১২ আগস্ট ২০২২
`

পরিবর্তিত ব্যক্তিরা এ বছর টাকা সমন্বয় করে হজে যেতে পারবেন না

আশকোনা হজ ক্যাম্প - ফাইল ছবি

ঢাকার আশকোনায় হজক্যাম্পে এসে কাঁদছেন শেরপুরের আসাদুল। তার বাবা ফিরোজ মিয়া সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে টাকা জমা দিয়েছিলেন অনেক আগেই। কিন্তু সৌদি সরকারের বয়স সংক্রান্ত নতুন নির্দেশনায় এবার তার বয়স ৬৫ বছরের বেশি হওয়ায় এ বছর হজে যেতে পারছে না ফিরোজ মিয়া। কিন্তু তার পরিবর্তে পরিবারের বড় সন্তান আসাদুল অনেক স্বপ্ন নিয়ে বাবার নেক মনোভাসনা পূরণ করতে আশায় ছিলেন বাবার পরিবর্তে নিজেই এ বছর হজে যাবেন। কিন্তু বাংলাদেশ সরকারের হজ প্রতিপালন বিষয়ক একটি চিঠিতে সেই আশা ধুলায় মিশে গেছে।

বুধবার (১৮ মে) ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের হজ-১ শাখা থেকে উপসচিব আবুল কাশেম মুহাম্মদ শাহীন স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে জানানো হয়েছে, সরকারি ব্যবস্থাপনায় ২০২২ সালে হজে যেতে ইচ্ছুক ও নিবন্ধনকৃত ব্যক্তিদের মধ্যে যে বা যারা ইতোমধ্যে মারা গেছেন কিংবা অসুস্থ অথবা যাদের বয়স (সৌদি সরকারের নির্দেশনা মতো) ৬৫ বছরের বেশি সেই সকল ব্যক্তির পরিবারের অন্য কেউ ইতোপূর্বে সরকারি ফান্ডে জমাকৃত টাকা রিপ্লেস বা সমন্বয় করে এ বছর হজে যেতে পারবেন না। তাদেরকে নতুন করে প্যাকেজের পুরো টাকা জমা দিয়েই হজে যেতে হবে। অর্থাৎ পরিবারের একজনের টাকা জমা থাকার পরেও অন্য কেউ ওই টাকা হজের জন্য ব্যবহার করতে পারছেন না। তবে যথানিয়মে অনলাইনে আবেদন করে পরবর্তী সময়ে ওই জমাকৃত টাকা উত্তোলন করতে পারবেন।

এদিকে সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে ইতোমধ্যে যারা প্যাকেজের সমুদয় টাকা জমা দিয়েছেন কিন্তু মৃত্যু, অসুস্থতা কিংবা বয়সের বিধি-নিষেধের কারণে এ বছর হজে যেতে পারছেন না এমন ব্যক্তিদের সংখ্যাও নেহায়েত কম নয়। প্রাথমিক হিসাবে এই সংখ্যা দাঁড়াবে ৫০০ থেকে ৬০০ জনের মতো। আর এ বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাচ্ছেন মোট ৪ হাজার জন। আর সরকারি ও বেসরকারি মিলে বাংলাদেশ থেকে চলতি বছরে হজে যাবেন ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন।

বুধবার দুপুরে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (হজ) মতিউল ইসলাম নয়া দিগন্তের এই প্রতিবেদককে জানান, সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ প্যাকেজের জমাকৃত একজনের অর্থ অন্যজনের নামে সমন্বয়ের সুযোগ না থাকলেও ওই অর্থ উত্তোলনের সুযোগ রয়েছে। প্রয়োজনে জমাকৃত টাকা তুলে নিয়ে পুনঃ নিবন্ধন ও অর্থ জমা দিয়েই পরিবারের অন্যজনের হজে যাওয়ার সুযোগ থাকবে। এক্ষেত্রে নির্ধারিত পন্থায় আবেদন করে ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা তুলে নিয়ে সেই টাকা পুনরায় জমা দিয়ে এ বছরই হজে যাওয়ারও সুযোগ থাকবে। তবে আমরা এ বিষয়টি আরো কিভাবে সহজ করা যায় সে বিষয়েও চিন্তা করছি। আশা করছি আরো সহজ কোনো পন্থা বের করা সম্ভব হবে।

গত কয়েক দিন থেকেই আশকোনায় হজ ক্যাম্পে আসছেন সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যেতে ইচ্ছুক এমন অনেক পরিবারের লোকজন। তারা সরকারি প্যাকেজের পুরো টাকা জমাও দিয়েছেন। কিন্তু মৃত্যু, অসুস্থ কিংবা বয়সের বিধিনিষেধের কারণে অনেকেই এ বছর হজে যেতে পারছেন না। তাদের অনেকের পরিবারের লোকজন রিপ্লেসমেন্ট বা প্রতিস্থাপনের মাধ্যমে বিকল্প হিসেবে পরিবারেরই অন্য কাউকে এ বছর হজে পাঠাতে চাইছেন। অনেকের পরিবারের প্রস্তুতিও ঠিক সেভাবেই চলছিল। কিন্তু বুধবার দুপুরে সরকারের নতুন জারি করা পত্রের কারণে অনেকের পরিবারেই এখন হজে যাওয়ার আশাও ক্ষীণ হয়ে আসছে।


আরো সংবাদ


premium cement