০৭ অক্টোবর ২০২২, ২২ আশ্বিন ১৪২৯, ১০ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`
মাসুদ রানা ও কুয়াশা সিরিজ

আপিলের অনুমতি পেলো কাজী আনোয়ার হোসেনের উত্তরাধিকারীরা

কাজী আনোয়ার হোসেন - ছবি - সংগৃহীত

‘মাসুদ রানা’ সিরিজের ২৬০টি ও ‘কুয়াশা’ সিরিজের ৫০টি বই প্রকাশ নিয়ে করা রিট খারিজ করে হাইকোর্টের দেয়া রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার অনুমতি পেয়েছেন সেবা প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী কাজী আনোয়ার হোসেনের উত্তরাধিকারীরা।

তাদের করা লিভ টু আপিল (আপিল করার অনুমতি চেয়ে করা আবেদন) মঞ্জুর করেছেন আপিল বিভাগ। আজ সোমবার প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যের আপিল বিভাগ এ আদেশ দেন।

আদালতে আনোয়ার হোসেনের পরিবারের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মুরাদ রেজা ও আইনজীবী এবিএম হামিদুল মেসবাহ। রেজিস্ট্রার অব কপিরাইট অফিসের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান ও আইনজীবী ইফতাবুল কামাল অয়ন।

পরে খুরশীদ আলম খান বলেন, আদালত হাইকোর্টের রায়ের বিরুদ্ধে আপিলের অনুমতি দিয়েছেন। একইসাথে ওই বই বেচাকেনার বিষয়ে স্থিতাবস্থা বজায় রাখতে বলেছেন।

২০১৯ সালের ২৯ জুলাই শেখ আব্দুল হাকিম ‘মাসুদ রানা’ সিরিজের ২৬০টি ও ‘কুয়াশা’ সিরিজের ৫০টি বইয়ের লেখক হিসেবে স্বত্ব বা মালিকানা দাবি করে সেবা প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী কাজী আনোয়ার হোসেনের বিরুদ্ধে বাংলাদেশ কপিরাইট আইনের ৭১ ও ৮৯ ধারা লঙ্ঘনের অভিযোগ বাংলাদেশ কপিরাইট অফিসে দাখিল করেন।

এক বছরেরও বেশি সময় ধরে আইনি লড়াই শেষে ২০২০ সালের ১৪ জুন বাংলাদেশ কপিরাইট অফিস শেখ আবদুল হাকিমের পক্ষে সিদ্ধান্ত দিয়েছে।

এ সিদ্ধান্তের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে লেখক কাজী আনোয়ার হোসেন হাইকোর্টে রিট করেন। ওই রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২০২০ সালের ১০ সেপ্টেম্বর হাইকোর্ট স্থগিতাদেশ দিয়ে রুল জারি করেন।

চলতি বছরের ৮ জানুয়ারি হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। কাজী আনোয়ার হোসেন গত ১৯ জানুয়ারি মারা যান। এর আগে হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আবেদন করেন তিনি। গত বছরের ২৮ আগস্ট মৃত্যু হয় শেখ আবদুল হাকিমের।

পরে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর ওই আবেদনে পক্ষভুক্ত হয়ে ১১ এপ্রিল লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করেন কাজী আনোয়ার হোসেনের দুই ছেলে ও এক নাতনি।


আরো সংবাদ


premium cement