০৪ আগস্ট ২০২১
`

মধ্যরাত পর্যন্ত গড়াতে পারে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন

ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দিচ্ছেন এক ভোটার - ছবি : ফারস নিউজ এজেন্সি

ইরানে চলমান প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলতে পারে মধ্যরাত পর্যন্ত। শুক্রবার দেশটির ত্রয়োদশতম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা বাড়াতে ইরানি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দুই দফা সময় বাড়ানোর পরও আশানরূপ ভোটার উপস্থিত না হওয়ায় এমন সম্ভাবনাই প্রকট হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার স্থানীয় সময় সকাল ৭টায় ইরানের ৭৩ হাজার পাঁচ শ' ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিকেল ৫টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার নির্ধারিত সময় থাকলেও ইরানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় প্রথমে সন্ধ্যা ৭টা এবং পরে রাত ৯টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণের সময় বাড়ানোর ঘোষণা করে।

প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সাথে সাথে দেশটিতে শহর ও গ্রাম কাউন্সিলের স্থানীয় সরকার নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

নির্বাচনে শুরুতেই প্রথম ব্যক্তি হিসেবে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা গ্র্যান্ড আয়াতুল্লাহ সাইয়েদ আলী খামেনি তেহরানে এক ভোটকেন্দ্রে তার ভোট প্রদান করেন।

ইরানে বর্তমানে মোট পাঁচ কোটি ৯৩ লাখ ১০ হাজার তিন শ' সাতজন নিবন্ধিত ভোটার রয়েছেন। আগামী চার বছরের জন্য বর্তমান প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির উত্তরসূরীকে নির্বাচিত করবেন তারা।

রাত ১২টা পর্যন্ত নির্বাচন চললেও প্রয়োজনে আরো দুই ঘণ্টা সময় বাড়িয়ে শুক্রবার দিবাগত রাত ২টা পর্যন্ত নির্বাচনের সময় বাড়াতে পারবে ইরানি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। নির্বাচন শেষ হওয়ার পরপরই ভোট গণনা শুরু হবে। শনিবার দিনের মধ্যেই নির্বাচনের ফলাফল জানা যাবে বলে প্রত্যাশা করা হচ্ছে।

বর্তমান প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি চার বছর মেয়াদে তার দুই দফা দায়িত্ব পালন শেষ করায় তৃতীয় বার নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করছেন না। ২০১৩ ও ২০১৭ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে পরপর দুই বার সংস্কারপন্থী এই নেতা নির্বাচিত হন। ইরানের আইন অনুসারে পরপর দুই দফা দায়িত্ব পালনকারী প্রেসিডেন্ট পরবর্তী নির্বাচনে প্রার্থী হতে পারবেন না।

এর আগে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে দেশটির সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণকারী গার্ডিয়ান কাউন্সিল সাত প্রার্থীকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেয়। বুধবার তিন প্রার্থী মোহসিন মেহের আলীজাদেহ, সাইদ জালিলি ও আলী রেজা জাকানি প্রতিদ্বন্দ্বিতা থেকে সরে দাঁড়ানোর পর বর্তমানে চারজন প্রার্থী নির্বাচনে লড়ছেন। তাদের মধ্যে রক্ষণশীল তিন প্রার্থী; প্রধান বিচারপতি সাইয়েদ ইবরাহিম রইসি, ইসলামি বিপ্লবি গার্ড বাহিনীর (আইআরজিসি) সাবেক প্রধান মোহসিন রেজায়ি, ডেপুটি স্পিকার আমির হোসাইন কাজীজাদেহ হাশেমি ও সংস্কারপন্থী প্রার্থী কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সাবেক গভর্নর আবদুল নাসের হেমমাতি।

মোহসিন মেহের আলীজাদেহ আবদুল নাসের হেমমাতির পক্ষে এবং সাইদ জালিলি ও আলী রেজা জাকানি সাইয়েদ ইবরাহিম রইসির পক্ষে প্রার্থিতা ত্যাগ করেছেন।

ইরানের নির্বাচন আইন অনুযায়ী নির্বাচনে বিজয়ী প্রার্থীকে মোট ভোটের ৫০ ভাগ লাভ করতে হবে। কেউ ৫০ ভাগ ভোট অর্জনে ব্যর্থ হলে সর্বোচ্চ ভোট পাওয়া দুই প্রার্থীকে নিয়ে দ্বিতীয় দফা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

সূত্র : প্রেস টিভি ও ইরান ইন্টারন্যাশনাল



আরো সংবাদ