০৭ জুলাই ২০২০
একরাম হত্যার ৬ বছর

পেপারবুক তৈরি না হওয়ায় ঝুলে আছে আপিল শুনানি

-

ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যার ৬ বছর কেটে গেল। ২০১৪ সালের এ দিনে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে, গুলি করে ও গাড়িতে আগুন ধরিয়ে নৃশংসভাবে একরামকে হত্যা করে নিজ দলীয় ক্যাডাররা।
পৈশাচিক এ হত্যার ঘটনায় নিম্ন আদালতে ৩৯ আসামির ফাঁসির আদেশ হলেও পেপারবুক তৈরি না হওয়ায় ঝুলে আছে আপিল শুনানি। এ ছাড়া রায় ঘোষণার আগ থেকেই পলাতক রয়েছেন ১৭ আসামি। এ দিকে নিম্ন আদালতে রায় ঘোষণার কয়েক দিন পর উচ্চ আদালতে আপিল করে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা। তাদেরকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার ও কুমিল্লøা সেন্ট্রাল কারাগারে রাখা হয়েছে। ফেনী জেলা দায়রা জজ আদালতের পিপি হাফেজ আহম্মদ নয়া দিগন্তকে জানান, একরাম হত্যা মামলা হাইকোর্টে শুনানির অপেক্ষায় রয়েছে। পেপারবুক তৈরি না হওয়ায় কার্যতালিকায় আসছে না।
২০১৪ সালের ২০ মে ফেনী শহরের একাডেমি এলাকায় প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে, গুলি করে ও গাড়িতে আগুন ধরিয়ে নৃশংসভাবে একরামকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় তার ভাই জসিম উদ্দিন বাদি হয়ে ফেনী জেলা তাঁতীদলের সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনারের নাম উল্লেøখ করে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলাটি দীর্ঘ বিচারকাজ শেষে ২০১৮ সালের ১৩ মার্চ ফেনীর দায়রা জজ আদালতের বিচারক আমিনুল হক রায় ঘোষণা করেন। রায়ে দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৩৯ আসামিকে ফাঁসির আদেশ দেয়া হয়।

 


আরো সংবাদ