Naya Diganta

সাকিবকেই যত ভয় মায়ার্সের

সাকিবকেই যত ভয় মায়ার্সের

ছিলেন এক বছরের নির্বাসনে। বঙ্গবন্ধু টি-টোয়েন্টি কাপ দিয়ে ফিরেছেন ক্রিকেটে। কিন্তু সেভাবে নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি তিনি। বল হাতে মাঝে মধ্যে আলোর ঝলক দেখালেও ব্যাট হাতে ছিলেন নিষ্প্রভ। প্রস্তুতি ম্যাচে গতকাল ফিফটি করে অবশ্য সে খরাটা কাটিয়েছেন। সাকিব আল হাসানের সামনে এবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফেরার পালা। ২০ জানুয়ারি প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। এই ম্যাচ দিয়েই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরবেন সাকিব।

তার আগে ক্যারিবীয় শিবিরে সাকিবকে নিয়ে শুরু হয়ে গেছে বিশ্লেষণ। ধারে ভারে ঘরের মাঠে বাংলাদেশ অনেক এগিয়ে থাকলেও বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিবকে নিয়েই যত ভয় উইন্ডিজদের। তার কারণ সবারই জানা। স্পিন ঘূর্ণির সাথে সাকিবের ব্যাটিং ঝলক। সিরিজ শুরুর আগে সাকিবকে নিয়ে কথা বললেন ক্যারিবীয় অলরাউন্ডার কাইল মায়ার্স। তার মতে, এই সিরিজে উইন্ডিজের জন্য হুমকি সাকিব। সাথে তামিম ইকবালও।

সবশেষ বাংলাদেশ সফরে সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালের বিপক্ষে বেশ ভুগতে হয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজকে। টেস্টে হোয়াইটওয়াশ হয়েছিল ক্যারিবিয়ানরা, হেরেছিল ওয়ানডে সিরিজও। ওই দুই সিরিজেই দলকে সাফল্য এনে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন সাকিব-তামিম।

দেশের মাটিতে ২০১৮ সালে ক্যারিবীয়নদের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে দুই ফিফটিতে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৪৩ রান করেছিলেন তামিম। সাকিবের রান ছিল এক ফিফটিতে ৯৫। বাঁহাতি স্পিনে উইকেট নিয়েছিলেন তিনটি। টেস্ট সিরিজে চতুর্থ সর্বোচ্চ রান ছিল সাকিবের। তিন ইনিংসে ব্যাট করে এক ফিফটিতে করেছিলেন ১১৫। ১৮.৩৩ গড়ে উইকেট নিয়েছিলেন ৯টি, সিরিজে তৃতীয় সর্বোচ্চ।

সবশেষ সিরিজে তাদের সাফল্যের কথা বিবেচনায় নিয়েই হয়তো মায়ার্স বললেন সাকিবের কথা। শনিবার প্র্যাকটিস সেশন শেষে তিনি বলেন, ‘আমার কাছে মূল হুমকি মনে হয় সাকিবকে। আমি ওর সাথে সিপিএলে খেলেছি। একই সাথে তাদের অধিনায়ক তামিমকেও, সেও বিশ্বমানের একজন ক্রিকেটার।’