৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

ইসলামি সঙ্গীতে হোসাইন আদনানের সর্বোচ্চ দর্শকের রেকর্ড

ইসলামি সঙ্গীতে হোসাইন আদনানের সর্বোচ্চ দর্শকের রেকর্ড - ছবি : নয়া দিগন্ত

২০০৮ সালে খুলনার ডুমুরিয়ায় দিনব্যাপী ইসলামী সঙ্গীতসহ মোট পাঁচ বিষয়ে প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে সবাইকে অবাক করে দিয়ে ৯ বছর বয়সী এক কিশোর সব বিষয়ে প্রথম হয়েছিল।

প্রতিযোগিতার ফলাফল ঘোষণা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় শিশু-কিশোর ইসলামি সঙ্গীত সংগঠন কলরবের প্রতিষ্ঠাতা মরহুম মাওলানা আইনুদ্দীন আল আজাদ। তিনি পুরস্কার বিতরণের আগে ওই কিশোরকে একটি ইসলামি সঙ্গীত শোনাতে বলেন। কিশোর সঙ্গীত শোনালে মরহুম আজাদ অত্যন্ত মুগ্ধ হন তার সঙ্গীতে। ভূয়সী প্রশংসাও করেন।

অনুষ্ঠান শেষে ওই কিশোরের থেকে তার বাবার ফোন নম্বর নিয়ে যোগাযোগ করে ছেলেকে ইসলামি সঙ্গীত শেখাতে চাইলেন। কিন্তু, ছেলে এখনো ছোট এবং কোরআন হিফজ করছে– এই কথা বলে বাবা অপারগতা প্রকাশ করেন। মরহুম আজাদ তাকে ছেড়ে দেননি। হিফজ শেষ করা পর্যন্ত নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করেছেন এবং বিভিন্ন সময় কলরবের সদস্যদেরকেও খোঁজখবর নেয়ার জন্য পাঠিয়েছেন।

মরহুম আইনুদ্দীন আল আজাদের স্মৃতিচারণ করে ওই কিশোর বলেন, কলরব শিল্পীগোষ্ঠীতে যোগ দেয়ার আগে আজাদ ভাই একদিন অনুষ্ঠান করতে খুলনা গেলেন। আমার খোঁজখবর নিতে আমাদের বাসায় এলেন। তখন বাসার কাছেই খেলার মাঠে বন্ধুদের সাথে আমি ক্রিকেট খেলছিলাম। নিতান্তই শিশু। তেমন কিছুই বুঝি না। হঠাৎ খেয়াল করে দেখি, সাদা জুব্বা-পাগড়ি পরা আজাদ ভাই মাঠের এক কোণায় দাঁড়িয়ে আছেন। আমি খেলায় এতক্ষণ ফিল্ডিং করছিলাম। এখন ব্যাটিংয়ের পালা। ভাবলাম, আগে ব্যাটিং করব, এরপর আজাদ ভাইয়ের সাথে দেখা করব। তা-ই করেছিলাম। আজাদ ভাই আমার খেলা শেষ হওয়া পর্যন্ত সেখানেই দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করলেন।

ওই কিশোর বলেন, এখন আজাদ ভাইয়ের ওভাবে দীর্ঘক্ষণ ছোট একটি ছেলের জন্য দাঁড়িয়ে থাকা আমাকে অবাক করে। এটা নিশ্চয়ই তার বড় মনের পরিচয়। এই বিষয়টি আমাকে দারুণভাবে অনুপ্রাণিত করে।

হিফজ শেষ হলে ২০০৯ সালে কলরবে যোগ দেন ওই কিশোর। এরপরে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। একেরপর এক ইসলামি সঙ্গীত গেয়ে কোটি কোটি দর্শক-শ্রোতার মন জয় করেছেন। শুধু তা-ই নয়, জাফর আহমদ রাবির লেখা এবং বদরুজ্জামানের সুর করা 'মা' নিয়ে ওই কিশোরের গাওয়া 'সারা রাত দু’চোখে ঘুম ছিলো না, কোথায় আছো, কেমন আছো–মা,' নাশিদ ৮০ মিলিয়ন দর্শক দেখেছেন। এ ছাড়াও নাশিদটি বাংলাভাষী মানুষের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পায়।

ওই কিশোরের নাম হোসাইন আদনান। বর্তমানে তিনি কলরব শিল্পীগোষ্ঠীর সিনিয়র শিল্পীদের একজন। পাশাপাশি তিনি গড়ে তুলেছেন ইসলামি সঙ্গীত প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান 'তারানা রেকর্ড'।

হোসাইন আদনানের জন্ম ১৯৯৮ সালের ২ এপ্রিলে। পড়াশোনার হাতেখড়ি মাদরাসাতেই। হিফজ শেষ করে জামিয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদরাসা থেকে দাওরায়ে হাদীস (মাস্টার্স) শেষ করেন। বর্তমানে ঢাকার তামীরুল মিল্লাত কামিল মাদরাসার ফাজিল তৃতীয় বর্ষে এবং ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামিক স্ট্যাডিজ নিয়ে অনার্স করছেন।

হোসাইন আদনানের বাবা ২০১২ সালে ইন্তেকাল করেন। পরিবারে বড় এক ভাই, চার বোন এবং মা রয়েছেন। পড়াশোনার পাশাপাশি বর্তমানে কলরব শিল্পীগোষ্ঠী এবং 'তারানা রেকর্ডে' ব্যস্ত সময় পার করছেন।

কলরবের শুরু সময় থেকেই শিল্পী আবু রায়হান ছায়ার মতো তাকে আগলে রেখেছেন বলে উল্লেখ করেন হোসাইন আদনান। এছাড়াও তিনি যখন কলরবে নতুন তখন নানা ধরনের গল্প শুনিয়ে আনন্দ দিতেন সাঈদ আহমদ। তার প্রতিও তিনি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

হোসাইন আদনান শৈশবে স্বপ্ন দেখতেন– তিনি বড় হয়ে শিক্ষক হবেন। এর কিছু দিন পরে স্বপ্ন দেখা শুরু করলেন– তিনি চিকিৎসক হয়ে মানুষের সেবা করবেন। বয়সের সাথে সাথে স্বপ্নও পরিবর্তন হয়। বর্তমানে তিনি মানুষকে ইসলামের প্রতি আহ্বান জানানোর জন্য নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তোলায় সচেষ্ট আছেন বলে আমাদের জানিয়েছেন।


আরো সংবাদ


premium cement
আওয়ামী লীগের জন্ম বাঙালীর অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য : আমু ‘কাশ্মির ফাইলস’ নিয়ে ভারত-ইসরাইল কূটনৈতিক টানাপোড়ন রাজশাহীতে বৃদ্ধ দম্পতির লাশ উদ্ধার পশ্চিমতীরে সীমালঙ্ঘন করছে ইসরাইল বগুড়ায় মদ্যপ অবস্থায় বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের জেলা সভাপতি গ্রেফতার তাড়াশে ককটেল বিস্ফোরণ মামলায় বিএনপির ৫ নেতাকর্মী আটক বাগেরহাটে ধর্ষণ মামলার সাক্ষীকে কুপিয়ে হত্যা রাশিয়ার ওপর হামলা চালাতে ইউক্রেনের প্রতি ন্যাটোভুক্ত দেশের আহ্বান ‘বাংলাদেশ সব সময় ভারতের কাছ থেকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার পায়’ ইংল্যান্ডে কমেছে খ্রিষ্টান, বেড়েছে মুসলিমদের সংখ্যা বিক্ষোভ মোকাবেলায় পুলিশের উপস্থিতি বাড়ালো চীন

সকল