০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ১০ রজব ১৪৪৪
ads
`

খেলায় হারলেও ইসলাম পেয়ে বিজয়ী হলাম : ব্রাজিলীয় খেলোয়াড়

খেলায় হারলেও ইসলাম পেয়ে বিজয়ী হলাম : ব্রাজিলীয় খেলোয়াড় - ছবি : সংগৃহীত

ইসলাম গ্রহণ করেছেন ব্রাজিলীয় মুই থাইয়ের তারকা খেলোয়াড় তাজ রুইদা। এরপর তিনি বলেন, ‘খেলায় হারলেও ইসলাম পেয়ে বিজয়ী হয়েছি।’

স্থানীয় সময় গত বৃহস্পতিবার ফিলিস্তিনে অবস্থিত মুসলিমদের দ্বিতীয় পবিত্রতম ইবাদতস্থল মসজিদুল আকসায় আনুষ্ঠানিকভাবে ইসলামে প্রবেশ করেন তিনি।

বুধবার আলজাজিরা মুবাশির তাজ রুইদাকে নিয়ে একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তাতে একটি ভিডিওতে দেখা যায়, ব্রাজিলীয় এই খেলোয়াড় মসজিদুল আকসার কিবালি অংশে বসে আছেন। মাথায় পরেছেন সাদার মাঝে কালো ডোরাকাটা ফিলিস্তিনের ঐতিহ্যাবাহী পোশাক কেফিয়্যাহ।

ওই ভিডিওতে আরো দেখা যায়, তাজ রুইদা আলআকসায় নামাজের সুরতে বসে আছেন। তার পাশে কিকবক্সিংয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিনি খোলোয়াড় জাইদান ইবরাহিম। ইবরাহিমই তাকে কালিমা পড়িয়ে ইসলামের দীক্ষা দেন।

ইসলাম গ্রহণের পর নিজের অনুভূতি জানিয়ে তাজ রুইদা বলেন, হয়ত কখনো কখনো খেলায় হেরে গেছি কিন্তু ইসলাম গ্রহণ করে চূড়ান্ত বিজয়ী হলাম।’

এর আগে তাজ রুইদার পরিচয় বর্ণনা করতে গিয়ে জাইদান ইবরাহিম জানান, তাজ মুই থাইয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন। চলতি বছরেও জর্ডানে একটি বিশ্ব প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিলেন তিনি কিন্তু সাফল্য পাননি। তারপর তিনি ফিলিস্তিনের রাজধানী আলকুদসে (জেরুসালেম) আসেন এবং ইসলাম গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন।

জাইদান ইবরাহিম বলেন, ‘তিনি ইসলামের দ্বিতীয় পবিত্রতম স্থান মসজিদুল আকসায় ইসলাম গ্রহণ করলেন। তিনি সৌভাগ্যবান যে জীবনের প্রথম অজু ও নামাজ আলআকসায় সম্পন্ন করলেন।’

ইসলাম গ্রহণের পর তাজ রুয়াইদাকে অভিনন্দন জানান ফিলিস্তিনি বক্সার। তাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ভাই তোমাকে অসংখ্য অভিনন্দন। আর সত্যিই এটিই তোমার আসল বিজয়। আল্লাহ তোমাকে ইলম ও প্রজ্ঞা দান করুন, তোমার ধৈর্য ও ঈমান মজবুত করুন এবং দুনিয়া ও আখেরাতে তোমার প্রতি সহনশীল হোন।’ আমিন।

মুই থাই কোন ধরনের খেলা?
মুই থাই থাইল্যান্ডের যুদ্ধ বিষয়ক একটি খেলা, যেটা অন্যান্য ইন্দো- চাইনীজ কিকবক্সিংয়ের মতো। যেমন- কম্বোডিয়ার প্রাদাল সেরেয়, মালয়শিয়ার তময়, বার্মার লেথুই এবং লাওসের মুই লাও।

মুই বোরান থেকে উদ্ভূত, মুই থাই থাইল্যান্ডের জাতীয় খেলা। মুই সংস্কৃত মভ্য থেকে এসেছে, যার অর্থ এক সাথে বাঁধা। মুই থাইকে ‘আটটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গের কৌশল’ অথবা ‘আটটি অঙ্গ প্রত্যঙ্গের বিজ্ঞান’ বলা হয়।

মুই থাই অনুশীলনকারীকে বলা হয়- নাক মুই। পশ্চিমা অনুশীলনকারীদেরকে মাঝেমধ্যে বলা হয়- নাক মুই ফারাং, যার অর্থ বিদেশী বক্সার। (উইকিপিডিয়া)

সূত্র : আলজাজিরা মুবাশির


আরো সংবাদ


premium cement