০৭ জুলাই ২০২০

ফেরত গেল ভারতে গণপিটুনিতে নিহত বাংলাদেশীর লাশ

-

ভারতে গরু চুরির অভিযোগে স্থানীয়দের গণপিটুনিতে নিহত হয় মৌলভীবাজারের রনজিৎ রিকমন। তিন দিন পর গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে বাংলাদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিবির কাছে হস্তান্তর করতে শেওলা স্থলবন্দরের নো ম্যান্স ল্যান্ড নিয়ে আসে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী-বর্ডার সিকিউরিটি ফোর্স (বিএসএফ)। কিন্তু দুই দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর শীর্যপর্যায়ের দায়িত্বশীলদের সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্নের পর করোনা পরীক্ষা সনদ না থাকায় ওই যুবকের লাশ গ্রহণ করেনি বিজিবি। কোভিড-১৯ পরীক্ষার রিপোর্ট আসার দিন দুয়েক পর লাশ হস্তান্তর হওয়ার সিদ্ধান্ত হলে শেওলা স্থলবন্দরের নো ম্যান্স ল্যান্ড থেকে লাশটি ফেরত নিয়ে যায় বিএসএফ। নিহত যুবক মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার বাসিন্দা রসিক লাল রিকমনের ছেলে রনজিৎ রিকমন।
এ সময় ৫২ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল গাজী শহিদুল্লাহসহ রাজস্ব ও ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা এবং পুলিশের দায়িত্বশীলরা উপস্থিত ছিলেন। দুপুর থেকে লাশটি নিতে শেওলা স্থলবন্দরে ছুটে আসেন নিহত যুবকের স্বজনরা। নিহত রনজিৎ রিকমন গত মঙ্গলবার বাড়িতে কোনো কিছু না জানিয়ে গোপনে ভারতের আসাম সীমান্ত পাড়ি দেয়। সেখানে গরুচোর চক্রের সাথে তার সম্পৃক্ততার অভিযোগে স্থানীয়রা গণপিটুনি দিলে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়। নিহত বাংলাদেশী যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ আসামের পুতনি চা বাগানে গরু চুরির চেষ্টাকালে স্থানীয়রা তাকে আটক করে। এ সময় তার সহযোগীরা পালিয়ে যায়।
নিহত রনজিৎ রিকমনের বিষয়ে বিএসএফের দেয়া তথ্যে বিজিবি তাকে শনাক্ত করার পরই লাশটি দেশে আনতে সম্মতি জানিয়েছিল।


আরো সংবাদ