Naya Diganta
রাজধানীর আজিমপুর মেটারনিটি

সিজার অপারেশনে জরায়ু কেটে ফেলার অভিযোগ

রাজধানীর আজিমপুর মেটারনিটি

পুরান ঢাকার লালবাগ থানাধীন আজিমপুর মেটারনিটিতে আনিকা বেগম (২৪) নামে এক প্রসূতির অপারেশনের সময় ভুলবশত জরায়ু কেটে ফেলার অভিযোগ উঠেছে। অপারেশনের পর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় তাকে আফঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের গাইনি বিভাগে ভর্তি করা হয়। শুধু জরায়ু কেটে ফেলা নয় ওই মেটারনিটির ডাক্তার নার্সরা তড়িঘড়ি সেলাই করার সময় প্রসূতির পেটে গজ বেন্ডিজ রেখে দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে।
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তাররা জানিয়েছেন, আজ মঙ্গলবার দ্বিতীয় দফায় তার সার্জারি হতে পারে।
ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল প্রতিবেদক আজিজুল হাকিম জানান, গতকাল সোমবার প্রসূতি আনিকা বেগমের স্বামী রমজান আলী জনি নয়া দিগন্তকে জানিয়েছেন, রোববার রাত ৮টার দিকে হাজারীবাগের বাড্ডানগর লেনের ৪৯/২ নম্বর বাসা থেকে অসুস্থ অবস্থায় আনিকাকে আজিমপুর মেটারনিটিতে নেয়া হয়। সেখানে ডাক্তার তাকে দেখার পর ভর্তির ব্যবস্থা করেন। রাত সাড়ে ৯টার দিকে সিজার করার জন্য তাকে অপারেশন থিয়েটারে (ওটি) নিয়ে যাওয়া হয়। রাত সাড়ে ১০টায় আনিকা ছেলে সন্তান জন্ম দেয়। এর কিছুক্ষণ পরই ডাক্তার নাহিদা বেগম ও নার্স কোহিনুর আক্তার এসে তাকে বলেন, আনিকার অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হচ্ছে। তার জরায়ু কেটে না ফেললে রক্তক্ষরণ বন্ধ করা যাবে না। তখন আমি তাদের বলি, আগে আমার রোগীকে বাঁচান। তখন তারা আমাকে আর কিছু না বলে রোগীকে তাড়াতাড়ি ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। এ নিয়ে মেটারনিটির ডাক্তার-নার্সদের সাথে তাদের কথাকাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। রাত সাড়ে ১২টার দিকে রোগীকে নিয়ে ঢামেক হাসপাতালে গাইনি বিভাগের ২১২ নম্বর ওয়ার্ডে ভর্তি করাই। গতকাল সোমবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ২ নম্বর ইউনিটের ডাক্তার নুর সাহিদা বেগম রোগীর সর্বশেষ অবস্থা জানিযে নয়া দিগন্তকে বলেন, অপারেশন করার সময় ভুলবশত জরায়ু কেটে ফেলা হয়। তারা আবার রক্তচাপ বন্ধ করার জন্য রোগীর তল পেটে গজ-ব্যান্ডেজ রেখে সেলাই করে দেয়। মঙ্গলবার আবার সার্জারি করতে হবে। তারপর বোঝা যাবে রোগীর শারীরিক অবস্থা।