২৬ নভেম্বর ২০২২, ১১ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

বিশ্ব রেকর্ড গড়তে সাঁতার শুরু করেছেন ৭০ বছরের ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র


বিশ্ব রেকর্ড গড়তে সিলেট থেকে ২৮৫ কিলোমিটার সাঁতার শুরু করেছেন ৭০ বছর বয়সী বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য। সোমবার সকাল ৭টায় নগরীর সুরমা কিনব্রিজ পয়েন্ট সংলগ্ন চাঁদনিঘাট থেকে সাঁতার শুরু করেছেন একুশে পদকপ্রাপ্ত ৭০ বছর বয়সী এই মুক্তিযোদ্ধা।

এই যাত্রায় তিনি সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জ- এই চার জেলা আংশিক বা সম্পূর্ণ অতিক্রম করবেন।

২৮৫ কিলোমিটার সাঁতরে কিশোরগঞ্জের ভৈরব ফেরিঘাটে পৌঁছাতে তার প্রায় ৭০ ঘণ্টা সময় লাগতে পারে বলে ধারণা করছেন এই মুক্তিযোদ্ধা।

সিলেট জেলা নৌপুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার হুমায়ুন কবির আহমদ জানান, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, নৌ-পুলিশসহ সিভিল সার্জনের একাধিক টিম তার সঙ্গে আছে। পানিতে অবস্থানকালীন সময়ে তার যাতে স্বাস্থ্যগত কোনো সমস্যা না হয়, বা হলেও যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া যায়, সে ব্যাপারে সবাই সর্বোচ্চ সতর্কতায় কাজ করবে।

ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য বলেন, যেহেতু সিলেটে তিনি অবিরাম সাঁতারে দক্ষতা অর্জন করেছেন সেহেতেু এখান থেকে নতুন বিশ্বরেকর্ড গড়ে চান। তবে এখন পানি কম থাকায় এ অভিযানে খানিকটা অসুবিধা হবে।

তিনি বলেন, আমি একজন অবসরপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তা। ২০১২ সালের মে মাসে অবসর গ্রহণ করলেও এখনো কনসালট্যান্ট হিসেবে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের অধিনে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগে কাজ করছি। ছাত্রজীবন থেকে সাঁতার আমার নেশা। আমি একজন অবিরাম শৌখিন সাঁতারু।

তিনি আরো বলেন, ২৮৫ কিলোমিটার সাঁতারে সফল হলে বয়স্ক সাঁতারু হিসেবে এটা একটা বিশ্ব রেকর্ড হবে। এটা বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত সম্মানজনক একটা ব্যাপার হবে।

ক্ষিতীন্দ্র ১৯৫২ সালের ২৩ মে নেত্রকোণার মদন উপজেলার জাহাঙ্গীরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি সিলেটের এমসি কলেজ থেকে পদার্থবিদ্যায় স্নাতক এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একই বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন। ছাত্রজীবন থেকে তিনি অবিরাম সাঁতারু। একাধিক জাতীয় রেকর্ডের পর অবিরাম সাঁতারু হিসেবে বিশ্ব রেকর্ডও করেছিলেন। তবে তার সেই রেকর্ড ভেঙে দেন একজন মার্কিন সাঁতারু। এখন আবার প্রায় ৭০ বছর বয়সে নতুন বিশ্বরেকর্ড গড়তে সাঁতারে নেমেছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য।

গত শনিবার দুপুরে নগরের মেন্দিবাগস্থ জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে সংবাদ সম্মেলনে ক্ষিতীন্দ্র চন্দ্র বৈশ্য বলেন, ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে একটানা ৯৩ ঘণ্টা ১১ মিনিট এবং ১৯৭৬ সালে ১০৮ ঘণ্টা পাঁচ মিনিট অবিরাম সাঁতার কেটে জাতীয় রেকর্ড সৃষ্টি করি। ২০১৮ সালে ১৮৫ কিলোমিটর দূরপাল্লার সাঁতার কাটি, যা ছিল আরেকটি স্থানীয় রেকর্ড। ১৯৭৪ সালের সেই রেকর্ডের জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাকে রূপার নৌকা দিয়ে সম্মানিত করেন। মহান মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য ২০১৯ সালে একুশে পদক লাভ করেন।

তিনি বলেন, ১৯৭০ সাল থেকেই আমি দূরপাল্লার বা অবিরাম সাঁতারের সাথে জড়িত। সেবার নিজের থানা নেত্রকোণার মদনে টানা ১৫ ঘণ্টা সাঁতার কেটেছিলাম। তারপর একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে দেশকে স্বাধীন করতে যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ি। ১৯৭৩ সালে সিলেটের এমসি কলেজের পুকুরে টানা ৮২ ঘণ্টা সাঁতার কেটেছিলাম।

এছাড়াও সিলেট নগরীর রামকৃষ্ণ মিশন পুকুর, ধোপাদিঘীতে, সুনামগঞ্জ এবং ছাতকেও দীর্ঘসময় অবিরাম সাঁতার কেটেছেন বলেও জানান তিনি।

সূত্র : ইউএনবি


আরো সংবাদ


premium cement
বিশ্বকাপে ‘টবি’র ভবিষ্যদ্বাণী সত্য হচ্ছে দেশের সবচেয়ে শক্তিশালী ব্যাংকের স্বীকৃতি পেল ইসলামী ব্যাংক দেশের সার্বিক অগ্রগতির জন্য কাজ করছে সরকার : প্রধানমন্ত্রী ইরান 'অনুপ্রবেশ' ঠেকাতে সীমান্ত নিরাপত্তা জোরদার করছে গফরগাঁওয়ে সড়ক দুর্ঘটনায় জেলে নিহত, আহত ২ বিশ্ব শান্তির জন্য উত্তর কোরিয়ার সাথে কাজ করতে আগ্রহী চীন নদী দখল ও পরিবেশ দূষণের বিরুদ্ধে সাভারে গণ-জমায়েত রাশিয়ার হামলার পর বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করার চেষ্টা ইউক্রেনের ইউক্রেনে যত দিন দরকার সাহায্য করবে ন্যাটো দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা তেঁতুলিয়ায় কুমিল্লায় বিএনপির সমাবেশস্থলে প্রায় বন্ধ মোবাইল ইন্টারনেট

সকল