০৪ জুলাই ২০২২, ২০ আষাঢ় ১৪২৯, ৪ জিলহজ ১৪৪৩
`

স্ত্রীর কবরের পাশে গাফফার চৌধুরীকে দাফন

-

দেশের মাটিতেই শায়িত হলেন বরেণ্য সাংবাদিক, লেখক, কলামিস্ট ও একুশের অমর গানের রচয়িতা আবদুল গাফফার চৌধুরী। গতকাল শনিবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে তার শেষ ইচ্ছানুযায়ী তাকে মিরপুর শহীদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে স্ত্রীর কবরের পাশে দাফন করা হয়। এর আগে বেলা ১১টার দিকে তার কফিন বহনকারী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিজি ২০২ ফ্লাইট লন্ডন থেকে শাহজালাল বিমানবন্দরে অবতরণ করে। সেখানে সরকারের পক্ষ থেকে লাশ গ্রহণ করেন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।
এ সময় বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেনÑ কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী মো: মাহবুব আলী, আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের চেয়ারম্যান সাজ্জাদুল হাসান, বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) চেয়ারম্যান এয়ারভাইস মার্শাল এম মফিদুর রহমান, শাহজালাল বিমানবন্দরের নির্বাহী পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন কামরুল ইসলাম প্রমুখ।
বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেলা ১টার দিকে লাশ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আনা হয়। সেখানে প্রথমে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানান তার সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাউদ্দীন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষে তার সামরিক সচিব ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কবির আহমেদ। এরপর স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে আওয়ামী লীগের পক্ষে দলটির সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে শ্রদ্ধা জানান। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুস।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের ট্রাস্টি ডা: জাফরুল্লাহ চৌধুরী। আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বাহাউদ্দিন নাছিম, প্রেসিডিয়াম সদস্য আব্দুর রাজ্জাক, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক দীপু মনি ও সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল প্রমুখ।
সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বেলা সোয়া ৩টার দিকে লাশ ঢাবির কেন্দ্রীয় মসজিদে নেয়া হয়। সেখানে ৩টা ২৫ মিনিটে প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে ইমামতি করেন বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদের খতিব। নামাজে জানাজায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো: আখতারুজ্জামান, প্রো-ভিসি অধ্যাপক ড. মাকসুদ কামালসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।
এরপর বিকেল ৪টায় লাশ জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনা হলে সেখানে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেনÑ জাতীয় প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, সাধারণ সম্পাদক ইলিয়াস খান, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি শফিকুর রহমান, সাইফুল আলম, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সহকারী প্রেস সচিব হাসান জাহিদ তুষারসহ ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, ডিইউজে, বিএফইউজেসহ বিভিন্ন সংগঠনের সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিকরা।
নামাজে জানাজা শেষে গফাফার চৌধুরীর কফিনে ফুলেল শ্রদ্ধা জানায় জাতীয় প্রেস ক্লাব, প্রধানমন্ত্রী প্রেস উইং, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে), ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে), ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি, এডিটরস গিল্ড, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, বরিশাল বিভাগ সাংবাদিক ফোরাম, চট্টগ্রাম বিভাগ সাংবাদিক ফোরামসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন। এরপর লাশ দাফনের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়।
গত ১৯ মে ভোরে লন্ডনের বার্নেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান আবদুল গাফফার চৌধুরী। তার বয়স হয়েছিল ৮৮ বছর। তিনি বার্ধক্যজনিত নানা রোগে ভুগছিলেন। মারা যাওয়ার পর গত ২০ মে পূর্ব লন্ডনের ব্রিকলেইন মসজিদে প্রথম নামাজে জানাজা হয়। পরে পূর্ব লন্ডনের ঐতিহাসিক শহীদ আলতাব আলী পার্কের শহীদ মিনারে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় ব্রিটিশ-বাংলাদেশী কমিউনিটির সদস্যসহ সর্বস্তরের মানুষ তার প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানায়।


আরো সংবাদ


premium cement