Naya Diganta

কাতার জয়ই জামালের স্মরণীয়

২০১১ সালে বাংলাদেশে প্রথম ট্রায়াল দিতে এসে ব্যর্থ। তবে ২০১৩ সালে তাকে জাতীয় দলের উপযুক্ত ঘোষণা করলেন ডাচ কোচ লর্ড উইগ ডি ক্রুয়েফ। সেই জামাল ভূঁইয়াই এখন বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক। বাংলাদেশের প্রথম ফুটবলার হিসেবে স্প্যানিশ লা লিগের খেলা ধারা বর্ণনা দিয়েছেন টিভিতে। গতকাল জামাল ভূঁঁইয়াকে নিয়ে ফেসবুক লাইভ করে বাফুফে। জামাল জানান, ২০১৮ জার্কাতা এশিয়ান গেমস ফুটবলে কাতারের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়টি তার স্মরণীয় ম্যাচ।
আর হৃদয়ভাঙা কষ্ট, ভারতের বিপক্ষে বিশ্বকাপ বাছাই পর্বের অ্যাওয়ে ম্যাচে সারাক্ষণ এগিয়ে থেকেও ৮৯ মিনিটের গোলে জয় বঞ্চিত হওয়া। সে সাথে উল্লেখ করেন, তার আদর্শ ফুটবলার ব্রাজিলে রোলানদো, রোনালদিনহো এবং ফ্রান্সের জিনেদিন জিদান। আর বাংলাদেশ দলের কোচদের মধ্যে জামালের প্রিয় জেমি ডে।
তিন সিনিয়র ফুটবলার পুষ্ট বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-২৩ দল জার্কাতা এশিয়াডে ১-০ গোলে হারায় কাতারকে। জামাল ভূঁইয়ার গোলে যা লাল-সবুজদের প্রথমবারের মতো নিয়ে যায় এশিয়ান গেমস ফুটবলের দ্বিতীয় রাউন্ডে। কাতারের মতো দলের বিপক্ষে অতি গুরুত্বপূর্ণ এই জয়ই আমার কাছে সবচেয়ে স্মরণীয়।
এরপর যোগ করেন ভারতের সাথে এবারের বিশ্বকাপ বাছাই ম্যাচে যদি জিততে পারতাম তাহলে সেটিও হতো স্মরণীয়। এখন সেই ম্যাচটিই আমার কাছে সবচেয়ে কষ্টের। ৮৫ মিনিটের সময়ও ধরে নিয়েছিলাম আমরা ম্যাচটি জিততে যাচ্ছি। তখনই ৮৯ মিনিটে কর্নার থেকে ভারত গোল করে আমাদের হৃদয় ভেঙে দেয়। এই ম্যাচের গুরুত্ব টেনে এনে জামাল বলেন, ম্যাচটি খেলতে ভারত যাওয়ার পর থেকেই ভারতীয়রা বলছিল, বাংলাদেশ ৩-৪ গোলে হারবে। সংবাদ সম্মেলনে বলা হলো বাংলাদেশ ৩-৪ গোলে হারলে আমরা খুশি থাকব কি না। তখন আমি বলেছিলাম, আমরা ভারতীয়দের হৃদয় ভেঙে দেবো। এরপর গ্যালারি ভর্তি হাজার হাজার দর্শকের সামনে আমার ফ্রি-কিক থেকেই সাদউদ্দিনের হেডে লিড । এরপর জীবনের শট গোল লাইন থেকে ডিফেন্ডার রক্ষা না করলে ম্যাচে ২-০ গোলে এগিয়ে যেতাম। অথচ শেষ পর্যন্ত ১-১ এ ড্র করতে হলো। ২০১৫ সালের বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের ফাইনালে মালয়েশিয়ার কাছে ইনজুরি টাইমের গোলে ২-৩ গোলে হারের কষ্টটা আজো তাড়িয়ে বেড়ায় তাকে।
তার দেয়া তথ্য, ২০১৩ সালে প্রথম যখন লাল-সবুজ জার্সি গায়ে খেলি তখন জাতীয় সঙ্গীত বাজার সময় আমার শরীরের সব লোম দাঁড়িয়ে গিয়েছিল। খেলোয়াড়ি জীবন শেষে কোচ হওয়ার কথা জানান জামাল ভূঁইয়া। তার স্বপ্ন সাফে বাংলাদেশকে চ্যাম্পিয়ন হিসেবে এবং র্যাংকিংয়ে আরো উপরে দেখা। লাল-সবুজ জার্সিতে খেলতে চান আরো অনেক বছর।