Naya Diganta

ঈদের ৩ দিন বিশেষ সিসিমপুর ‘হৈ-হুল্লোড় ঈদে, থাকি নিরাপদে’

ঈদে প্রচারিত হবে সিসিমপুরের তিন পর্বের বিশেষ অনুষ্ঠান ‘হৈ-হুল্লোড় ঈদে, থাকি নিরাপদে’। বাংলাদেশ টেলিভিশনের ঈদ অনুষ্ঠানমালায় ঈদের দিন বেলা ১১টা ২০মিনিট, ঈদের দ্বিতীয় দিন এবং ঈদের তৃতীয় দিন বেলা ১১টা ২৫ মিনিটে প্রচারিত হবে বিশেষ এই অনুষ্ঠানটি। সিসিমপুর সূত্রে জানা গেছে, সিসিমপুরের জনপ্রিয় চরিত্রগুলো তাদের বাড়িতে থেকেই অনুষ্ঠানটিতে অংশ নেবে। কারণ করোনাভাইরাসের কারণে তারা সবাই ঘরেই থাকছে। কিন্তু ঘরে থেকেও কিভাবে ঈদের আনন্দ করা যায়, কিভাবে বাইরের পৃথিবীটাকে ঘরে নিয়ে আসা যায়, সেগুলো নিয়ে কথা বলবে হালুম-টুকটুকি আর ইকরিরা। ওরা কল্পনায় পার্কে হাঁটে-বেড়ায়, কল্পনায় ঘুড়ি ওড়ায়। ওরা জানে, সব স্বাভাবিক হলে আবারও বটতলায় যাবে খেলতে। তার আগ পর্যন্ত ওরা ঘরেই বসে গান গাইবে আর ঈদের মজা করবে। তবে ঘরে থাকা সময়ে ওদের মনও খারাপ হয়। মন খারাপ হলে কী করতে হবে, সেগুলোও উঠে এসেছে এই তিন পর্বে। করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকতে স্বাস্থ্যকর অভ্যাস পালন করছে হালুমরা। ওরা বাইরে যায় না। তবে যদি কাউকে কোনো জরুরি কাজে বাইরে যেতে হয়, তাহলে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখে। আর মাস্কতো অবশ্যই পরে। হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় কনুই দিয়ে নাক-মুখ ঢাকে। প্রতিদিন সাবান মেখে গোসল করে, ঘরে থেকেই করে নানান রকম ব্যায়াম, ঘরেই খেলে আর ঘুমায় পর্যাপ্ত পরিমাণে। আর তারপরেও যদি কেউ অসুস্থ হয়েও যায়, তাহলেও, ওরা জানে, ভয় পাওয়ার কিছু নেই। পুষ্টিকর খাবার আর বড়দের কথামতো বিশ্রাম আর চিকিৎসা নিয়ে ওরা সুস্থ হতে পারে। ঈদের বিশেষ এই অনুষ্ঠান সম্পর্কে সিসিমপুরের নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ শাহ আলম বলেন, করোনা মহামারীর এই বিশেষ সময়ে শিশুদের শিক্ষা ও নিরাপত্তায় আমাদের বিশেষ নজর দিতে হবে। ঈদের বিশেষ এই অনুষ্ঠানটিও সেভাবে সাজানো হয়েছে। শিশুদের প্রিয় চরিত্রগুলো বিনোদনের মধ্য দিয়ে শিশুদের জানাবে কিভাবে ঘরে থেকেই ঈদের আনন্দ উপভোগ করা যায় আর নিজেদের নিরাপদ রাখা যায়।