Naya Diganta

মসজিদে মসজিদে ইতিকাফকারীদের ঈদ সামগ্রী পৌঁছে দিলেন কাউন্সিলর খোরশেদ

মসজিদে মসজিদ ইতিকাফকারীদের ঈদসামগ্রী দিলেন কাউন্সিলর খোরশেদ

নারায়ণগঞ্জের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের ১৭ বছরের ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে প্রতিটি মসজিদে ইতিকাফে বসা মুসুল্লিদের ঈদ উপহার সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন আলোচিত কাউন্সিলর মাকছুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। বুধবার মসজিদে মসজিদে গিয়ে তাদের হাতে ঈদ উপহার সামগ্রী তুলে দয়া হয়।

জানা গেছে, এবার নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের বিভিন্ন মসজিদে ৮৭ জন মুসুল্লি ইতিকাফ করছেন। তারা পেয়েছেন কাউন্সিলরের বিশেষ ঈদ উপহার।

এর আগে ২২ রমজান থেকে প্রায় নয় হাজার পরিবারকে ঈদ উপহার সামগ্রী দেন খোরশেদ। নিজ ওয়ার্ডের প্রতিটি মানুষের ঘরে ঘরে খোঁজ নিয়ে সার্ভে করে যাদের ঈদ উপহার সামগ্রী প্রয়োজন তাদেরকেই ঈদ উপহার সামগ্রী দেন তিনি। সবার ঘরে ঘরে স্বেচ্ছাসেবকদের মাধ্যমে এ খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়।

কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদের ঈদ উপহার সামগ্রী হাতে পেয়ে শহরের আমলাপাড়ার বাসিন্দা ৭২ বছর বয়সী কুলসুম আরা বেগম বলেন, 'খোরশেদ আমাগো করোনায় দৌড়ায় আহে, আমাগো বিপদে আহে, আমাগো খাওন না থাকলে খাওন দেয়। আর ঈদের লাইগ্যা আমাগো চাইল, ডাইল, তেল, দুধ, চিনি, সেমাই, লবন হগলই দিছে। আল্লাহ ওর এই মেহনত কবুল করবে।'

খোরশেদের উপহার সামগ্রী পেয়ে তার ওয়ার্ডের এমন হাজারো মানুষের একই কথা, তারা খোরশেদের এই ভালোবাসার মূল্য ভালোবাসা ও দোয়ার মাধ্যমে দিতে চান।

খোরশেদ নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের নির্বাচিত কাউন্সিলর। টানা তিনবার তিনি সিটি করপোরেশনের মধ্যে সর্বোচ্চ ভোটে নির্বাচিত একজন কাউন্সিলর। তার এলাকার আট হাজার মুসলিম ও এক হাজার হিন্দু পরিবারের জন্য এবার তিনি ব্যবস্থা করেছেন ঈদ উপহার সামগ্রীর।

করোনার শুরু থেকেই মানবসেবায় অনন্য উদাহরণ সৃষ্টি করে দেশব্যাপী আলোচিত ও প্রশংসিত হয়েছেন কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ। করোনায় আক্রান্তদের সেবা, বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান, প্লাজমা প্রদান, বিনামূল্যে ওয়ার্ডবাসীকে সবজি বিতরণ, মৃতদের দাফন বা সৎকার ও ফ্রি অ্যাম্বুলেন্স সেবা দিয়ে আলোচনায় আসেন তিনি। ইতোমধ্যে করোনায় মৃত ২০২টি দাফন/ সৎকার করেছেন তিনি ও তার স্বেচ্ছাসেবী দল।

এ ছাড়াও করোনায় আক্রান্ত হয়ে ওয়ার্ডবাসীর যারা আইসোলেশনে রয়েছেন তাদেরকে খোরশেদের স্বেচ্ছাসেবকরা নিয়মিত যোগাযোগ করে চিকিৎসা সেবা প্রদান করছেন ও অক্সিজেন সেবা দিচ্ছেন। তাদের পরিবারের যেকোনো প্রয়োজনে টিম খোরশেদের সদস্যরা পাশে থাকছেন ও ঘরে ঘরে ঈদের বিশেষ উপহার পৌঁছে দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া মাসদাইর কবরাস্তানের ১১ জন কবর খননকারী ও শশ্মানের তিনজন ডোমকে খাদ্য সামগ্রী ও নগদ টাকা উপহার দেন খোরশেদ।

কাউন্সিলর খোরশেদ জানান, ঈদ উপহার কার্যক্রম প্রতি বছরের মতো এবারো চলছে। করোনায় যদি আমরা খেয়ে থাকি তাহলে আমার ওয়ার্ডবাসীর সকলেই খেয়ে থাকবে। আমার ঘরে ঈদ হলে প্রত্যেক ওয়ার্ডবাসীর ঘরে ঈদ হবে। আমরা সবাই মিলে একটি পরিবার। আর এ পরিবারের কাউকে বাদ দিয়ে উদযাপন করলে ঈদের আনন্দ অপূর্ণ থেকে যাবে। আমি চেষ্টা করছি ওয়ার্ডবাসীর পাশে থাকার।