১২ আগস্ট ২০২০
দুই হাজার কোটি টাকা পাচার

বরকত-রুবেলের ২ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

-
24tkt

ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন বরকত ও তার ভাই ফরিদপুর প্রেস ক্লাবের অব্যাহতিপ্রাপ্ত সভাপতি ইমতিয়াজ হাসান রুবেলের বিরুদ্ধে মানিলন্ডারিং মামলায় দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। সোমবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম জুম অ্যাপসের মাধ্যমে শুনানি শেষে মানিলন্ডারিং মামলায় এই দুই ভাইয়ের দু’দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বরকত ও রুবেল বর্তমানে ফরিদপুর জেলা কারাগারে আটক রয়েছেন।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ফরিদপুরের জেল সুপার আব্দুর রহিম বলেন, সিআইডি সাজ্জাদ ও ইমতিয়াজের ১০ দিন করে রিমান্ড চান। আদালত রিমান্ড শুনানি শেষে দুই দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
দুই ভায়ের বিরুদ্ধে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) পরিদর্শক এস এম মিরাজ আল মাহমুদ বাদি হয়ে গত ২৬ জুন ঢাকার কাফরুল থানায় মানিলন্ডারিংয়ের অভিযোগ এনে মামলাটি দায়ের করেন। এ মামলায় ওই দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদ অবৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়। ২০১২ সালের মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন সংশোধনী ২০১৫ এর ৪(২) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়।
মামলার এজাহারে বলা হয়, ২০১০ সাল থেকে বর্তমান বছর পর্যন্ত ফরিদপুরের এলজিইডি, বিআরটিএ, সড়ক বিভাগসহ বিভিন্ন সরকারি বিভাগের ঠিকাদারি নিয়ন্ত্রণ করে বিপুল পরিমাণ অবৈধ সম্পদের মালিক হয়েছেন বরকত ও রুবেল। এ ছাড়া মাদক কারবার ও ভূমি দখল করে অবৈধ সম্পদ করেছেন। এসি-ননএসিসহ ২৩টি বাস, ট্রাক, বোল্ডার, পাজেরো গাড়ির মালিক হয়েছেন। এ টাকার উল্লেখযোগ্য অংশ হুন্ডির মাধ্যমে বিদেশে পাচার করেছেন।
এজাহারে আরো বলা হয়, প্রথম জীবনে এই দুই ভাই রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ে এক বিএনপি নেতার ফাই ফরমাস খাটতেন। তখন তাদের সম্পদ বলতে তেমন কিছু ছিল না। এজাহারে আরো বলা হয়, গত ১৮ জুন তিনি এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা নিযুক্ত হয়ে তদন্ত শুরু করেন। প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, এই দুই ভাই অন্তত দুই হাজার কোটি টাকা অবৈধ উপায়ে উপার্জন করেছেন।


আরো সংবাদ