১৯ অক্টোবর ২০২০

নৃত্যশিল্পী ইভান’র জামিন নাকচ

নৃত্যশিল্পী ইভান’র জামিন নাকচ - সংগৃহীত

দুবাইয়ে ড্যান্সবারের আড়ালে নারীপাচারের অভিযোগে গ্রেফতারকৃত জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত নৃত্যশিল্পী ও কোরিওগ্রাফার ইভান শাহরিয়ার সোহাগের জামিন আবেদন নাকচ করেছেন আদালত। রোববার তাকে জামিন দেওয়ার জন্য তার আইনজীবী ঢাকার মহানগর হাকিম বেগম মাহমুদা আক্তার জামিন চেয়ে আবেদন করেন। আদালত শুনানী শেষে জামিন আবেদন নাকচ করেন।

উল্লেখ্য, শনিবার গত ১২ সেপ্টেম্বর তারিখে তাকে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে লালবাগ থানায় মানবপাচার আইনের মামলায় ঢাকার সিএমএম আদালতে হাজির করা হয়। সেইদিন তার জামিনের জন্য আদালতের আবেদন করা হয়। আদালত শুনানী শেষে ১৩ সেপ্টেম্বর রোববার তারিখ ধার্য্য করেন এবং কারাগারে প্রেরনের নির্দেশ দেন। সে মতে রোববার জামিন শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। আদালত শুনানী শেষে জামিন আবেদন নাকচ করেন।

উল্লেখ্য, গত মাসে দুবাই পুলিশের তথ্যের ভিত্তিতে আজম খানসহ নারী পাচারকারীচক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করে সিআইডি। এই চক্রটি মূলত নৃত্যকেন্দ্রিক। কয়েকজন নৃত্যসংগঠক ও শিল্পী এই চক্রের সঙ্গে জড়িত। তারা দেশের বিভিন্ন নাচের ক্লাব বা সংগঠন থেকে মেয়েদের সংগ্রহ করে কাজ দেয়ার নামে দুবাই পাঠান। পরে দুবাইয়ের হোটেল ও ড্যান্সবারে তাদের যৌনকর্মে বাধ্য করতেন। চক্রটির বাংলাদেশের মূলহোতা আজমসহ তার দুই সহযোগী ময়না ও মো. আলামিন হোসেন ওরফে ডায়মন্ডকে গ্রেফতারের পর সিআইডি জানায়, প্রথমে হোটেলে চাকরি দেয়ার কথা বলে ২০-২২ বছর বয়সী তরুণীদের প্রলুব্ধ করা হতো। বিশ্বস্ততা অর্জনের জন্য বেতন হিসেবে ২০-৩০ হাজার টাকা নগদ পরিশোধ করা হতো। শুধু তাই নয়, দুবাইয়ে যাওয়া-আসা বাবদ সব খরচও দিত দালালচক্র। কিন্তু দুবাই যাওয়ার পর তাদের হোটেলে জিম্মি করা হয়, জোরপূর্বক দেহ-ব্যবসাসহ ড্যান্সক্লাবে নাচতে বাধ্য করা হয়। গত ৮ বছরে এভাবে প্রলুব্ধ করে চাকরির নামে বাংলাদেশের শতাধিক তরুণী-কিশোরীকে দুবাইয়ে পাচার করা হয়েছে। তাদের দিয়ে প্রস্টিটিউশনে জড়াতে বাধ্য করেছে আন্তর্জাতিক নারীপাচারকারী চক্র।


আরো সংবাদ