২০ আগস্ট ২০২২
`

ভোলা-ঢাকা বাস সার্ভিস চালু হচ্ছে শিগগিরই

-

সন্ধ্যা হলেই বিচ্ছন্ন হয়ে যায় দ্বীপজেলা ভোলা। তখন আর অন্য জেলায় যাওয়ার কোনো উপায় থাকে না। কিন্তু পদ্মা সেতু চালু হওয়ার মধ্য দিয়ে পাল্টে গেছে এ জেলার চিত্র। পদ্মা সেতুর সুফল ভোগ করতে শুরু করেছে এ অঞ্চলের মানুষ। তবে ঢাকা-ভোলা রুটে সরাসরি বাস সার্ভিস চালু না থাকায় এখনো অনেকটা দুর্ভোগকে সঙ্গী করে তাদের রাজধানীতে যেতে হয়। তাই ভোলা-ঢাকা রুটে বাস সার্ভিস চালু ও নিরবচ্ছিন্ন ফেরি সার্ভিস চালু থাকলে যাত্রা পথে স্বস্তি ফিরে আসবে বলে মনে করছেন সাধারণ মানুষ। এর মধ্য দিয়ে পদ্মা সেতুর শতভাগ সুফল ভোগ করতে পারবেন ভোলাবাসী।
শিগগিরই ভোলা-ঢাকা রুটে সরাসরি বাস সার্ভিস চালু হবে বলে জানিয়েছে জেলা বাস সমিতির নেতারা। বর্তমানে দক্ষিণাঞ্চলের এই দ্বীপ জেলা থেকে রাজধানীতে যোগাযোগের একমাত্র ভরসা লঞ্চ। কিন্তু সেই লঞ্চ নির্ধারিত একটা সময়ে চলাচল করে, তাই জরুরি প্রয়োজন থাকলেও সন্ধ্যার পর ঢাকায় যেতে পারেন না এ জেলার মানুষ। কিন্তু পদ্মা সেতুর চালু হওয়ার পর থেকে সেই চিত্র পাল্টে গেছে। এখন যেকোনো সময় রাজধানীতে যেতে পারছেন দ্বীপের মানুষ। তবে ভোলা-ঢাকা রুটে বাস সার্ভিস চালু না থাকায় এখনো দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। এ অবস্থায় যাতায়াত ব্যবস্থা আরো সহজ করতে এ জেলা থেকে বাস সার্ভিস চালুর দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা।
সজীব নামে এক ব্যক্তি বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় দক্ষিণের ২১ জেলার মানুষ পুরোপুরি সুফল ভোগ করছে; কিন্তু আমরা ভোলার মানুষ, সেই সুবিধা পাচ্ছি না। তাই এখানে বাস সার্ভিস চালু হলে যোগাযোগব্যবস্থা আরো সহজ হবে।
সাংস্কৃতিক কর্মী তালহা তালুকদার বাঁধন বলেন, সন্ধ্যা হলেই ভোলার মানুষ জরুরি প্রয়োজনে কোথাও যেতে পারে না।
আমার সারা দেশ থেকে বিচ্ছন্ন হয়ে থাকি। তাই বাস সার্ভিস চালু এবং দিবা-রাত্রি ফেরি চালু হলে পদ্মা সেতু হয়ে আমরা দ্রুত ঢাকায় পৌঁছাতে পারব।
এ দিকে ভোলার ভেদুরিয়া ফেরি ঘাটে আগে পণ্যবাহী ট্রাককে ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হতো। বর্তমানে সেই পরিস্থিতির পরিবর্তন হয়েছে, স্বস্তি ফিরেছে। এখন ঘাটে ফেরির জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপক্ষো করতে হয় না।
অল্প সময়ে পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকাসহ গন্তব্যে যেতে পারছেন পরিবহন শ্রমিকরা। ট্রাক চালক মোসলে উদ্দিন ও সিরাজ বলেন, আগে আমাদের ঘাটেই ঘণ্টার পর ঘণ্টা অপক্ষো করতে হতো।
কখন ঢাকায় পৌঁছাব, তার কোনো নিশ্চয়তা ছিল না। কিন্তু এখন পদ্মা সেতু চালু হওয়ায়তে ফেরি দিয়ে বরিশাল হয়ে খুব কম সময়ে ঢাকা যেতে পারছি। এতে আমাদের দুর্ভোগ অনেক কমেছে।
যাতায়াতব্যবস্থা সহজ হলে জেলার অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিপুল সম্ভাবনা দেখা দেবে। রাজধানীর সাথে বাস সার্ভিস চালু হলে যোগাযোগব্যবস্থার আরো উন্নয়ন হবে বলে মনে করছে ফেরি কর্তৃপক্ষ।
ভোলা-বরিশাল রুটের ফেরি সার্ভিসের ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন জসিম বলেন, বাস সার্ভিস চালু হলে আমরাও দিবারাত্রি ফেরি চালু রাখব। একই সাথে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হবে।
ভোলাসহ দক্ষিণাঞ্চলের যাত্রীদের যাত্রাপথ আরো সহজ করতে শিগগিরই ভোলা-ঢাকা রুটে বাস সার্ভিস চালু হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জেলা বাসমালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ।
তিনি বলেন, আমরা প্রথমবারের মতো ভোলা-ঢাকা রুটে বাস সার্ভিস চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
এখন ফেরি সার্ভিস নিরবচ্ছিন্ন হলে আর কোনো সমস্যা থাকবে না। ভোলা-বরিশাল সেতু হলে তো যোগাযোগ আরো সহজ হবে।


আরো সংবাদ


premium cement
দখল করা পারমাণবিক স্থাপনা পরিদর্শনের অনুমতি দেবে রাশিয়া পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যে হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রতিক্রিয়া আসাদের অপসারণ চায় না তুরস্ক : এরদোগান উড়ে গেল ম্যাকালামের দল, দক্ষিণ আফ্রিকার কাছে ইনিংসে হার ইংল্যান্ডের স্বামী-শ্বশুরের বিরুদ্ধে মামলার পর মুখে ‘অ্যাসিড’ নিক্ষেপের অভিযোগ ‘মাস্টারদা সূর্যসেন প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদার ও কল্পনা দত্ত’ স্মারক বক্তৃতা অনুষ্ঠিত বাউবির এসএসসি পরীক্ষা শুরু গাজীপুরে শিক্ষক দম্পতির লাশ উদ্ধারের ঘটনায় মামলা কোনিয়া যেন মসজিদের শহর ‘নিম্নচাপ’ নিয়ে আবহাওয়ার ৩ নম্বর বিশেষ বিজ্ঞপ্তি মতলবে সেপটিক ট্যাংকে কাজ করতে গিয়ে ২ জনের মৃত্যু

সকল