২৮ অক্টোবর ২০২০

গাজীপুরে ছিনতাইকালে পুলিশ কনস্টেবলসহ দুইজন আটক

-

ছিনতাইয়ে জড়িত থাকার অভিযোগে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের এক কনস্টেবলসহ দু’জনকে গতকাল শনিবার গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে জিএমপির বাসন থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।
গ্রেফতারকৃতরা হলোÑ টাঙ্গাইলের গোপালপুর থানার উড়িয়াবাড়ি এলাকার আনসার মণ্ডলের ছেলে আমিনুল ইসলাম (২৫) এবং জামালপুর সদরের ভাটিগজারিয়া আকন্দবাড়ি এলাকার মজিবুর রহমানের ছেলে ইমরুল হাসান (২৬)। তাদের মধ্যে ইমরুল হাসান কাশিমপুর কারা কমপ্লেক্স পুলিশ ক্যাম্পের কনস্টেবল বলে নিশ্চিত করেছেন ওই ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই শরিফুল ইসলাম।
বাসন থানার এসআই মোশারফ হোসেন মামলার উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, গত শুক্রবার রাত আড়াইটার দিকে দুই বন্ধুসহ রাজমিস্ত্রি শ্রমিক রেজাউল ইসলাম চান্দনা চৌরাস্তা থেকে হেঁটে কোনাবাড়ির পল্লীবিদ্যুৎ এলাকায় যাচ্ছিলেন। রাত ৩টার দিকে তারা ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বাইমাইল এলাকায় পৌঁছলে আমিনুল ও ইমরুল ওই তিনজনের পথরোধ করেন। আমিনুল নিজেকে ডিবি পুলিশ পরিচয় দিয়ে ভয়ভীতি দেখিয়ে তাদের কাছ থেকে টাকা ও মোবাইল ফোন কেড়ে নিতে চায়। রেজাউল দিতে অস্বীকার করলে তাদেরকে একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশায় উঠিয়ে ভোর রাত সাড়ে ৩টার দিকে বাসন থানাধীন আউটপাড়া এলাকায় নিয়ে আসে। সেখানে রেজাউলের কাছ থেকে মোবাইল ও দুই হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয় ওই দুইজন। এ সময় রেজাউল ও তার সঙ্গীরা তাদেরকে থানায় নিয়ে যেতে বললে আমিনুল অস্বীকৃতি জানায়। এতে তারা ছিনতাকারী বুঝতে পেরে রেজাউল ও তার সঙ্গীরা ডাক চিৎকার শুরু করলে আমিনুল ও ইমরুল পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। এ সময় এলাকাবাসীর সহায়তায় তাদের আটক করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে আটককৃতদের পুলিশের কাছে সোপর্দ করা হয়। এ সময় পুলিশ আমিনুলের কাছ থেকে ছিনতাইকৃত টাকা ও মোবাইল উদ্ধার করে।
বাসন থানার ওসি মো: রফিকুল ইসলাম জানান, ত্রাস সৃষ্টি করে ছিনতাইয়ের অভিযোগে রেজাউল ইসলাম বাদি হয়ে আটককৃতদের বিরুদ্ধে দ্রুত বিচার আইনে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। গ্রেফতারকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।


আরো সংবাদ