০৮ আগস্ট ২০২০

মিরসরাই ট্র্যাজেডির ৯ম বর্ষপূর্তি আজ

-
24tkt

আজ ১১ জুলাই। মিরসরাই ট্র্যাজেডির ৯ম বর্ষপূর্তি। ২০১১ সালের এ দিনে উপজেলা সদর থেকে বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা দেখে ট্রাকে করে বাড়ি ফেরার পথে বড়তাকিয়া-আবুতোরাব সড়কে সৈদালী এলাকায় ট্রাক খাদে পড়ে নিহত হয় ৪৪ স্কুলছাত্র। চলমান মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে সীমিত পরিসরে নিহত ছাত্রদের স্মরণে আবুতোরাব উচ্চবিদ্যালয় প্রাঙ্গণে আজ দিবসটি পালন করা হবে। মায়ানী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কবির আহম্মদ নিজামী জানান, আজ সকালে কালোব্যাজ ধারণ, নিহত ছাত্রদের স্মরণে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ ‘আবেগ’ ও ‘অন্তিম’-এর স্থলে পুষ্পস্তবক অর্পণ, নিজ নিজ ধর্মীয় রীতিতে প্রার্থনা অনুষ্ঠানের মাধ্যমে দিবসটি পালনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এ দিকে গতকাল শুক্রবার ট্র্যাজেডিতে নিহত ছাত্রদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে স্বজনদের খোঁজখবর নেন মিরসরাই উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন। পরে তিনি নিহতদের স্মরণে স্মৃতিস্তম্ভ ‘আবেগ’-এর স্থলে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
মিরসরাই ট্র্যাজেডিতে আবুতোরাব উচ্চবিদ্যালয়ের ৩৪ জন, প্রাইমারি স্কুলের ৪ জন, আবুতোরাব ফাজিল মাদরাসার ২ জন, প্রফেসর কামালউদ্দিন চৌধুরী কলেজের ২ জন শিক্ষার্থী নিহত হন। এ ছাড়া একজন অভিভাবক ও দু’জন ফুটবলপ্রেমীও মারা যায়। এক অভিভাবক, ২ জন ফুটবলপ্রেমী যুবকসহ ৪৫ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে রচিত হয় মিরসরাই ট্র্যাজেডি। মিরসরাই ট্র্যাজেডিতে ওই সময় শোকার্ত পরিবারের সাথে দেখা করতে ছুটে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী খালেদা জিয়াসহ দেশ-বিদেশের বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার বিশিষ্টজনরা। মিরসরাই ট্র্যাজেডিতে সবচেয়ে বেশি শিক্ষার্থী নিহত হওয়া আবুতোরাব উচ্চবিদ্যালয়ের মূল ফটকে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিস্তম্ভ ‘আবেগ’ আর দুর্ঘটনাস্থলে নির্মাণ করা হয় স্মৃতিস্তম্ভ ‘অন্তিম’।
পরিবারের খোঁজ রাখে না কেউ!
এ দিকে শুধু ১১জুলাই এলেই জেগে ওঠেন, শোকসভা, আবেগ, অন্তিমে ফুলের শ্রদ্ধা নিবেদনে ভোজেই সীমাবদ্ধ থাকে। নিহতদের পরিবারের খোঁজ রাখে না কেউ! ১১ জুলাই এলেই ফুল দেয়া হয় স্তম্ভে এরপর ভুলে যান সবাই এমনটি বলছেন নিহত স্কুল শিক্ষার্থীদের স্বজনরা।
৮ বছর পেরিয়ে গেলেও ছেলে হারানো কিংবা আদরের চোট্ট ভাইটা হারানোর শোক ভুলতে পারছে না পরিবারগুলো। জুন ফেরিয়ে জুলাই এলেই পরিবারগুলোর হৃদয় কেঁদে ওঠে! আদরের শাকিব, নয়ন, উজ্জ্বল, টিটু, ইফতেখার, সাজু, কাজল, জুয়েল, মোবারকসহ নিহত শিক্ষার্থীদের পরিবারের আর্তনাদে ভারী হয়ে ওঠে মায়ানী, মঘাদিয়ার আকাশ-বাতাস।
নিহত ষষ্ঠ শ্রেণীর শিক্ষার্থী জাহেদুল ইসলামের বাবা মীর হোসেন জানান, ছেলে হারানোর শোক এখনো ধুঁকে ধুঁকে কাদায় পুরো পরিবারকে। পরিবারে সে ছিল বড় ছেলে। তিনি জানান, স্কুল কর্তৃপক্ষ কিংবা রাজনৈতিক ব্যক্তিরা জুলাই এলে ডেকে নিয়ে যায়। সভা-সমাবেশ করে দুপুরে খাওয়ার আয়োজনেই সীমাবদ্ধ থাকে। ওই দিন পার হলে আমাদের খবর রাখে না আর কেউ।
নিহত সপ্তম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শাখাওয়াত হোসেনের ভাই সোহরাব হোসেনের সাথে কথা হলে তিনি বলেন, জুলাই এলেই আমাদের ফোনে অথবা বাড়িতে দাওয়াত কার্ড দিয়ে যায়। শোকসভা শেষে অশ্রুজলে আমাদের বাড়ি ফিরতে হয়। জানতে চাইলে তিনি বলেন, জুলাইয়ের নির্দিষ্ট একটি দিন ছাড়া মনে হয় না কেউ বাড়ি এসে আমার মা-বাবাকে সান্ত্বনা দিতে কাউকে দেখা যায়নি। শাখাওয়াতের কথা মনে পড়লে মা ভেঙে পড়েন। ছেলে হারানোর শোক কোনোভাবেই সইতে পারছেন না তিনি। নিহত অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী উজ্জ্বল চন্দ্রনাথের ভাই মুন্না চন্দ্রনাথ বলেন, আমাদের সাথে কারো কোনো যোগাযোগ হয় না। কোনো কোনো দিন বাড়ি এসে মা বা বাবাকে এসে সান্ত্বনা দিতে দেখা যায়নি। তবে ১১ জুলাই এলে স্কুলে শোকসভায় দাওয়াত দেয়া হয়। জানতে চাইলে আবুতোরাব উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মর্জিনা আক্তার বলেন, ১১ জুলাইতে যারা মারা গেছে এদের পরিবারের আমাদের সব সময় যোগাযোগ থাকে। তবে ১১ জুলাই এলে বিশেষ আয়োজনে মনে করা হয়। অন্য সময় আমাদের যোগাযোগও থাকে। ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা থাকে। অভিভাবকরাও স্কুলে আসেন। সব সময় আমাদের স্মরণে থাকে। তিনি আরো বলেন, যেহেতু করোনাভাইরাসের মহামারীর কারণে সরকারিভাবে সভা-সমাবেশ নিষেধ আছে সে হিসেবে আমরা এবার কোনো অনুষ্ঠানের আয়োজন করছি না। সীমিত আকারে কুরআনখানি নিহতদের স্মরণে দোয়া এবং হিন্দু শিক্ষার্থীদের জন্য মন্দিরে প্রার্থনা করা হবে এবং প্রত্যেক নিহত শিক্ষার্থীর পরিবারে শোকবার্তা পৌঁছে দেয়া হবে।
সে দিন যা ঘটেছিল : উপজেলা সদরস্থ স্টেডিয়াম মাঠে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গবন্ধু বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা ফুটবল টুর্নামেন্টের খেলা শেষে বিজয় উল্লাস বাড়ি ফেরার পথে চালকের অসতর্কতায় ঘটে যায় এ দুর্ঘটনা। এতে প্রাণ হারায় আবুতোরাব উচ্চবিদ্যালয়, প্রফেসর কামাল উদ্দিন চৌধুরী কলেজ, আবুতোরাব ফাজিল মাদরাসা ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৩ জন শিক্ষার্থী। এতে নিহত হন দু’জন অভিভাবকও।


আরো সংবাদ

প্রদীপের অপকর্ম জেনে যাওয়ায় জীবন দিতে হয়েছে সিনহাকে? (২৯৬২৮)মেজর সিনহা হত্যা : ওসি প্রদীপ, ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলীসহ ৭ পুলিশ বরখাস্ত (৮২৪৭)পাকিস্তানের বোলিং তোপে লন্ডভন্ড ইংল্যান্ড (৬৬৩৩)জাহাজ ভর্তি ভয়াবহ বিস্ফোরক বৈরুতে পৌঁছল যেভাবে (৬২৩৭)আয়া সোফিয়ায় জুমার নমাজ শেষে যা বললেন এরদোগান (৫৯২২)অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে কড়া বিবৃতি পাকিস্তানের, যা বলছে ভারত (৫৬৪৪)নতুন রাজনৈতিক দলের ঘোষণা দিলেন মাহাথির (৫৫৬১)সাগরের ইলিশে সয়লাব খুলনার বাজার (৫০৩২)কানাডায়ও ঘাতক বাহিনী পাঠিয়েছিলেন মোহাম্মাদ বিন সালমান! (৫০২২)এসএসসির স্কোরের ভিত্তিতে কলেজে ভর্তি হবে শিক্ষার্থীরা (৪৯৭৩)