০৮ মে ২০২১
`
জরিপের ফলাফল নিয়ে ওয়েবিনার

করোনায় দেশে মানুষের আয় কমেছে ৬৬ শতাংশ

-

করোনাভাইরাস মহামারীর প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে সারা দেশের ৬৫.৭১ শতাংশ মানুষের আয় কমেছে এবং ৩৭.১৪ শতাংশ মানুষ বিভিন্ন উৎস থেকে ঋণ নিয়ে খাদ্যসহ দৈনন্দিন চাহিদা মেটাচ্ছে। শুধু তাই নয়, এ সময়ে সাধারণ মানুষ তিনবেলা খাবার জোগাড় করতে হিমশিম খাচ্ছে।
গতকাল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ‘খাদ্য অধিকার বাংলাদেশ’ আয়োজিত ‘দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও খাদ্য গ্রহণে প্রভাব’ শীর্ষক জরিপের ফলাফলে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। ভার্চুয়াল প্ল্যাটফর্মে এই জরিপটি প্রকাশ করা হয়েছে।
ওয়েবিনারে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. সায়মা হক বিদিশা ও দক্ষিণ এশিয়া, ইকো কো-অপারেশন কর্মসূচির পরিচালক আবুল কালাম আজাদ বক্তব্য রাখেন। স্বাগত বক্তব্য ও সঞ্চালনা করেন খাদ্য অধিকার বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক ও ওয়েভ ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক মহসিন আলী।
জরিপের সারসংক্ষেপ উপস্থাপন করেন বিআইডিএসের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো ড. নাজনীন আহমেদ। এ ছাড়াও বক্তব্য রাখেন কনজুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সহ-সভাপতি এস এম নাজের হোসেন।
এ সময় বক্তারা বলেন, করোনার প্রথম ধাক্কা কিছুটা কাটিয়ে উঠতে শুরু করলেও দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে ভয়ঙ্কর অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে সরকার করোনার বিস্তার নিয়ন্ত্রণে লকডাউন শুরু করেছে। এতে আয় কমে যাওয়ায় বিপদে পড়েছে দেশের দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের মানুষ। সাথে যুক্ত হয়েছে খাদ্যসহ দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি।
জরিপের ফলাফল উপস্থাপনকালে ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে দেশের অর্থনীতি গত বছর থেকেই বিরাট চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় অর্থনীতি যখন ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছে, তখনই শুরু হয়েছে দ্বিতীয় ঢেউ। ইতোমধ্যে চলছে সরকারের বিধিনিষেধ। এর ফলে নি¤œ আয়ের মানুষ বিশেষত দিনমজুর, রিকশাওয়ালা, রাস্তার হকাররা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন।
জরিপে অংশগ্রহণকারী বেশির ভাগ ব্যক্তির পরিবার তিনবেলা খাবার জোগাতে গিয়ে হিমশিম খাচ্ছেন। তাদের প্রাণিজ আমিষ গ্রহণের মাত্রা হ্রাস পেয়েছে। প্রায় ৬৫.৭১ শতাংশ মানুষের আয় কমে গেছে। ৩৭.১৪ শতাংশ মানুষ বিভিন্ন উৎস থেকে ঋণ নিয়ে খাদ্যসহ দৈনন্দিন চাহিদা মেটাচ্ছেন। স্বল্প আয়ের এসব মানুষের খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিতে সরকারি সহায়তা দরকার।
নাজনীন আহমেদ উল্লেখ করেন, বর্তমানে চালের বাজারে সিন্ডিকেটের দেখা পাওয়া যায় না। কিন্তু সরকার অনুমোদিত বৃহৎ রাইস মিলাররা যে পরিমাণ চাল মজুদ করার এখতিয়ার রাখে তা চালের বাজার অস্থিতিশীল করার ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখছে। এ পরিপ্রেক্ষিতে সুনির্দিষ্ট পদক্ষেপ গ্রহণে করণীয় বিষয়গুলো তিনি তুলে ধরেন।
এগুলোর মধ্যে রয়েছেÑ খাদ্যনিরাপত্তাকে নাগরিকের অধিকার হিসেবে নিশ্চিত করতে হবে। খোলাবাজারে চাল বিক্রি বাড়াতে হবে। আগামী এক বছরের জন্য এলাকাভিত্তিক কয়েকটি স্থায়ী খোলাবাজারে বিক্রির জন্য দোকান/স্টোর তৈরি করা যেতে পারে। টিসিবির বিক্রির সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে। সমাজের ধনী ব্যক্তিদের বিভিন্ন পরিস্থিতিতে ভীত হয়ে দ্রব্যসামগ্রী কিনে মজুদ করার প্রবণতা পরিহার করতে হবে এবং স্থানীয় পর্যায়ে মুদি দোকানগুলোর মজুদ ব্যবস্থা নিয়মিত মনিটরিং করতে হবে।
বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি উপস্থাপিত সুপারিশগুলোর সাথে একমত পোষণ করে বলেন, আমরা একটি অস্বাভাবিক সময় পার করছি। মানুষের আয় কমে গেছে। আবার পাশাপাশি নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধি দরিদ্র মানুষকে বিপদগ্রস্ত করেছে। আমরা টিসিবির মাধ্যমে খোলাবাজারে খাদ্যসামগ্রী বিক্রির একটি উদ্যোগ নিয়েছি।
তিনি আরো বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারেও তেল, চিনি, পেঁয়াজসহ দ্রব্যমূল্য বেড়ে চলেছে, যার প্রভাব দেশের বাজারেও পড়ছে। দাম কমানোর জন্য খাদ্য, কৃষি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয় যার যার জায়গা থেকে কাজ করছে। আমরা মনিটরিং করছি, কিন্তু পর্যাপ্ত লোকবল আমাদের নেই।
মন্ত্রী বলেন, এ রমজানে টিসিবির মাধ্যমে বিক্রির জন্য ৩৫ হাজার টন সয়াবিন তেল বরাদ্দ করা হয়েছিল। তবে এ মুহূর্তে মানুষের কাজ না থাকাটা আসলেই আমাদের জন্য চ্যালেঞ্জিং। সরকার এ জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করছে। আমাদের এখন আসলে কোভিড মাথায় রেখেই পরিকল্পনাগুলো করতে হবে।
ড. সায়মা হক বিদিশা বলেন, দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের সদিচ্ছা থাকলেও দীর্ঘমেয়াদি কার্যক্রম নেই। সে জন্য দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে কমিশন গঠন করা দরকার। খাদ্যসংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর মধ্যে সমন্বয় জোরদার করা দরকার। এ ক্ষেত্রে শিশুদের পুষ্টির বিষয়টির ওপর বিশেষভাবে নজর দিতে হবে।
তিনি আরো বলেন, শহরের বস্তিবাসী দরিদ্রদের জন্য বিশেষ বরাদ্দ থাকা উচিত ছিল বাজেটে। জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচির কার্যক্রমগুলো যত দ্রুত সম্ভব ডিজিটালাইজেশন করা দরকার।



আরো সংবাদ


সকল