০৭ এপ্রিল ২০২০

খালেদা জিয়ার সাথে স্বজনদের সাক্ষাৎ

-

আগামীকাল রোববার উচ্চ আদালতে জামিন শুনানির আগেই বিএনপির চেয়ারপারসন কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করেছেন তার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দারসহ পাঁচজন স্বজন। গতকাল শুক্রবার বেলা ৩টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালের কেবিন ব্লকে চিকিৎসাধীন খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাতের জন্য তারা প্রবেশ করেন। সোয়া এক ঘণ্টা সাক্ষাৎ শেষে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ে স্বজনদের কেউ সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেননি। শামীম ছাড়া স্বজনদের অন্যরা হলেন তার স্ত্রী কানিজ ফাতেমা ও ছেলে অভিক ইস্কান্দার, ভাই মরহুম সাইদ ইস্কান্দারের ছেলে শাফিন ইস্কান্দার এবং সেজ বোন সেলিমা ইসলামের ছেলে শাহরিয়া হক।
পুরনো ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে গত বছরের ১ এপ্রিল খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউতে ভর্তি করা হয়। ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি দুর্নীতির মামলায় আদালত সাজা দিলে সেদিনই কারাবন্দী হন খালেদা জিয়া। সেই থেকে দুই বছরের বেশি সময় ধরে কারাবন্দী তিনি। তার মুক্তির দাবিতে বিভিন্ন শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালন করে আসছে বিএনপিসহ বিভিন্ন অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন। সর্বশেষ গত ১১ ফেব্রুয়ারি সেজ বোন সেলিমা ইসলামসহ পাঁচজন স্বজন খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন। সাক্ষাতের পর সেলিমা ইসলাম তার বোনের গুরুতর অসুস্থতার কথা সাংবাদিকদের জানিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য মানবিক কারণে তাকে মুক্তি দিতে সরকারের প্রতি দাবি জানান। এরপর গত বুধবার খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা বিদেশে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়ার জামিন চেয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কে এম জহিরুল হকের বেঞ্চে আবেদন করেন, সেই বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে আগামীকাল রোববার।

 

 


আরো সংবাদ

দীর্ঘদিন জেলখাটা আসামিদের মুক্তির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর (২৭৯১৩)করোনা ছড়ানোয় চীনকে যে ভয়ঙ্কর শাস্তি দেয়ার দাবি উঠল জাতিসংঘে (১৭৬৭৩)গাদ্দাফিকে উৎখাতকারী জিবরিলের করোনায় মৃত্যু (১৫৭৯০)রমজান মাসে অফিসের সময়সূচি নির্ধারণ (১৪৩১৪)উকুন মারার ওষুধে ৪৮ ঘণ্টায় খতম করোনা (১৩৯১৮)করোনায় মৃতদের জানাজা-দাফনে প্রস্তুত এক ঝাঁক আলেম (১২৯১২)এবার করোনায় আক্রান্ত বাঘ (১০৬৬১)৩ ঘণ্টার রাস্তা পাড়ি দিয়েছেন ২ দিন, খরচ হয়েছে ৪ হাজার টাকা! (১০৫১৮)'মেয়েকে কোলেও নিতে পারছি না!' দূর থেকে ভেজা চোখে তাকিয়ে পুলিশ অফিসার (১০০৭২)করোনার চিকিৎসায় তুরস্কের অভূতপূর্ব পদক্ষেপ, পাল্টে যাচ্ছে চিকিৎসা পদ্ধতি (৯৭০৬)