Naya Diganta

সৈয়দপুরে গৃহবধূসহ শিশু অপহরণের দায়ে ১ জনের যাবজ্জীবন

নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলায় গৃহবধূসহ শিশুকে অপহরণের দায়ে লুৎফর রহমান নামের এক ব্যক্তিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও বিশ হাজার টাকা অর্থদণ্ডের রায় প্রদান করা হয়েছে।  বুধবার দুপুরে নীলফামারী নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক (জেলা ও দায়রা জজ) আহসান তারেক ওই দণ্ডাদেশ প্রদান করেন।

দণ্ডাদেশ প্রাপ্ত লুৎফর রহমান কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার মরহুম রহিম উদ্দিন ঠাকুরের ছেলে। তিনি দীর্ঘ দিন থেকে নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার ধলাগাছ গ্রামে বসবাস করছিলেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরনে জানা যায়, সৈয়দপুর উপজেলার ধলাগাছ গ্রামের রাজমিস্ত্রি মতিয়ার রহমানের স্ত্রী মোছা: ছাবিয়া খাতুনকে (২২) নানা রকম প্রলোভন দিয়ে প্রায় সময় কু-প্রস্তাব দিতেন প্রতিবেশী লুৎফর রহমান। কু-প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় ২০০৪ সালের ১০ জুন দুপুরে স্বামী মতিয়ার রহমানের অনুপস্থিতিতে গৃহবধূ ছাবিয়া খাতুন ও তার শিশু কন্যাকে বাড়ির সামনে থেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় লুৎফর রহমান।

এঘটনায় গৃহবধূর স্বামী মতিয়ার রহমান বাদী হয়ে লুৎফর রহমানকে একমাত্র আসামি করে ২০০৪ সালের ১৬ জুন সৈয়দপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ এর ৭ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলা তদন্ত শেষে সৈয়দপুর থানার তৎকালিন সময়ের উপ-পরিদর্শক বাবুল আক্তার আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন। উক্ত চাজশিটের ভিত্তিতে ২০০৪ সালের ৭ সেপ্টেম্বর আসামির বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ২০০০ (সংশোশিত/০৩) এর ৭ ধারার অপরাধ বিচারার্থে আমলে নেয় আদালত। এরপর ২০০৮ সালের ১২ মে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট রমেন্দ্র নাথ বর্ধন বাপী বলেন, স্বাক্ষ্য প্রমানে সন্দেহাতিতভাবে প্রমাণ হওয়ায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডাদেশ দেন আদালতের বিজ্ঞ বিচারক।

তিনি আরো জানান, আসামি লৎফর রহমান পলাতক থাকায় তার অনুপস্থিতিতে ওই দণ্ডাদেশ প্রদান করেন বিজ্ঞ বিচারক।