Naya Diganta

জাতীয় দলের ফুটবলার নিয়ে টানাটানি

কিরগিজস্তানে তিন ম্যাচে হেরেই দেশে ফিরে সব ফুটবলার চলে গেছেন যার যার ক্লাবে। এএফসি কাপ খেলায় বসুন্ধরা কিংসের তিন ম্যাচ বাকি। তাই ঢাকা আবাহনী, শেখ রাসেল এবং সাইফ স্পোর্টিং তাদের ক্যাম্প বন্ধ করতে পারেনি। এই চার ক্লাব ছাড়া বাকি সব ক্লাবই ফুটবলারদের ছেড়ে দিয়েছে। এই ফাঁকে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ক্লাবগুলো আসন্ন মৌসুমের জন্য নতুন ফুটবলার জোগাড় করা এবং পুরনোদের রেখে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে। আর বড় ক্লাবদের চোখ জাতীয় দলের ফুটবলারদের দিকে। পুরাতন ক্লাবের সাথে এখনো চুক্তি বিদ্যমান। এরপরও নতুন ক্লাবের সাথে চলছে ফুটবলারদের কথাবার্তা।
২০১২-১৩ সিজনের পর আর ভালো করতে পারছে না শেখ রাসেল ক্রীড়া চক্র। এবার তারা চ্যাম্পিয়ন ফাইটিং দল গড়তে উঠে পড়ে লেগেছে। বসুন্ধরা কিংসের মতো শেখ রাসেল এবং লে. শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের নেতৃত্বে বসুন্ধরা গ্রুপের শীর্ষ কর্মকর্তারা। তবে এবার বসুন্ধরা কিংসকে চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছে শেখ রাসেল। এখনো পেশাদার লিগের শিরোপা জিততে না পারা মোহামেডানও এবার ভালো দল গড়তে যাচ্ছে। ফুটবল অঙ্গনে জোর আলোচনা এবার ভালো দল গড়তে যাচ্ছে শেখ রাসেল ও মোহামেডান। দুই দলেরই চোখ জাতীয় দলের ফুটবলারদের দিকে। ঢাকা আবাহনী, সাইফ স্পোর্টিংও বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়ে পুস্ট হতে যাচ্ছে। যদিও এই দুই দলে লালসবুজ জার্সিধারী উপস্থিতি আছেন একাধিক।
জানা গেছে, সাইফের জাতীয় দলের ডিফেন্ডার রহমত মিয়া আগামীবার ঢাকা আবাহনীতে খেলবেন। আর আবাহনীর গোলরক্ষক শহীদুল আলম সোহেল সাইফ স্পোর্টিংয়ে যোগ দেবেন। আকাশী নীল-শিবির তাদের সিনিয়র বেশ কয়েকজন ফুটবলারকে ছেড়ে দিচ্ছে। বিকল্প হিসেবে উঠতি প্রতিভাবানদের নিতে যাচ্ছে। এরই অংশ হিসেবে ওয়ালী ফয়সালের বদলে নেয়া হচ্ছে রহমতকে। শেখ জামালের দুই ফুটবলারও তাদের টার্গেট। শেখ রাসেল তাদের পুরনো গোলরক্ষক আশরাফুল রানার সাথে রহমতগঞ্জের জাতীয় দলের সাবেক গোলরক্ষক রাসেল মাহমুদ লিটনকে নিতে যাচ্ছে। এ ছাড়া জাতীয় দলের সুমন রেজা, ইমন, সোহাগ, জুয়েলকে দেখা যেতে পারে এই ক্লাবে।
মোহামেডানও জাতীয় দলের তিন ফুটবলারকে নেয়ার চেষ্টা করছে। তবে কোনো ফুটবলারই ৪০ লাখ টাকার নিচে পারিশ্রমিকে রাজী হচ্ছে না। মোহামেডান কর্মকর্তা আবু হাসান চৌধুরী প্রিন্স জানান, যদি আমরা জাতীয় দলের খেলোয়াড় নাও পাই এরপরও ভালো মানের তিন বিদেশী আনব। এদিকে মুক্তিযোদ্ধা তাদের এবারের পারফর্ম করা সব খেলোয়াড়কেই হারাতে যাচ্ছে।