০৭ জুলাই ২০২২, ২৩ আষাঢ় ১৪২৯, ৭ জিলহজ ১৪৪৩
`

নবম ওয়েজ বোর্ড সংশোধন করে দ্রুত বাস্তবায়ন ও মহার্ঘ্য ভাতা প্রদানের দাবি বিএফইউজের

-

সাংবাদিকদের জন্য সরকার ঘোষিত নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড রোয়েদাদ দ্রুত সংশোধন করে তা বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি ওমর ফারুক এবং ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মহসীন কাজী। গণমাধ্যমে প্রেরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, নিত্যপণ্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে জীবনযাত্রার মান অনেক বেড়েছে। গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকরা নানাভাবে আর্থিক অনটনে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এ অবস্থায় সাংবাদিকদের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন মহার্ঘ্য ভাতা চালুরও দাবি জানান নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশের সার্বিক পরিস্থিতি এবং জীবনযাত্রার মান বেড়ে যাওয়ায় সাংবাদিকরা নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের দাবি জানানোর পর সরকার ২০১৮ সালের ২৯ জানুয়ারি অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মো: নিজামুল হকের নেতৃত্বে নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড গঠন করে। এ পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ১২ সেপ্টেম্বর সরকার নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। ঘোষিত ওই রোয়েদাদের দ্বাদশ অধ্যায়ে মন্ত্রিসভা কমিটির সুপারিশের নামে সাংবাদিকদের যেসব সুযোগ-সুবিধা ইতঃপূর্বে বিদ্যমান ছিল তা সঙ্কুচিত করা হয়। এতে সাংবাদিকদের বেতনের ওপর আরোপিত আয়কর মালিকদের পরিবর্তে সাংবাদিকদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হয়। দুই মাসের বেতনের সমপরিমাণ গ্র্যাচুইটির পরিবর্তে এক মাসের বেতনের সমপরিমাণ গ্র্যাচুইটি নির্ধারণ করা হয়। বলা হয় পর্যায়ক্রমে ওয়েজ বোর্ড রোয়েদাদ বাস্তবায়নের। পরস্পরবিরোধী সিদ্ধান্তের কারণে থমকে যায় নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড রোয়েদাদ বাস্তবায়ন। ফলে অর্থিকভাবে চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন সাংবাদিকরা। করোনা-পরবর্তী সময়ে এই সঙ্কট আরো ভয়াবহ আকার ধারণ করে।
বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ অবিলম্বে নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড রোয়েদাদ প্রজ্ঞাপন সংশোধন করে ইতঃপূর্বে প্রদত্ত সব সুযোগ-সুবিধা বহাল রেখে তা দ্রুত বাস্তবায়নের দাবি জানান। একই সাথে মুদ্রাস্ফীতি ও বর্তমান বাজারব্যবস্থার সাথে সঙ্গতি রেখে সাংবাদিকদের জন্য অন্তর্বর্তীকালীন মহার্ঘ্য ভাতা প্রণয়নের দাবি জানান। একই সাথে রেডিও-টেলিভিশনসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় কর্মরত সাংবাদিকদের জন্য বেতন কাঠামো নির্ধারণ করে তা দ্রুত বাস্তবায়নেরও দাবি জানান নেতৃবৃন্দ। বিজ্ঞপ্তি।


আরো সংবাদ


premium cement