Naya Diganta

প্রযুক্তি খাতে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব সঙ্কটে অ্যাপল, সম্ভাবনায় স্যামসাং

চীনভিত্তিক ডিভাইস ব্র্যান্ডগুলোর পাশাপাশি করোনাভাইরাসের প্রভাব মার্কিন প্রযুক্তি কোম্পানি অ্যাপলের আইফোন ব্যবসা বিভাগের ওপরও পড়ছে। বিনিয়োগকারীদের সতর্ক করে অ্যাপলের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে চীনে আইফোনের উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় তাদের আগাম পূর্বাভাসের তুলনায় রাজস্ব আয় অনেকাংশে কম হবে। প্রতিষ্ঠানটি স্বীকার করেছে তাদের আইফোন উৎপাদন ও বিক্রি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে এবং বিশ্বব্যাপী আইফোন সরবরাহ বিঘিœত হচ্ছে। চীনে নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় আইফোন উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় চলতি বছরের প্রথম
প্রান্তিকে ৬ হাজার ৭০০ কোটি ডলার রাজস্ব আয়ের যে পূর্বাভাস দেয়া হয়েছিল, তা পূরণ সম্ভব হবে না বলে সতর্ক করেছে অ্যাপল।
অ্যাপল জানিয়েছে, চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকের জন্য যে রাজস্ব পূর্বাভাস দিয়েছিলাম, তা পূরণ হবে না। অর্থাৎ করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আইফোন উৎপাদনে বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে। অ্যাপল চলতি বছরের প্রথম প্রান্তিকে ৪ কোটি ১০ লাখ ইউনিট আইফোন উৎপাদনের যে লক্ষ্য নির্ধারণ করেছিল, তা পূরণ সম্ভব হবে না। উৎপাদন বিভ্রাটের কারণে সরবরাহ এবং বিক্রিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। চীনে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ব্যাপক আকার ধারণ করলে অ্যাপল প্রথমে দেশটিতে নিজেদের ফ্ল্যাগশিপ স্টোর বন্ধ ঘোষণা করে। এরপর পরিস্থিতির আরো অবনতি হলে দেশটিতে অ্যাপলের সব খুচরা বিক্রয় কেন্দ্র অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। একই সময় কর্মীদের নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত বাড়িতে অবস্থানের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
তবে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে আইফোন উৎপাদন ব্যাহত হলেও স্যামসাংয়ের স্মার্টফোন উৎপাদন এবং সরবরাহে কোনো প্রভাব পড়বে না। কারণ চীনে নিজেদের স্মার্টফোন উৎপাদন কার্যক্রম প্রায় শূন্যের কোটায় নামিয়ে এনেছে দক্ষিণ কোরিয়াভিত্তিক প্রতিষ্ঠানটি। এ পরিস্থিতিতে বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে অ্যাপল ক্ষতির মুখে পড়লেও প্রতিদ্বন্দ্বী স্যামসাং লাভবান হবে বলে মনে করা হচ্ছে।