০৮ জুলাই ২০২০

ভিকারুননিসার নতুন অধ্যক্ষের নিয়োগ স্থগিত করেননি চেম্বার আদালত

আপিল বিভাগে শুনানি ২১ অক্টোবর
-

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ ফওজিয়া রেজওয়ানের নিয়োগ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতা স্থগিত করেননি আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর আদালত। তবে প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতার ওপর স্থগিতাদেশ চেয়ে করা আবেদনের ওপর আগামী ২১ অক্টোবর আপিল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর এক আদেশে অধ্যক্ষ নিয়োগ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন কেন অবৈধ ও বাতিল করা হবে না, অধ্যক্ষ নিয়োগ বাতিল সংক্রান্ত বিষয়ে সরকারের আরো দুটি প্রজ্ঞাপন (গত ৪ ও ৭ জুলাই জারি করা) কেন অবৈধ ও বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। তবে আদালত নিয়োগ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতা স্থগিত না করায় ফওজিয়া রেজওয়ান ওইদিনই অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন।

এ অবস্থায় তার নিয়োগ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের কার্যকারিতা স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগের অবকাশকালীন চেম্বার বিচারপতির আদালতে আবেদন করেন অ্যাডভোকেট ড. ইউনুছ আলী আকন্দ। তিনি নিজেই শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ থেকে ফওজিয়া রেজওয়ানকে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। ১৭ সেপ্টেম্বর অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেন ফওজিয়া রেজওয়ান।

এর বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আদালতে রিট আবেদনটি দায়ের করেন ভিকারুননিসার গভর্নিং বডির সাবেক সদস্য ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মো: ইউনুস আলী আকন্দ। তিনি বলেন, আইন অনুযায়ী অধ্যক্ষ নিয়োগ দেয়ার ক্ষমতা গভর্নিং বডির থাকলেও সরকার অবৈধ ক্ষমতা ব্যবহার করে মাউশির একজন কর্মকর্তাকে অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দেয়।

আবেদনে ফওজিয়াকে নিয়োগ দিয়ে জারি করা প্রজ্ঞাপন কেনো অবৈধ হবে না এ মর্মে রুল জারির আর্জি জানানো হয়। এ রুল বিবেচনাধীন থাকা অবস্থায় প্রজ্ঞাপন স্থগিত চাওয়া হয়েছে। এছাড়া তার কার্যক্রমের ওপরে স্থিতাবস্থা জারিরও আর্জি জানানো হয়েছে।

আবেদনে শিক্ষা সচিব, ঢাকা বোর্ডের চেয়ারম্যান, ভিকারুননিসার অধ্যক্ষ, অ্যাডহক কমিটির চেয়ারম্যান, ঢাকা জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট ১১ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

২০১৯ সালে করা এক রিট আবেদনের অংশ হিসেবে সম্পূরক আবেদন করা হয়।

১৫ সেপ্টেম্বর ফাওজিয়াকে অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ দিয়ে আদেশ জারি করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা ক্যাডারের এই নিয়োগ আদেশে বলা হয়েছে, তিনি নিজ বেতনক্রম অনুযায়ী বেতন-ভাতা গ্রহণ করবেন এবং পদ সংশ্লিষ্ট ভাতা ও অন্যান্য সুবিধা পাবেন।


আরো সংবাদ