মালিক নরেশ জানান, সুলতান তার সন্তানের মতো। এই বিপুল দাম পেয়েও তাই ওকে বিক্রি করেননি।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা