৩০ মার্চ ২০২৩, ১৬ চৈত্র ১৪২৯, ৭ রমজান ১৪৪৪
`

এমপি রহমতুল্লাহ’র পকেটে আহলে হাদিসের দুই কোটি ভোট

-

নিজেকে আহলে হাদিসের অনুসারী উল্লেখ করে তার পকেটে দুই কোটি ভোট আছে বলে দাবি করেছেন সরকারদলীয় সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহ। তিনি বলেছেন, সারা দেশে আহলে হাদিসের দুই কোটি ভোট। আহলে হাদিসের প্রায় ৩০ জন এমপি আছে। অনেকে পরিচয় দেন না। আমি যেদিকে যাব, আহলে হাদিসের ভোটাররা সেদিকে যাবে।
গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে অনির্ধারিত আলোচনার সুযোগ নিয়ে এসব কথা বলেন তিনি। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া অধিবেশনে পয়েন্ট অব অর্ডারে বক্তব্যের সুযোগ নিয়ে নিজেকে আহলে হাদিসের দুই কোটি ভোটের চিফ অ্যাডভাইজার দাবি করেন প্রবীণ সংসদ সদস্য রহমতুল্লাহ। তিনি বলেন, আমাকে আহলে হাদিসের সভাপতি করতে চেয়েছিল। আমার অফিসে বসে আমি কমিটি বানিয়ে দিই। আমাদের মধ্যে কোনো গ্রুপিং নেই। এরা কোনো দিন জামায়াত করে না। আহলে হাদিস হলো একমাত্র আমি, যেদিকে যাব, সেদিকে থাকবে।
এর আগে একটি পত্রিকার প্রতিবেদন উল্লেখ করে এ কে এম রহমতুল্লাহ বলেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেছেন, এক-এগারোর পর কারা পালিয়েছিল, মানুষ জানে। ফখরুল সাহেব, তুমি তো ধাক্কা দিয়ে মানুষকে ফেলে দিতে চাও। তিনি আরো বলেন, এক-এগারোর সময় আপা (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) তখন যুক্তরাষ্ট্র থেকে লন্ডনে এসেছেন। আমি ইতালি থেকে লন্ডনে আসি। রিজেন্ট পার্কে একটি ফ্ল্যাটে উঠেছেন। আমাকে ডেকে পাঠিয়েছেন। আমাকে বললেন, রহমতুল্লাহ, ঢাকায় তো মায়া (মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া) নাই, আজম (মির্জা আজম), নানক (জাহাঙ্গীর কবির নানক) নাই। আপনি না গেলে সাহারা কি কোনো লোক জোগাড় করতে পারবে? তখন আমি এসে এক দিনে সব ব্যবস্থা করি।
সরকারদলীয় সংসদ সদস্য বলেন, যেহেতু আমি অনেস্ট লোক। এলাকার সব রাস্তাঘাট করে দিয়েছি, উন্নয়ন করেছি, আমি এসে কেমনে কেমনে দুই লাখ লোক জোগাড় করে ফেললাম। তারপর আপাকে রিসেপশন দিলাম। আপা বললেন, এত লোক কেমনে জোগাড় করলেন! আমি বলেছিলাম, আমি সব পারি।
মন্ত্রী হওয়ার প্রস্তাব ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, অনেকে প্রশ্ন করেন, আপনাকে মিনিস্টার করলেন না কেন? আমাকে মেয়র সেধেছেন। মিনিস্টার করতে চেয়েছেন।’ কিন্তু রাজি হইনি।


আরো সংবাদ


premium cement