২৬ অক্টোবর ২০২০

আয়োডিন দ্রবণে মাত্র ১৫ সেকেন্ডে উধাও করোনাভাইরাস

আয়োডিন দ্রবণে মাত্র ১৫ সেকেন্ডে উদাও করোনাভাইরাস - সংগৃহীত

গোটা দুনিয়াকে স্থবির করে দিয়েছে করোনাভাইরাস! আমেরিকার মতো প্রবল পরাক্রমশালী দেশও এই ভাইরাসের মারণশক্তির কাছে অসহায়। বছরের প্রায় শুরু থেকেই কোভিডের এই তাণ্ডবলীলা দেখছে গোটা বিশ্ব। রাশিয়া থেকে আমেরিকা, ব্রিটেন থেকে জার্মানি, ভারত থেকে চিন। সব দেশের তাবড় বিজ্ঞানীরা প্রাণঘাতী এই ভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারে প্রাণপাত করছেন। কেউ কেউ লক্ষ্যের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছেন বলেও শোনা যাচ্ছে। তবে, কবে ভ্যাকসিন বাজারে আসবে, নতুন ইংরেজি বছরের শুরুতে না শেষে, এ নিয়ে কেউ-ই জোর দিয়ে কিছু বলতে পারছেন না। তাড়াহুড়ো করতে গিয়ে, উলটে অন্য বিপদ হবে কি না, তা নিয়েও ধন্দ রয়েছে। এই সংকটময় মুহূর্তে বিদেশের এক গবেষণায় দাবি করা হয়েছে, হাতের নাগালে থাকা আয়োডিন সিলউশন নিকেশ করতে পারে করোনাভাইরাসকে।

সদ্য প্রকাশিত এই গবেষণা রিপোর্টে দৃঢ়তার সঙ্গে দাবি করা হয়, আয়োডিন সিলউশনই হল করোনাভাইরাসকে নিষ্ক্রিয় করায় অত্যন্ত কার্যকরী একটি উপায়। করোনাভাইরাস নিয়ে ইউনিভার্সিটি অফ কানেক্টিকাট স্কুল অফ মেডিসিনের এক গবেষণায় এই দাবি করা হয়েছে।

গবেষকদের দাবি অনুযায়ী, করোনাভাইরাস সম্পূর্ণ ভাবে নির্মূলে সাহায্য করতে পারে আয়োডিনের দ্রবণ। প্রাণঘাতী ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এটা গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি বলে ধরে নেওয়া যাচ্ছে। করোনায় নাজেহাল ভারতের মতো দেশ এই দ্রবণ ব্যবহার করে ইতিবাচক ফল পেতে পারে। সোমবার পর্যন্ত ভারতে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৮৭ হাজার ৮৮২।

গবেষণার সময় তিনটি ভিন্ন মাত্রার আয়োডিন সলিউশন বা দ্রবণে কোভিড-১৯ ভাইরাস রাখা হয়েছিল। আয়োডিনের ০.৫ শতাংশ, ১.২৫ শতাংশ ও ২.৫ শতাংশ দ্রবণ তৈরি করেছিলেন গবেষকরা। বিজ্ঞানীরা লক্ষ করেন তিনটে দ্রবণেই নোভেল করোনাভাইরাস সম্পূর্ণ ভাবে নিষ্ক্রিয় হয়ে গিয়েছে। তিনটি দ্রবণের ক্ষেত্রেই ভাইরাস নিষ্ক্রিয় হতে সময় লেগেছে মাত্র ১৫ সেকেন্ড। বিজ্ঞানীদের দাবি, চিকিত্‍‌সার শুরুতেই এই দ্রবণের ব্যবহারে ভাইরাস নিষ্ক্রিয় হতে থাকবে। সংক্রমণের ঝুঁকিও কমবে।

গবেষণাপত্রের বিশদ প্রকাশিত হয়েছে JAMA Otolaryngology-Head and Neck Surgery-তে। গবেষণায় তারা আরও দেখেছেন SARS ও MERS-এর সংক্রমণ ঠেকাতেও আয়োডিনের দ্রবণ অত্যন্ত কার্যকরী। পাশাপাশি ইথানল বা ইথাইল অ্যালকোহলের দ্রবণ নিয়েও এই পরীক্ষা করেছিলেন বিজ্ঞানীরা। কিন্তু, ইতিবাচক কোনও ফল তাঁরা পাননি।

সোমবার পর্যন্ত গোটা বিশ্বে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৯ লক্ষ ৬৭ হাজার ৬৩৭ জনের। মোট আক্রান্ত ৩ কোটি ১৪ লক্ষ ১৮ হাজার ৮৮৩। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ কোটি ৩০ লক্ষ ৮ হাজার ৭১৫ জন। সূত্র: এই সময়


আরো সংবাদ