Naya Diganta

করোনা উপলক্ষে ৭ বছর পর রংপুর মহানগরীতে ওএমএস এর চাল আটা বিক্রি শুরু

সিটি মেয়র মোস্তফার মানবিক আবেদন প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন করায় সাত বছর পর রংপুর মহানগরীতে করোনা উপলক্ষে রোববার সকাল থেকে শুরু হয়েছে প্রতি কেজি চাল ১০ ও আটা ১৮ টাকায় বিক্রির কার্যক্রম। এই চাল ও আটা কিনতে ওএমএস ডিলারদের কাছে ভিড় করেছেন নি¤œ আয়ের মানুষ। তাদের সামলাতে মাঠে আছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী
রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়রের একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী জাহিদ হোসেন লুসিড জানিয়েছেন, সিটি করপোরেশন হওয়ার পর থেকে রংপুর মহানগরীর ৩৩টি ওয়ার্ডে ওএমএস-এর চাল ও আটা বিক্রির কার্যক্রম বন্ধ ছিল। ওএমএস চালু ছিল ইউনিয়ন ও উপজেলাপর্যায়ে। করোনাভাইরাস শুরু হওয়ার পর বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা মানবিক দিক বিবেচনায় রংপুর মহানগরীতে ওএমএস এর চাল বিক্রির জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে লিখিত আবেদন করেন। প্রধানমন্ত্রী সেটি অনুমোদন করায় জেলা প্রশাসন ও খাদ্য বিভাগ রংপুর মহানগরীতে ওএমএস এর চাল বিক্রি শুরু করল।
তিনি আরো জানান, ১৫ জন ডিলারের মাধ্যমে এই চাল ও আটা বিক্রি কার্যক্রম শুরু হলো। প্রতিজন ডিলার সপ্তাহের প্রতি রবি, মঙ্গল ও বৃহস্পতিবার এই চাল বিক্রি করবেন। এ জন্য প্রতি ডিলারকে ওই সব দিনে দুই টন চাল ও এক টন করে আটা বরাদ্দ দিয়েছে খাদ্য বিভাগ। একজন ক্রেতা সর্বোচ্চ পাঁচ কেজি চাল ও দুই কেজি আটা ক্রয় করতে পারবেন। নগরীর শাপলা চত্বর ছাড়াও রেলওয়ে স্টেশন, মাহিগঞ্জ, জুম্মাপাড়া আলহেরা স্কুল, কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, তাজহাট এরশাদ নগর, শালবন মিস্ত্রিপাড়া মোড়, বাহার কাছনা মোড়, মডার্ন মোড়, দর্শনা মোড়, মীরগঞ্জ মুদিখানা মোড়, সামরার হাট চিলার ঝাড়, সোডাপীর মোড়, সিও বাজার ও নজীরেরহাটে একযোগে এই বিক্রি কার্যক্রম চলছে।
রংপুর সিটি মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রী আমার মানবিক আবেদন অনুমোদন দিয়ে রংপুর মহানগরবাসীকে কৃতজ্ঞ করেছেন। করোনাভাইরাস শেষ হয়ে যাওয়ার পরেও খোলা বাজারে এই চাল বিক্রির কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।