১৪ জুলাই ২০২০

বাস চলাচল শুরু হলেও যাত্রী কম

বাস চলাচল শুরু হলেও যাত্রী কম
বাস চলাচল শুরু হলেও যাত্রী কম - ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে প্রায় দুই মাস বন্ধ থাকার পর সোমবার সকাল থেকে সড়ক ও মহাসড়কগুলোতে ফের বাস ও অন্যান্য যানবাহন চলাচল শুরু হয়েছে।

তবে, স্বাস্থ্য নির্দেশনা মেনে রবিবার থেকেই সীমিত আকারে লঞ্চ এবং ট্রেন পরিষেবা চালু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আন্তজেলা যাত্রীবাহী বাসগুলো স্বাস্থ্যবিধি বজায় রাখার জন্য সরকারি নির্দেশনার অংশ হিসেবে ৫০ শতাংশ আসন খালি রেখে শহরের বিভিন্ন টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যাচ্ছে। তবে যাত্রী সংখ্যা খুবই কম।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) উত্তরা ট্রাফিক বিভাগের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর (টিআই) আক্তার হোসেন জানান, সোমবার সকাল থেকেই বেশ কয়েকটি বাস বিভিন্ন গন্তব্যে আবদুল্লাহপুর বাসস্ট্যান্ড ছেড়ে গেছে।

সব বাসই তাদের ৫০ শতাংশ আসন খালি রেখে ছেড়েছে বলে জানান তিনি।

আক্তার হোসেন বলেন, সিটি বাস সার্ভিসগুলো অল্প সংখ্যাক যাত্রী নিয়ে আবদুল্লাহপুর থেকে শহরের অন্যান্য স্থানে চলাচল করছে। এ বাসগুলোর বেশির ভাগকেই তাদের আসনের ৫০ শতাংশ খালি রাখার সরকারি আদেশ মেনে চলতে দেখা গেছে।

যোগাযোগ করা হলে দারুস সালাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তোফায়েল আহমেদ বলেন, গাবতলী বাসস্ট্যান্ড ছেড়ে যাওয়ার আগে পরিবহনগুলো সরকারের নির্দেশ বজায় রাখছে কি না তা পুলিশ পর্যবেক্ষণ করছে।

সব বাসগুলোকেই টার্মিনাল ছাড়ার আগে স্বাস্থ্যবিধির নির্দেশনা বজায় রাখতে দেখা গেছে বলে জানান তিনি।

মিরপুর টেকনিক্যাল বাস কাউন্টারে হানিফ পরিবহনের কাউন্টারম্যান আখিল আহমেদ জানান, সকাল থেকেই বেশ কয়েকটি বাস খুব কম সংখ্যক যাত্রী নিয়ে বিভিন্ন জেলার উদ্দেশে কাউন্টার ছেড়ে গেছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, প্রতি যাত্রীর কাছ থেকে তারা ৬০ শতাংশ বেশি ভাড়া আদায় করছেন এবং স্বাস্থ্য সংক্রান্ত অন্যান্য সরকারি নির্দেশনা বজায় রাখার পাশাপাশি ৫০ শতাংশ আসন খালি রাখা হচ্ছে।

সরকার গত ২৬ মার্চ থেকে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে এবং করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাব মোকাবিলায় গণপরিবহন চলাচলও স্থগিত করে। পরে এ স্থগিতাদেশ কয়েক দফায় ৩০ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়। ইউএনবি


আরো সংবাদ