০৯ আগস্ট ২০২২
`
বিভিন্ন সংগঠনের নিন্দা বিবৃতি

ঢাবি অধ্যাপক ড. মোর্শেদের রিট খারিজ করায় উদ্বেগ

-

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের সংগঠন ইউনিভার্সিটি টিচার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইউট্যাব) এর মহাসচিব ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মো: মোর্শেদ হাসান খানকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ আবাসিক বাসা ছাড়তে যে নোটিশ দিয়েছে তার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিভিন্ন সংগঠন। একই সাথে গত মঙ্গলবার বাসা ছাড়ার নোটিশ স্থগিত চেয়ে অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খানের আবেদন আদালত কর্তৃক খারিজ করে দেয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছে এসব সংগঠন।
ইউট্যাব: গতকাল বুধবার ইউট্যাবের প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে বলা হয়- একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত একটি লেখাকে কেন্দ্র করে প্রথমে অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খানের বাকস্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। এমনকি ওই লেখায় ইতিহাস বিকৃতির মিথ্যা অভিযোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি থেকে বেআইনিভাবে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত যে কেবল রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত তা সবাই বিশ্বাস করে। অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান চাকরি ফিরে পাওয়ার জন্য আদালতে আবেদন করেছেন। তাকে চাকরি থেকে অপসারণের আদেশ কেনো অবৈধ ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। বিষয়টি এখনো বিচারাধীন। চাকরি থেকে বরখাস্ত হওয়ার পর বর্তমান চরম সঙ্কটকালে অসুস্থ স্ত্রী ও কন্যাসন্তান নিয়ে অধ্যাপক মোর্শেদ কোথায় গিয়ে আশ্রয় নিবেন? এমনই পরিস্থিতিতে তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক বাসা ছাড়তে নোটিশ দেয়া অত্যন্ত উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, অগ্রহণযোগ্য, নজিরবিহীন ও অমানবিক। ইউট্যাব মনে করে, বাংলাদেশের মানুষের আশা-ভরসার শেষ আশ্রয়স্থল হচ্ছে আদালত। আমাদেরও প্রত্যাশা অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খান তার চাকরি ফিরে পাওয়ার বিষয়ে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে ন্যায়বিচার পাবেন। সুতরাং ঢাবি কর্তৃপক্ষের কাছে আমাদের দাবি থাকবে- অত্যন্ত মানবিক বিবেচনায় অধ্যাপক মোর্শেদ হাসান খানের মামলার চূড়ান্ত নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বাসা ছাড়ার নোটিশ প্রত্যাহার অথবা স্থগিত করা হোক।
জাবি জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম : এ দিকে ইউট্যাবের মহাসচিব ও ঢাবির মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মো: মোর্শেদ হাসান খানকে আবাসিক বাসা ছেড়ে দেয়ার জন্য নোটিশ দেয়ায় উদ্বেগ জানিয়েছে জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়। সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক সৈয়দ মোহাম্মদ কামরুল আহছান ও সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কামরুল আহসান গতকাল এক বিবৃতিতে বলেন, অধ্যাপক মোর্শেদের মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত বাসা ছেড়ে দেয়ার নোটিশ যেন ‘মড়ার উপর খাঁড়ার ঘা’। চাকরিচ্যুতির বিষয়টি এখনো আদালতে বিচারাধীন রয়েছে বিধায় আইনের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের নমুনাস্বরূপ মামলার বিষয়টি নিষ্পত্তি হওয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাসে বসবাসরত বাসা ছাড়া নোটিশ প্রত্যাহারের জন্য ঢাবি কর্তৃপক্ষের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।
বাউবি জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম: এছাড়া অধ্যাপক ড. মোর্শেদ হাসান খানকে ক্যাম্পাসের বাসা ছাড়ার নোটিশ প্রদান করায় উদ্বেগ প্রকাশ করে নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাউবি) জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক মো: আনিছুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক তানভীর আহসান। নেতৃদ্বয় ঢাবি কর্তৃপক্ষকে অধ্যাপক মোর্শেদের বাসা ছাড়ার নোটিশ প্রত্যাহারের অনুরোধ জানান।


আরো সংবাদ


premium cement