২০ জানুয়ারি ২০২১
`

আবরার হত্যা মামলায় বিচারকের প্রতি আসামিপক্ষের অনাস্থা

আবরার ফাহাদ - ফাইল ছবি

নিরপেক্ষ বিচার নিয়ে আশঙ্কা থাকায় আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় বিচারকের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করে আবেদন করেছেন।

বৃহস্পতিবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো: কামরুজ্জামানের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা।

অনাস্থা আবেদনে উল্লেখ করা হয়, বুয়েটশিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় বেআইনিভাবে মামলার সাক্ষীদের পুনরায় আদালতে ডেকে জবানবন্দি নেয়া হয়েছে। এতে নিরপেক্ষ বিচার নিয়ে আসামিদের ন্যায়বিচারের আশঙ্কা তৈরি হওয়ায় আদালতের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করেছেন কারাগারে আটক ২২ আসামির আইনজীবী।

এ বিষয় ট্রাইব্যুনালের কৌঁসুলি আবু আব্দুল্লাহ ভুইয়া বলেন, বিচার কাজকে বিলম্বিত করার জন্য আসামিপক্ষের আইনজীবীরা বিচারকের ওপর অনাস্থা প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে শুনানির জন্য আগামী ৬ ডিসেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মনজুরুল আলম বলেন, বুয়েটশিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় নিরপেক্ষ বিচার নিয়ে আশঙ্কা তৈরি হওয়ায় আমরা বিচারকের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করেছি।

অন্যদিকে, বৃহস্পতিবার আদালতে সাক্ষ্য দিয়েছেন আলোকচিত্র বিশেষজ্ঞ কে এম নাজমুল ইসলাম। আদালত পরবর্তী সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য আগামী ৬ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। এ নিয়ে মামলায় মোট ৬০ সাক্ষীর মধ্যে ৪০ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হলো।

উল্লেখ্য, ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ার জেরে বুয়েটশিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে ২০১৯ সালের ৬ অক্টোবর রাতে ডেকে নেয় বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। এরপর রাত ৩টার দিকে শেরেবাংলা হলের নিচতলা ও দোতলার সিঁড়ির করিডোর থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

পর দিন ৭ অক্টোবর দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল মর্গে আবরারের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়।

নিহত আবরার বুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। শেরেবাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষে থাকতেন তিনি।

ওই ঘটনায় নিহতের বাবা বরকত উল্লাহ চকবাজার থানায় ১৯ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন।



আরো সংবাদ