০১ ডিসেম্বর ২০২০

রিফাত হত্যা মামলা : কিছুক্ষণের মধ্যেই রায়

কারাগারে থাকা প্রাপ্তবয়স্ক আট আসামিকে আদালতে হাজির করেছে পুলিশ - ছবি : সংগৃহীত

বরগুনার বহুল আলোচিত রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক ১০ আসামির রায় আজ বুধবার ঘোষণা করবেন বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালত। এরই মধ্যে এ মামলায় কারাগারে থাকা প্রাপ্তবয়স্ক আট আসামিকে আদালতে হাজির করেছে পুলিশ। বেলা ১১টা ৪০ মিনিটে র‌্যাব ও পুলিশের কড়া নিরাপত্তায় প্রিজনভ্যানে আসামিদের আদালতে নিয়ে আসা হয়। কিছুক্ষণের মধ্যেই মামলার রায় পড়া শুরু হবে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।

এর আগে আদালতে হাজির হয়েছেন নিহত রিফাতের স্ত্রী এবং এ মামলার অন্যতম আসামি আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি। জামিনে থাকা মিন্নি সকাল ৮টা ৫০ মিনিটে তার বাবার সাথে মোটরসাইকেলে চড়ে আদালতে হাজির হন।

রিফাত হত্যা মামলার প্রাপ্তবয়স্ক আসামিরা হলেন রাকিবুল হাসান রিফাত ফরাজি, আল কাইউম ওরফে রাব্বি আকন, মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত, রেজওয়ান আলী খান হৃদয় ওরফে টিকটক হৃদয়, মোঃ হাসান, মোঃ মুসা, আয়েশা সিদ্দিকা মিন্নি, রাফিউল ইসলাম রাব্বি, মোঃ সাগর এবং কামরুল ইসলাম সাইমুন। এদের মধ্যে মোঃ মুসা পলাতক রয়েছেন।

এদিকে রিফাত হত্যা মামলার রায়কে ঘিরে বরগুনার আদালত প্রাঙ্গণ ও আশপাশের এলাকায় কঠোর নিরাপত্তাবেষ্টনী গড়ে তুলেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। কিছুক্ষণ পরই আসামিদের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের কাঠগড়ায় হাজির করা হবে।

কারাগার থেকে আদালতে আসামিদের আনার সময় প্রিজনভ্যানকে মাঝখানে রেখে দুই পাশে ছিল পুলিশ ও র‌্যাবের গাড়ি। তারপর হাতকড়া পরা অবস্থায় সারিবদ্ধভাবে আট আসামিকে প্রিজনভ্যান থেকে নামিয়ে আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় তাদের উদ্বিগ্ন দেখাচ্ছিল। চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার রায়েকে ঘিরে বরগুনা শহর ও আদালত চত্বরে কড়া নিরাপত্তা জোরদার করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

মামলার রায় শুনতে আদালতে রিফাতের পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও মামলার আইনজীবী, গণমাধ্যমকর্মী ও আসামিদের স্বজনরা হাজির হয়েছেন। আদালত চত্বরে কড়া নিরাপত্তার মধ্যেও উৎসুক মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

গত ১৬ সেপ্টেম্বর এ মামলার দুই পক্ষের যুক্তিতর্কের শুনানি শেষে বরগুনার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোঃ আসাদুজ্জামান রায়ের জন্য বুধবার দিন ধার্য করেন।

২০১৯ সালের ২৬ জুন বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে শত শত লোকের উপস্থিতিতে স্ত্রীর সামনে রিফাত শরীফকে (২৫) কুপিয়ে হত্যা করা হয়। পরে রিফাতকে কুপিয়ে হত্যার একটি ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে।

ঘটনার পরদিন ১২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও পাঁচ-ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন রিফাতের বাবা আবদুল হালিম দুলাল শরীফ। ওই বছরের ১ সেপ্টেম্বর ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে প্রাপ্ত ও অপ্রাপ্তবয়স্ক দু’ভাগে বিভক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দেয় পুলিশ। এর মধ্যে প্রাপ্তবয়স্ক ১০ জন এবং অপ্রাপ্তবয়স্ক ১৪ জনকে আসামি করা হয়। মামলার চার্জশিটভুক্ত প্রাপ্তবয়স্ক আসামি মোঃ মুসা এখনো পলাতক।


আরো সংবাদ