০৪ ডিসেম্বর ২০২০

ঢাকা-১৮ আসনে ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি চলছে : আমীর খসরু

-

গণতন্ত্রহীন রাষ্ট্র এক কঠিন সময় পার করছে মন্তব্য করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, এই কঠিন অবস্থা থেকে বের হয়ে আসার জন্য জাতিকে লড়াই সংগ্রামে অবতীর্ণ হতে হবে। ঢাকা-১৮ আসনে ভোট ডাকাতির প্রস্তুতি চলছে। এরপর আর ভোট ডাকাতির কোনো সুযোগ দেয়া হবে না।
গতকাল সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি-এলডিপি আয়োজিত আলোচনা সভায় ভার্চুয়াল মাধ্যমে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এ কথা বলেন। এলডিপি সভাপতি আবদুল করিম আব্বাসীর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তৃতা করেন, এলডিপি মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম। বক্তব্য রাখেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহম্মদ রহমাতুল্লাহ, এলডিপির যুগ্ম মহাসচিব এম এ বাশার, মোড়ল আমজাদ হোসেন, চাষি এনামুল হক, নাগরিক মঞ্চের সভাপতি ইসমাইল তালুকদার খোকন, যুব নেতা সাইদ আহমেদ মিন্টু, বেলায়েত হোসেন প্রমুখ।
আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সরকারের অগণতান্ত্রিক আচরণের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের মানুষ সংগ্রামের জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। জাতির এই কঠিন দুঃসময়ে আন্দোলন ও লড়াই ছাড়া বিকল্প কোন পথ খোলা নাই। এই দুঃশাসন থেকে মুক্তি পেতে জাতির প্রত্যাশা পূরণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ আজকে দুঃশাসন থেকে মুক্ত হতে চাচ্ছে, দুর্নীতি থেকে মুক্ত হতে চাচ্ছে। দেশবাসীর মুক্তির সংগ্রাম চূড়ান্ত পর্যায়ে এসে পৌঁছেছে। এই অবস্থা সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। ভোট ডাকাতির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। ভোট ডাকাতদের রুখে দাঁড়াতে হবে।


আরো সংবাদ

সৌদি আরবে ইমাম হোসাইন মসজিদটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ (৯৯৮৫)অপশক্তি মোকাবেলা করে ইসলামের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে : মামুনুল হক (৮৯০১)ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন কোনোক্রমে মেনে নেয়া যায় না : সম্মিলিত ইসলামী দলসমূহ (৫৮৫৮)স্টেডিয়ামগুলোকে জেলে রূপান্তরের অনুমতি না দেয়ায় কেজরিওয়ালের ওপর ক্ষুব্ধ মোদি (৫৩৭৯)দেশের প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের নির্দেশ সেনাপ্রধানের (৪৪৮২)বাবার ডাকে বাড়ি ফিরে বড় ভাইয়ের হাতে খুন (৪১১৬)পাঠ্যসূচিতে থাকলেও গুরুত্ব হারাচ্ছে ইসলাম শিক্ষা (৩৯৮৪)মীমাংসিত বিষয় নিয়ে আপোষ করার কোনো সুযোগ নেই : ভাস্কর্য ইস্যুতে কাদের (৩৫৪৬)পরমাণু সক্ষমতা বাড়াতে ও পরিদর্শন বন্ধ করতে নতুন আইন পাস ইরানে (৩৪৩৪)রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি পায়নি সম্মিলিত ইসলামী দলগুলো (৩৪১০)