২৬ অক্টোবর ২০২০

হারিয়ে যাওয়া ২ মাদরাসা শিক্ষার্থী যেভাবে ঠিকানা ফিরে পেল

-

বেলা তখন ১১টার কিছু সময় বেশি হবে। চাঁদপুর শহরতলীর ওয়াপদা গেট এলাকার গ্যাসপাম্প সংলংগ্ন চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে দাঁড়িয়ে কাঁদছিল মাদরাসার পোশাক পরিহিত ৭-৮ বছেরের দুই শিশু। গত মঙ্গলবার দুই শিশুর কান্নার এমন দৃশ্য রাস্তার ওপার থেকে প্রত্যক্ষ করেন কে এম সাদ্দাম হোসাইন নামে স্থানীয় এক তরুণ। শিশুদের কাঁদো কাঁদো মুখ দেখে এই তরুণের বুকের ভেতরটা নাড়া দেয়ায় রাস্তা পার হয়ে দ্রুত শিশুদের কাছে পৌঁছে যান তিনি। শিশুদের কাছে গিয়ে কান্নার কারণ জানতে চাইলে তারা বলে, ‘বাড়িতে যামু, মায়ের কাছে যামু’। নাম জিজ্ঞাসা করলে জবাব দেয় সামি ও সাজিদ, তারা আপন দুই ভাই। শিশু দুটোর কথা শুনে তরুণ সাদ্দাম বুঝতে পারেন তারা পথ হারিয়ে ফেলেছেন। পরে তিনি শিশু দুটোকে পাশের দোকানে নিয়ে খাবার কিনে দিতে চান। কিন্তু শিশু দুটো কিছুই খাবে না বলতে থাকে এবং কান্না করতে থাকে। শিশুদের কাছে তাদের বাসা বা ঠিকানা জানতে না পেরে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে বিস্তারিত ঘটনা খুলে বলেন সাদ্দাম। সেখান থেকে শিশুদের দেখেশুনে রাখার পরামর্শ দিয়ে চাঁদপুর মডেল থানার এসআই সোহাগ মল্লিকের সাথে যোগাযোগ করিয়ে দেয় ৯৯৯ কর্তৃপক্ষ। পরে এসআই সোহাগ মল্লিক ফোর্সসহ ওই স্থানে এসে শিশুদের সাথে কথা বলেন।
সাদ্দাম বলেন, শিশুদের গায়ে মাদরাসার পোশাক দেখে অনুমান করে আমরা চাঁদপুর পৌরসভার ১৩নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ তরপুরচণ্ডী চাঁদপুর দারুস সুন্নাত দীনিয়া মাদরাসায় যাই। সেখানকার শিক্ষকরা নিশ্চিত করেন, দুই শিশু তাদের মাদরাসার নতুন ছাত্র। মাত্র একদিন আগে ভর্তি হয়েছে। শিশু দুটোকে স্থানীয় অভিভাবকদের কাছে তুলে দেয়ার পর স্বস্তি প্রকাশ করে সাদ্দাম বলেন, ‘মনে হলো বুকের ভেতর থেকে যেন ভারী একটি পাথর সরে গেল, দীর্ঘশ্বাস ছেড়ে শান্তির নিঃশ্বাস নিলাম।’
পরে মাদরাসা কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলে জানা যায়, ওই দুই শিশুর বাড়ি চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার তুলপাই এলাকায়। তাদের বাবার নাম হুয়ায়ুন সরকার ও মায়ের নাম বিউটি বেগম।

 


আরো সংবাদ