০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ২১ অগ্রহায়ন ১৪২৯, ১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
`

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে ভারতে জ্বালানির ওপর বাড়তি কর স্থগিত

-

দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিজনিত কারণে সৃষ্ট জনভোগান্তি কমাতে এবার গ্যাসোলিন ও ডিজেলের ওপর প্রস্তাবিত অতিরিক্ত কর স্থগিত করল ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার। গতকাল শনিবার এক সরকারি আদেশে জানানো হয়েছে এই তথ্য। আদেশে বলা হয়েছে, ‘গ্যাসোলিন ও ডিজেলের ওপর নতুন যে কর আরোপের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছিল, তা স্থগিত করা হয়েছে। নতুন সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ৬ মাস পর্যন্ত ডিজেলে কোনো কর জারি করা হবে না। রয়টার্স।
আর গ্যাসোলিনে কর কবে থেকে আরোপ করা হবে তা পরে জানিয়ে দেয়া হবে।’ গত ফেব্রুয়ারিতে ভারতের কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মালা সিতারমন বলেছিলেন, ডিজেল-গ্যাসোলিনে অতিরিক্ত কর জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার এবং সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্যাসোলিন ও ডিজেলের প্রতি লিটারে দুই রুপি করে কর আরোপ করা হবে। আগামী ১ অক্টোবর থেকে এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে বলেও জানিয়েছিলেন ভারতের অর্থমন্ত্রী।
ভারতে গত কয়েক মাস ধরে মুদ্রাস্ফীতির হার ৬ শতাংশ। বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে দীর্ঘদিন এই পরিমাণ মুদ্রাস্ফীতি ভারতের মতো দেশের জন্য উদ্বেগজনক। দেশের অর্থনৈতিক ভারসাম্য রক্ষায় ইতোমধ্যে ব্যাংক সুদের পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে দেশটি। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরুর পর থেকে বিশ্বজুড়ে জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির পাশাপাশি বেড়েছে খাদ্যপণ্যের দাম এবং তার আঁচ ভারতীয়দের গায়ে লাগারও সমূহসম্ভাবনা ছিল। তবে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার চাল ও গমের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে ইতোমধ্যে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়ায় এখনো দেশটিতে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে আছে খাদ্যপণ্যের দাম।
আবারো সুদের হার বাড়াল ভারত
ইকোনমিক টাইমস জানায়, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে রিজার্ভ ব্যাংক অব ইন্ডিয়া (আরবিআই) ফের সুদের হার বাড়িয়েছে। শুক্রবার দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংক সুদের হার ৫০ বেসিসি পয়েন্টে বাড়িয়েছে। উচ্চ মূল্যস্ফীতির চাপ কমাতে এ নিয়ে পরপর চারবার সুদের হার বাড়াল ব্যাংকটি। বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, সুদের হার আরো বাড়ানো হতে পারে। দেশটির মুদ্রানীতি কমিটি মূল ঋণের বিপরীতে সুদের হার বা রিপো রেট বাড়িয়ে পাঁচ দশমিক ৯ শতাংশ করেছে। এ কমিটির ছয় সদস্যের তিনজন ছিল কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সদস্য ও বাকি তিনজন ছিল বাইরের। তাদের মধ্যে পাঁচজনই হার বাড়ানোর পক্ষে ভোট দিয়েছে।
আরবিআই মে থেকে স্বল্পমেয়াদি ঋণের (রিপো) হার ১৪০ বেসিস পয়েন্ট বাড়িয়েছে। এখন ফের তার সাথে ৫০ বেসিস পয়েন্ট যোগ হলো। তবে আরবিআইয়ের এমন পদক্ষেপের পরও দেশটির মূল্যস্ফীতিতে কোনো পরিবর্তন আসছে না। মূলত বিশ্বজুড়েই অর্থনীতির ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে মূল্যস্ফীতি। ভারতের কেন্দ্র্রীয় ব্যাংকটি মে মাসে রিপো রেট ৪০ পয়েন্টভিত্তিতে বাড়িয়েছে। এরপর জুন ও আগস্টে ৫০ পয়েন্ট করে বাড়ায়।
চলতি বছরের আগস্টে ভারতের মূল্যস্ফীতি পূর্বাভাসের চেয়ে বেড়ে যায়। জ্বালানি ও খাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতির ওপর এই প্রভাব পড়ে। এতে দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওপর নতুন করে চাপ বাড়ে। ভারতের পরিসংখ্যান বিভাগের প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, এক বছর আগের তুলনায় আগস্টে ভোক্তা মূল্যসূচক বেড়েছে সাত শতাংশ, যা ব্লুমবার্গের পূর্বাভাস ৬ দশমিক ৯০ শতাংশের চেয়ে বেশি। তাছাড়া জুলাইতে দেশটিতে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৬ দশমিক ৭১ শতাংশ।


আরো সংবাদ


premium cement