Naya Diganta

প্রতিরোধ করুন উচ্চ রক্তচাপ

ব্যস্ত নগরজীবনে বাড়ছে মানুষের ব্যস্ততা, মানসিক চাপ। সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্তের হার। বাংলাদেশে সঠিক পরিসংখ্যান জানা না থাকলেও পরিসংখ্যান থেকে জানা যায়, বাংলাদেশের ১০ থেকে ২০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তি উচ্চ রক্তচাপে ভুগছে। অর্থাৎ এ দেশে উচ্চ রক্তচাপের রোগী দেড় কোটিরও বেশি। উচ্চ রক্তচাপ যে কতটা ভয়ঙ্কর তা বলার অপেক্ষা রাখে না। হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, হৃদরোগ, কিডনি ফেইলুর, অন্ধত্ব সবই উচ্চ রক্তচাপের জটিলতা। ভয়ঙ্কর এ জটিলতাগুলো কিন্তু প্রতিরোধ করা সম্ভব শুধু উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধ করার মাধ্যমে। দেশে ফাস্টফুডের ব্যাপক প্রচলন ও শারীরিক পরিশ্রমের অনীহার কারণে বাড়ছে স্থূলতা। এটি কিন্তু বেশ বিপজ্জনক। গবেষণায় দেখা গেছে অতিরিক্ত ওজনের কারণে উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্তের হার বাড়ে ২-৬ গুণ। এমনকি অল্প পরিমাণে ওজন কমালে উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্তের হার কমে। গবেষণায় দেখা গেছে উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্তরা লবণের পরিমাণ কমিয়ে রক্তচাপ কমিয়েছেন। তাই খাবারে লবণের পরিমাণ কমান। শুধু খাবারে লবণের পরিমাণ কমালেই হবে না লবণযুক্ত বাইরের খাবারও কমাতে হবে। এমন খাবারগুলো হলো : চানাচুর, সিঙ্গারা-সমুচা, বিভিন্ন ধরনের ফাস্টফুড যেমন- কেক, পুডিং, বার্গার, স্যান্ডউইচ। বিভিন্ন প্রক্রিয়াজাত খাবারে লবণ বেশি থাকে, তাই পরিহার করাই শ্রেয়। টেস্টিং সল্টও কিন্তু ক্ষতিকর। কোলেস্টেরল ও চর্বিসমৃদ্ধ খাবার যেমন : ডিমের কুসুম, কলিজা, মাছের ডিম, খাসি বা গরুর চর্বিযুক্ত গোশত, হাস-মুরগির চামড়া, হাড়ের মজ্জা, ঘি, মাখন, ডালডা, চিংড়ি, পাম অয়েল, নারকেল পরিহার করতে হবে। বেশি বেশি খেতে হবে আঁশযুক্ত খাবার যেমন সব রকমের ডাল, শাকসবজি, ফল বিশেষ করে খোসাসহ ফল-পেয়ারা, জাম্বুরা আমলকী, বিভিন্ন ধরনের মাছ যেমন ; সামুদ্রিক মাছ, ছোট মাছ, মাছের তেল। এ ছাড়া উদ্ভিজ তেল যেমন- কর্ন অয়েল, সানফ্লাওয়ার অয়েল, অলিভ অয়েল, সয়াবিন তেল, সরিষা তেল বেশি করে খান। যারা নিয়মিত পরিশ্রম করে তারা অপরিশ্রমীদের চেয়ে ২০-৫০ ভাগ কম উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত হন। এ জন্য আপনাকে ম্যারাথনে যোগ দিতে হবে না। প্রতিদিন ৩০-৪৫ মিনিটের ব্যায়াম যেমন হাঁটাচলা, সাইকেল চালানো যথেষ্ট। বিড়ি-সিগারেট, অ্যালকোহলকে না বলুন। এটা উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধের অন্যতম উপায়। দুঃচিন্তা রক্তচাপ বাড়ায়। দীর্ঘ মেয়াদি দুঃচিন্তায় দেখা দেয় উচ্চ রক্তচাপ। তাই কোনো বিষয়ে বেশি দুঃচিন্তা করবেন না। দুঃচিন্তা এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন। নিয়ন্ত্রণ করুন রাগ, ক্ষোভ। হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করুন।