২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩ আশ্বিন ১৪২৯, ১ রবিউল আওয়াল ১৪৪৪ হিজরি
`

রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় ব্যাংকে খেলাপি ঋণ কত?

-

রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় বাণিজ্যিক ব্যাংকে খেলাপি ঋণ এখন কত? এ বিষয়ে তিনটি ভিন্ন পরিসংখ্যান পাওয়া গেছে। দু’টি দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ এবং অন্য একটি ব্যাংকগুলোর নিজস্ব পরিসংখ্যান।
এতে দেখা যায়, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সাথে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তিতে (এপিএ) গত জুন শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় বাণিজ্যিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণের স্থিতি দেখানো হয়েছে ৪৫ হাজার ১৮০ কোটি টাকা।
অন্য দিকে গত ১৩ জুলাই অনুষ্ঠিত আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের এক বৈঠকে গত জুন শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় বাণিজ্যিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণের স্থিতি ৪৮ হাজার ৩৬০ কোটি টাকা উল্লেখ করা হয়েছে। এখানে একটি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক খেলাপি ঋণের ভিন্ন ভিন্ন তথ্য দেয়া হয়েছে। এ তথ্যে দেখা যায়, খেলাপি ঋণের স্থিতির পার্থক্য প্রায় তিন হাজার কোটি টাকা।
এ দিকে ব্যাংকগুলোর নিজস্ব প্রাক্কলন অনুযায়ী, গত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে অর্থাৎ গত জুন শেষে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৪৮ হাজার ১৬৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা। এর আগের অর্থাৎ ২০২০-২১ অর্থবছর শেষে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয়টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণের স্থিতি ছিল ৪৩ হাজার ৩৮ কোটি ৫৭ লাখ টাকা।
খেলাপি ঋণের স্থিতি নিয়ে ভিন্ন পরিসংখ্যানের বিষয়ে জানতে চাইলে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের একটি সূত্র জানায়, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলো এ বিষয়ে যে তথ্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগে প্রেরণ করে মূলত সেটিই তুলে ধরা হয়। এ ক্ষেত্রে দু’টি ভিন্ন পরিসংখ্যান উল্লেখ করা হয়েছে কেন, তা খতিয়ে না দেখার কারণ ব্যাখ্যা করা যাবে না।
এ দিকে করোনা পরিস্থিতিতে ঋণ শ্রেণীকরণের ক্ষেত্রে বিশেষ ছাড় দেয়া হলেও রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোতে খেলাপি ঋণ বাড়ছে। এক বছরের ব্যবধানে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয়টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণ বেড়েছে পাঁচ হাজার ১২৮ কোটি টাকা। রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে সাত বছর ধরে বার্ষিক কর্মসম্পাদন চুক্তির (এপিএ) আওতায় ব্যাংকগুলোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দিচ্ছে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ। কিন্তু তা সত্ত্বেও খেলাপি ঋণ সন্তোষজনক পর্যায়ে নামিয়ে আনা সম্ভব হচ্ছে না।


ব্যাংকগুলোর নিজস্ব প্রাক্কলন অনুযায়ী, গত জুন শেষে সোনালী ব্যাংকের খেলাপি ঋণের পরিমাণ হচ্ছে ১১ হাজার ৯৫৮ কোটি টাকা (২০২১ সালের জুন শেষে ছিল ১০ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকা)। জনতা ব্যাংকের ১২ হাজার কোটি টাকা (গত বছর ছিল ১৪,৪৩৪.১৫ কোটি টাকা)। অগ্রণী ব্যাংকের ৯ হাজার ৯৮৭ কোটি টাকা (গত বছর ছিল পাঁচ হাজার ৭০০ কোটি টাকা)। রূপালী ব্যাংকের পাঁচ হাজার ৭৭১ কোটি ১৬ লাখ টাকা (গত বছর ছিল ৩,৮৬৪.৫৬ কোটি টাকা)। বেসিক ব্যাংকের সাত হাজার ৭২২ কোটি ৬৮ লাখ টাকা (গত বছর ছিল ৭,৯৮৫.৫২ কোটি টাকা) এবং বিডিবিএলের ৭২৭ কোটি ৮৬ লাখ টাকা (গত বছর ছিল ৬৫৯.৩৪ কোটি টাকা) প্রাক্কলন করা হয়েছে।
আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সাথে রাষ্ট্রায়ত্ত বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর সম্পাদিত এপিএর আওতায় চলতি অর্থবছরে রাষ্ট্রায়ত্ত ছয়টি বাণিজ্যিক ব্যাংকের খেলাপি ঋণের স্থিতি দুই হাজার ৪৬৬ কোটি টাকা কমিয়ে আনার কথা বলা হয়েছে। ব্যাংকগুলোর নিজ নিজ প্রাক্কলন অনুযায়ী, সদ্যসমাপ্ত ২০২১-২২ অর্থবছর শেষে ছয় ব্যাংকের খেলাপি ঋণের স্থিতি দাঁড়িয়েছে ৪৮ হাজার ১৬৬ কোটি টাকা। এর বিপরীতে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের স্থিতির লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৪৫ হাজার ৭০০ কোটি টাকা।
এপিএতে চলতি ২০২২-২৩ অর্থবছর শেষে ব্যাংকগুলোর খেলাপি ঋণের স্থিতির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪৪ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এ ক্ষেত্রে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ ও ব্যাংকগুলোর লক্ষ্যমাত্রার পার্থক্য এক হাজার ২০০ কোটি টাকা।
রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোতে অধিক পরিমাণ খেলাপি ঋণসহ আর্থিক খাতে বিরাজমান পাঁচটি সমস্যা ও চ্যালেঞ্জের কথা তুলে ধরা হয়েছে এপিএতে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে- ব্যাংকিং সেবা থেকে বঞ্চিত বৃহৎ জনগোষ্ঠী; রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর অনুন্নত গ্রাহকসেবা ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহারে সীমাবদ্ধতা; বীমা সম্পর্কে জনগণের আস্থাহীনতা; পুঁজিবাজারে লেনদেন-পরবর্র্তী ক্লিয়ারিং সেটেলমেন্টে দেরি হওয়া এবং প্রশিক্ষিত বিনিয়োগকারীর অভাব।

 


আরো সংবাদ


premium cement