২৪ জানুয়ারি ২০২২, ১০ মাঘ ১৪২৮, ২০ জমাদিউস সানি ১৪৪৩
`
মানববন্ধনে শাস্তি দাবি

বছরে দেশে ৩০০ কোটি টাকার ভেজাল ওষুধ তৈরি

-

নকল, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ চক্রের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রাজধানীতে মানববন্ধন করেছে কয়েকটি সংগঠন। পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনসহ (পবা) সমমনা ১০টি সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে গতকাল শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ‘নকল, ভেজাল ও মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ চক্রের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই’ দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ভেজাল ওষুধের ফলে রোগীর স্বাস্থ্যঝুঁকি ও প্রাণহানির ঘটনাও ধীরে ধীরে বেড়েই চলছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে ‘দেশে বছরে ৩০০ কোটি টাকার ভেজাল ওষুধ তৈরি হয়’ বলে জানানো হয়।
মানববন্ধনে বলা হয়, দেশের চাহিদা মিটিয়ে ১৫৭টি দেশে বাংলাদেশ ওষুধ রফতানি করে। কিন্তু কিছু লাইসেন্সধারী ও লাইসেন্সবিহীন কোম্পানি বেশি মুনাফার জন্য ভেজাল ওষুধ তৈরি ও বাজারজাত করছে, যা মানুষের যেমন আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে, তার চেয়ে বেশি শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। বক্তারা বলেন, দেশে বর্তমানে প্রায় ৩০০টি ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যার বর্তমান বাজারমূল্য প্রায় ১৭ হাজার কোটি টাকা। বর্তমানে মাত্র ৩ শতাংশ ওষুধ আমদানি করতে হয় আর ৯৭ শতাংশ অভ্যন্তরীণ উৎপাদন থেকেই দেশের চাহিদা মেটানো হচ্ছে।
পবার চেয়ারম্যান আবু নাসের খানের সভাপতিত্বে ও সম্পাদক এম এ ওয়াহেদের সঞ্চালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য দেন পবার সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো: আবদুস সোবহান, মানবাধিকার উন্নয়ন কেন্দ্রের মহাপরিচালক মাহবুল হক, সামাজিক শক্তির সভাপতি মো: হাবিব উল্লাহ, বাংলাদেশ ট্যুরিস্ট সাইক্লিস্টের প্রধান সমন্বয়ক রোজিনা আক্তার, পুরান ঢাকা নাগরিক উদ্যোগের সভাপতি নাজিমউদ্দীন প্রমুখ।
মানববন্ধনে ওষুধ আইন ১৯৪০ ও জাতীয় ওষুধ নীতি ২০১৬ যথাযথ বাস্তবায়নের দাবি জানিয়ে বক্তারা বলেন, প্রয়োজন হলে আইন সংশোধন করে কঠোর শাস্তির বিধান করতে হবে, যাতে কেউ এ ধরনের মানবতাবিধ্বংসী কাজ করার সাহস না পায়। প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখার পাশাপাশি ওষুধ শিল্প সমিতিরও এ ব্যাপারে ভূমিকা রাখতে হবে। অভিজ্ঞ চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী ভালো কোম্পানির ওষুধ লেবেলের নাম, মূল্য ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ ইত্যাদি দেখে ভোক্তাদের ওষুধ কেনারও আহ্বান জানানো হয়।
বিশ্ববাজারে যখন বাংলাদেশের উৎপাদিত ওষুধের চাহিদা বেড়েই চলেছে জানিয়ে মানববন্ধনে বলা হয়, এমন সম্ভাবনার পরও দেশে উৎপাদন হচ্ছে ভেজাল ও নকল ওষুধ। যার ফলে ধীরে ধীরে অস্থির হয়ে উঠছে ওষুধ-শিল্প ও চিকিৎসাব্যবস্থা। ভেজাল ও নকল ওষুধ শিল্পের উন্নয়ন ও প্রসারে এক বিরাট অশনি সঙ্কেত।


আরো সংবাদ


premium cement