০৪ ডিসেম্বর ২০২০
জনস্বাস্থ্য রক্ষায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন জরুরি

তামাকের কারণে দেশের ক্ষতি ৩০ হাজার কোটি টাকা

তামাকের কারণে দেশের ক্ষতি ৩০ হাজার কোটি টাকা - ছবি - সংগৃহীত

বাংলাদেশে প্রতিবছর তামাকজনিত বিভিন্ন রোগে এক লাখ ২৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়। পাশাপাশি এসব অসংক্রামক রোগের চিকিৎসা ব্যয় ও অন্যান্য কারণে দেশের ক্ষতি হয় ৩০ হাজার কোটি টাকার বেশি। এসব রোগের অন্যতম প্রধান ঝুঁকি তামাকের ব্যবহার হ্রাস করার মাধ্যমে এই অকালমৃত্যু ও আর্থিক ক্ষতি প্রতিরোধ করা সম্ভব বলে ‘জনস্বাস্থ্য রক্ষায় গণমাধ্যমের ভূমিকা : তামাক নিয়ন্ত্রণ পরিপ্রেক্ষিত’ শীর্ষক গণমাধ্যমকর্মীদের সাথে আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর ফারস হোটেলে আয়োজিত ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডসের সহযোগিতায় ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশ এ আলোচনা সভাটির আয়োজন করে।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, বাংলাদেশে ক্রমবর্ধমান অসংক্রামক রোগের অন্যতম কারণ তামাক ব্যবহার আর তামাকের ঝুঁকি প্রতিরোধের অন্যতম উপায় তামাকের ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ। এ কারণে তামাক নিয়ন্ত্রণকে জোরদার করতে বিদ্যমান তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করা দরকার বলে তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।

সভায় প্রধান আলোচক ছিলেন হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের রোগতত্ত্ব ও গবেষণা বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সোহেল রেজা চৌধুরী। তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের প্রয়োজনীতা তুলে ধরেন জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের সাবেক সমন্বয়কারী এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব মো: রুহুল কুদ্দুস। সভায় আরো বক্তব্য দেন একাত্তর টিভির যুগ্ম প্রধান বার্তা সম্পাদক মনির হোসেন লিটন, বাংলাদেশ পোস্টের বিশেষ প্রতিবেদক নুরুল ইসলাম হাসিব, যমুনা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি সুশান্ত সিনহা, দৈনিক নয়া দিগন্তের সিনিয়র রিপোর্টার হামিম-উল-কবির, ক্যাম্পেইন ফর টোব্যাকো ফ্রি কিডসের গ্র্যান্টস ম্যানেজার আব্দুস সালাম প্রমুখ।

অধ্যাপক সোহেল রেজা চৌধুরী বলেন, জনস্বাস্থ্য ও অর্থনীতির ওপর তামাকের ক্ষতিকর প্রভাবের কথা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বর্তমানে বাংলাদেশে মোট মৃত্যুর ৬৭ ভাগের জন্য দায়ী হৃদরোগ, ক্যান্সারের মতো অসংক্রামক রোগ। আর এসব মৃত্যুর ২২ ভাগই অকালমৃত্যু। অসংক্রামক রোগের পেছনে অন্যতম কারণ তামাক ব্যবহার। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশে প্রতিবছর তামাকজনিত বিভিন্ন রোগে এক লাখ ২৬ হাজারের বেশি মানুষ মারা যায়। পাশাপাশি এসব রোগের চিকিৎসা ব্যয় ও উৎপাদনশীলতার ক্ষতি হয় ৩০ হাজার কোটি টাকার বেশি। অসংক্রামক রোগের অন্যতম প্রধান ঝুঁকি তামাকের ব্যবহার হ্রাস করার মাধ্যমে এই অকালমৃত্যু ও আর্থিক ক্ষতি প্রতিরোধ করা সম্ভব।

মো: রুহুল কুদ্দুস বলেন, বিদ্যমান ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইনে গণপরিবহন ও রেস্তোঁরাসমূহে ক্ষেত্রবিশেষে ধূমপানের সুযোগ রাখা হয়েছে। ফলে করোনা মহামারীর এই সময়ে তা জনসাধারণকে আরো বেশি ঝুঁকিতে ফেলছে। তিনি আরো বলেন, বিদ্যমান তামাক নিয়ন্ত্রণ আইনটি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন টোব্যাকো কন্ট্রোল—এফসিটিসির সাথে অনেকাংশে সামঞ্জস্যপূর্ণ হলেও কিছু জায়গায় দুর্বলতা রয়েছে। বর্তমান আইনে দোকানে তামাকজাত দ্রব্য প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা হয়নি। এই সুযোগে প্যাকেট সাজিয়ে রেখে তা বিজ্ঞাপন হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। অন্যদিকে বিড়ি-সিগারেটের সিঙ্গেল স্টিক বা খুচরা শলাকা এবং ধোঁয়াবিহীন তামাক দ্রব্য একটা অথবা দুইটা করে বিক্রি নিষিদ্ধ নয়। এর ফলে শিশু-কিশোররা চাইলেই তামাকদ্রব্যে আসক্ত হতে পারে। তাছাড়া বিদ্যমান আইনে তামাক কোম্পানির সিএসআর নিষিদ্ধ না হওয়ায় এর সুযোগে নিজেদের প্রচার চালাচ্ছে কোম্পানিগুলো।

রুহুল কুদ্দুস আরো বলেন, জনস্বাস্থ্য, বিশেষ করে কিশোর ও তরুণদের জন্য নতুন হুমকি ই-সিগারেটের মতো ইমার্জিং টোব্যাকো প্রোডাক্ট নিষিদ্ধ করার বিষয়ে আইনে কিছু বলা নেই। আবার সব ধরনের তামাকজাত দ্রব্যের মোড়কের ৫০ শতাংশ জুড়ে সচিত্র সতর্কবাণী মুদ্রণ বাধ্যতামূলক করা হলেও, মোড়কের আকার নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে বিড়ি ও ধোঁয়াবিহীন তামাক দ্রব্যের ক্ষুদ্র আকারের মোড়কে সচিত্র সতর্কবার্তা সেভাবে দৃষ্টি আকর্ষণ করে না। এসব দিক বিবেচনায় তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইনটিকে সংশোধন করে তামাক নিয়ন্ত্রণ জোরদার করা উচিৎ।

সভায় উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীরা আইনটি সংশোধনের পক্ষে মত প্রকাশ করেন। তারা বলেন, জনস্বাস্থ্য রক্ষায় যতদ্রুত সম্ভব আইনটি সংশোধন করা দরকার। এজন্য গণমাধ্যমকর্মীরা সহায়ক ভূমিকা পালন করার মত পোষণ করেন।


আরো সংবাদ

বিলুপ্তির পথে জাতীয় পাখি দোয়েল নৈরাজ্য থেকে দৃষ্টি সরাতেই সরকার আলেমদের বিপথে চালিত করছে : ডা.জাফরুল্লাহ প্রেমের প্রস্তাব দিয়ে উত্যক্ত করায় যুবকের ৬ মাসের কারাদণ্ড রূপগঞ্জে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের কারাখানায় সন্ত্রাসী হামলা স্বল্পমূল্যে প্রতিটি মানুষের জন্য ভ্যাকসিন নিশ্চিত করতে হবে : প্রধানমন্ত্রী ছাত্রদলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মিঠু'র সকল পদ স্থগিত ১৫ রানের চক্রে চক্কর খাচ্ছেন সাকিব আঘাত করলে পাল্টা আক্রমণ হবে : ওবায়দুল কাদের বিশ্বকে কয়েক দশক করোনার সাথে লড়াই করতে হতে পারে : জাতিসংঘ মহাসচিব এদেশে কোনদিনও মৌলবাদী নীতির ঠাঁই হবে না : শেখ পরশ মালয়েশিয়ায় কারাবন্দী হাজার হাজার অভিবাসীদের শর্ত সাপেক্ষে বৈধকরণ পরিকল্পনা

সকল

সৌদি আরবে ইমাম হোসাইন মসজিদটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ (১০৭২৭)অপশক্তি মোকাবেলা করে ইসলামের বিজয় নিশ্চিত করতে হবে : মামুনুল হক (৯১৪৮)রাজধানীতে সমাবেশের অনুমতি পায়নি সম্মিলিত ইসলামী দলগুলো (৮৩৫৮)ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন কোনোক্রমে মেনে নেয়া যায় না : সম্মিলিত ইসলামী দলসমূহ (৫৯৯৭)স্টেডিয়ামগুলোকে জেলে রূপান্তরের অনুমতি না দেয়ায় কেজরিওয়ালের ওপর ক্ষুব্ধ মোদি (৫৬৯৯)দেশের প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারের নির্দেশ সেনাপ্রধানের (৫৪১৬)আওয়ামী লীগের আপত্তি, মামুনুল হকের মাহফিল বাতিল (৫২৩৭)কোনো মুসলিম হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারে কিনা (৪৯৫৯)বাবার ডাকে বাড়ি ফিরে বড় ভাইয়ের হাতে খুন (৪৬০৮)পাঠ্যসূচিতে থাকলেও গুরুত্ব হারাচ্ছে ইসলাম শিক্ষা (৪০৩৯)