১১ আগস্ট ২০২২
`

এক দিনে সারা বিশ্বে ঈদের নামাজ

-

গত পহেলা মে বিবিসির সান্ধ্য অনুষ্ঠান ‘প্রবাহ’তে জানা গেল মুসলিম বিশ্বের ‘প্রধান’ দেশ সৌদি আরবের সঙ্গে তাল মিলিয়ে সারা বিশ্বে একই দিনে পবিত্র ঈদ উদযাপনের পক্ষে বিপক্ষে মতামত। এক পক্ষের দাবি, রাসূল সা: চাঁদ দেখে রোজা শুরু এবং চাঁদ দেখেই ঈদ করতে বলেছেন। ইমাম আবু হানিফা রহ: সেই পক্ষে মত দিয়ে গেলেও আরেক পক্ষের যুক্তি, তখন খবরাখবর তাৎক্ষণিক আদান প্রদানের ব্যবস্থা না থাকায় তা প্রযোজ্য হলেও আজ আধুনিক বিশ্বে প্রতি সেকেন্ডে খবরাখবর আদান প্রদানের ব্যবস্থা থাকায় সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে এক সাথে ঈদ করাতে কোনো সমস্যা নেই বলে মনে হয়।
আমি দেশের একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে গোটা দেশের কৌতূহলী মুসলিম উম্মাহর পক্ষ হতে সংশ্লিষ্ট মহোদয়গণ সমীপে সবিনয়ে জানতে চাই, যেহেতু এক সেকেন্ডে আমরা সৌদি আরবের ঈদ উদযাপনের খবর জানতে পারার কারণে তাদের সঙ্গেই আমাদেরও ঈদ উদযাপনের উৎসাহ প্রদান করা হচ্ছে, সেহেতু তাদের সাথে ইফতার করার জন্য ৩ ঘণ্টা সময়ের ব্যবধান হলেও আমরা কি অপেক্ষা করব? অথবা তারা আমাদের ইফতার করার খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইফতার করবে? কিংবা তারা আমাদের সাহরি খাওয়ার কথা শুনে রাত ১২টায় সাহরি খাবে? নাকি আমরা তদের সাহরির সাথে তাল মিলিয়ে ফজরের নামাজ পড়ে ‘সাহরি’ খাবো?
তাছাড়া যতদূর জানা যায়, বাংলাদেশের ঢাকায় যখন দুপুর ১২টা, তখন আমেরিকার শিকাগোতে রাত ১২টা। এমতাবস্থায় সেখানকার মুসলিম ভাইদের ব্যাপারে পরামর্শ কী? তার পরও কথা আছে। চান্দ্র মাসের হিসাব মতে, আরবি মাস ২৯ এবং ৩০ দিনেও হয়ে থাকে। এক সাথে ঈদ করলে, সৌদি আরবিদের রোজা ৩০টা পূর্ণ হলেও আমাদের রোজা হয়তো হতো ২৯টা, অর্থাৎ একটা কম। আবার ২৯ শা মাসে সৌদিদের ২৯টা রোজা পূর্ণ হলেও, আমাদের হবে ২৮টা। তাহলে প্রতি বছর ঈদে তাল মেলাতে গিয়ে আমাদের কয়েক কোটি রোজাদারের একটা করে ঘাটতি রোজা কি মাফ? নাহলে এর দায়ভার কে নেবে? আর ঈদে তাল মেলানো যদি একই দায়ে ঠেকা হয়, তাহলে ওরা উট দুম্বার গোশত খেয়ে ঈদ করবে। আমাদের মত কামলা কিষান হাভাতেদের ব্যাপারে পরামর্শ কী? সবচেয়ে বড় কথা, রাসূল সা: কর্তৃক প্রবর্তিত প্রায় দেড় হাজার বছরের ধর্মব্যবস্থা কেউ যুক্তি দিয়েই ওলটপালট করে দিতে পারে কি-না। তা ছাড়া আনুগত্য কি আল্লাহ ও রাসূল সা:-এর, নাকি কোনো দেশের? পবিত্র কুরআন ও হাদিসের দলিল দ্বারা সমাধান দিয়ে মুসলিম উম্মাহর সংশয় নিরসন করবেন বলে আশা রাখি।
কাজী মো: গোলজার হোসেন
ইসলামপুর, পায়রাবন্দ
মিঠাপুকুর, রংপুর


আরো সংবাদ


premium cement