Naya Diganta

আর্মেনিয়ার যুদ্ধবিমান ভূপাতিত করার অভিযোগে যা বলল তুরস্ক

আর্মেনিয়া এবং আজারবাইজানের সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে লড়াই শুরু হয়ে গেছে বিতর্কিত নাগোর্নো-কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে। এরই মধ্যে শতাধিক মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন।

আর্মেনিয়ান বাহিনীর অভিযোগ, তুর্কি যুদ্ধবিমানের গুলি করে আর্মেনিয় যুদ্ধবিমান সুখোই-২৫ ভূপাতিত করেছে।

তুরস্ক এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছে।

তুর্কি যোগাযোগ বিষয়ক পরিচালক ফাহেরেতিন আলতুন মঙ্গলবার গভীর রাতে ব্লুমবার্গকে বলেছিলেন, তুরস্ক আর্মেনিয়ান সামরিক বাহিনীর একটি সুখোই-২৫ গুলি করে ভূপাতিত করার অভিযোগ একেবারেই অসত্য। আর্মেনিয়াকে এসব সস্তা কৌশল অবলম্বন না করে তার দখলে থাকা আজারবাইজানের অঞ্চলগুলো থেকে সরে আসতে হবে।

দিন শেষে, আজারবাইজানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

আজারবাইজানে বেসামরিক নাগরিকদের উপর আর্মেনিয়ার চালানো হামলায় দক্ষিণ ককেশাসের পরিস্থিতি উত্তেজনাপূর্ণ হয়ে উঠেছে।

এদিকে বিশ্ব নেতৃবৃন্দ আর্মেনিয়া ও আজারবাইজানের মধ্যকার এ সংঘর্ষ বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে।

সাবেক সোভিয়েতভুক্ত এ দুটি দেশ ১৯৯০ সাল থেকেই আঞ্চলিক বিরোধে জড়িয়ে আছে। ২০১৬ সালে এসে তা মারাত্মক রূপ নেয়। এ প্রেক্ষাপটে জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেস অবিলম্বে এই সংঘাত বন্ধের আহ্বান জানিয়েছেন।

মহাসচিবের মুখপাত্র এক বিবৃতিতে বলেছেন, গুতেরেস অবিলম্বে উভয়পক্ষকে এই যুদ্ধ বন্ধের জন্য জোরালো আহ্বান জানান। বিলম্ব না করে অর্থপূর্ণ আলোচনায় ফেরারও আহ্বান জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, দুই দেশের মধ্যে নাগরনো কারাবাখ নিয়ে রোববার নতুন করে সংঘর্ষ শুরু হয়। ব্যাপক গোলাগুলির পর পরিস্থিতি যুদ্ধাবস্থায় পৌঁছায়।

এ প্রেক্ষাপটে আর্মেনীয় সরকার সামরিক আইন জারি করে নিজ জনগণকে যুদ্ধের জন্যে প্রস্তুত হতে বলেছে। আর্মেনিয়ার দাবি, প্রথমে আজারবাইজান বাহিনী তাদের বাহিনী লক্ষ্য করে গোলা ছোঁড়ে।

কিন্তু আজারবাইজান বলছে, আর্মেনিয়ার বাহিনীই প্রথমে তাদের সেনা ও বেসামরিক স্থাপনা লক্ষ্য করে গোলাবর্ষণ করে। ডেইলি সাবাহ