২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`

হুমায়ূন আহমেদ বাংলাদেশের সম্পদ : শাওন


জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক ও লেখক হুমায়ূন আহমেদের ৭৩তম জন্মদিন পালন করেছেন তার পরিবারের সদস্য ও ভক্তরা। এ সময় তারা কবরে ফুল দিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা নিবেদন করেন।

দিবসটি উপলক্ষে গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালী গ্রামে হুমায়ূন আহমেদের হতে গড়া নুহাশপল্লীতে নানা আয়োজন করা হয়।

শনিবার সকাল থেকেই হুমায়ূন আহমেদের ভক্তরা তার কবরে শ্রদ্ধা জানাতে নুহাশপল্লীতে ভিড় জমান।

নুহাশপল্লীর ব্যবস্থাপক মো: সাইফুল ইসলাম বুলবুল জানান, শুক্রবার রাত ১২টা ১মিনিটে গাজীপুর সদর উপজেলার পিরুজালী গ্রামে হুমায়ূন আহমেদের হতে গড়া নুহাশপল্লীতে এক হাজার ৭৩টি মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করেন নুহাশ পল্লীর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।

ভোর রাত সাড়ে চারটার দিকে ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে নুহাশপল্লীতে আসেন হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। পরে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি দুই ছেলেকে নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের কবর জিয়ারত করেন। এ সময় তারা কবরের পাশে দাঁড়িয়ে ফাতেহা পাঠ ও মোনাজাত করেন। এছাড়া কবরে ফুল দিয়ে তার প্রতি শ্রদ্ধা জানান তারা।

মরহুম লেখকের কবর জিয়ারত শেষে নুহাশপল্লীতে হোয়াইট হাউসের পাশে স্থাপিত হুমায়ূন আহমেদের ম্যূরালের সামনে আপেল গাছ তলায় দুই ছেলে নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের ৭৩তম জন্মদিনের কেক কাটেন মেহের আফরোজ শাওন। জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিকের জন্মদিন উপলক্ষে এ সময় শতাধিক হুমায়ূনভক্ত, গণমাধ্যমকর্মী ও নুহাশপল্লীর কর্মচারীরাসহ এলাকার লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

কেক কাটা শেষে মেহের আফরোজ শাওন সাংবাদিকদের বলেন, যারা হুমায়ূন আহমেদকে ভালোবাসেন, তাদের অনেকেই তাকে নিয়ে কাজ করতে চান। তবে একটা অনুরোধ করছি, তাকে নিয়ে যা ইচ্ছে তা কেউ করবেন না।

তিনি বলেন, লেখক হুমায়ূন আহমেদ বাংলাদেশের সম্পদ। হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে অনেকেই গবেষণা করছেন। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে তার সাহিত্য নিয়ে পিএইচডি হচ্ছে। অনেকেই চর্চা করছেন। দেশের সম্পদ হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে ভালোভাবে চর্চা হোক, সেই চর্চাটা বাড়ুক। ছাত্ররা হুমায়ূন আহমেদ সম্পর্কে জানুক। সবাই জানুক। কোন ভুল চর্চা না হোক - এটা আমার একটা বড় প্রত্যাশা।

তিনি বলেন, হুমায়ূন আহমেদের সৃষ্টিকর্ম নিয়ে যেনতেনভাবে কাজ করার চেষ্টা বা তাকে নিয়ে হঠাৎ করে একটা সিনেমা বানিয়ে ফেলা, একটা বই লিখে ফেলা বিষয়টি নিয়ে আমার খুব খারাপ লেগেছে।

এদিকে সকাল থেকেই হুমায়ূন আহমেদের ভক্তদের সংগঠন ‘হিমু পরিবহনের’ সদস্যদের গাজীপুরের নুহাশপল্লীতে ভিড় জমাতে দেখা গেছে। তারা প্রিয় কথাসাহিত্যিক ও লেখক হুমায়ূন আহমেদের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান এবং ঘুরে ঘুরে নুহাশপল্লী দেখেন। দিবসটি উপলক্ষে নুহাশ পল্লীতে এদিন প্রবেশ ফি ফ্রি করা হয়েছিল।

‘হিমু পরিবহন’-এর সমন্বয়ক মুহাম্মদ লিংকন বলেন, হুমায়ুন স্যারকে না দেখার আক্ষেপটা আমৃত্যু রয়ে যাবে। স্যারের জন্মদিন উপলক্ষে সকালে একদল ‘হিমু পরিবহন’ তাদের প্রিয় লেখকের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। যাত্রাপথে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্যান্সার সচেতনমূলক লিফলেট বিতরণ করেন তারা।

বিকেলে গাজীপুর শহরের রাজবাড়ী মাঠ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদেরকে নিয়ে কেক কাটবেন তারা এবং সন্ধ্যায় হুমায়ূন আহমেদের জীবনী ও কর্মের ওপর আলোচনানুষ্ঠান হবে।

উল্লেখ্য, সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার কেন্দুয়া থানার কুতুবপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। দুরারোগ্য ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে ২০১২ সালের ১৯ জুলাই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। পরে গাজীপুরের নুহাশপল্লীতে তাকে সমাহিত করা হয়।

ক্যাপশনঃ গাজীপুরের নুহাশ পল্লীতে প্রয়াত সাহিতিক হুমায়ুন আহমেদের জন্মদিন পালন।


আরো সংবাদ


premium cement