০৮ মে ২০২১
`

বড় পতনের পর বাড়ল সূচক ও লেনদেন

-

টানা দুই কার্যদিবস বড় দরপতনের পর গতকাল সোমবার দেশের শেয়ারবাজারে কিছুটা ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা গেছে। প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) ও অপর চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (সিএসই) সব ক’টি মূল্যসূচকের উত্থানের পাশাপাশি বেড়েছে লেনদেনের পরিমাণ।
এর আগে গত বৃহস্পতিবার ৬৬টি কোম্পানির শেয়ার দামের সর্বনি¤œ সীমা বা ফ্লোর প্রাইস উঠিয়ে নেয় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)। এ নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এতে বৃহস্পতিবার ও রোববার শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়। দুই কার্যদিবসে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ১৭৩ পয়েন্ট পড়ে যায়।
অবশ্য বড় এই দরপতনকে যুক্তিসঙ্গত নয় বলে জানিয়েছেন শেয়ারবাজার বিশ্লেষকরা। এ বিষয়ে গত রোববার শেয়ারবাজার বিশ্লেষক ও অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, ‘নতুন করে লকডাউন নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখে দিয়েছে। এর সঙ্গে ৬৬ কোম্পানির ফ্লোর প্রাইস তুলে নেয়ার সিদ্ধান্ত বিনিয়োগকারীদের মধ্যে নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। সব মিলিয়ে বিনিয়োগকারীদের পেনিক সেলের কারণে শেয়ারবাজারে দরপতন দেখা দিয়েছে।’
তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে দেখা দেয়া এই আতঙ্ক যুক্তিসঙ্গত নয়। কারণ বিএসইসি থেকে ঘোষণা দেয়া হয়েছে লকডাউনে ব্যাংক খোলা থাকলে শেয়ারবাজারে লেনদেন চলবে। আর ব্যাংক বন্ধ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই। ফ্লোর প্রাইস তুলে নেয়া নিয়েও পেনিক হওয়ার কিছু নেই। যারা বেশি দামে শেয়ার কিনেছেন, তাদের কম দামে বিক্রির চাপ বাড়ানো উচিত না।’
শেয়ারবাজারে টানা বড় দরপতনের মধ্যেই গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে ব্যাংকের লেনদেনের সময় আধঘণ্টা বাড়ানো হয়। ব্যাংক লেনদেনের নতুন সময়সীমা গতকাল থেকে কার্যকর হয়েছে। ব্যাংকের লেনদেনের সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত আসার পর শেয়ারবাজারেও লেনদেনের সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত জানায় বিএসইসি। গতকাল সোমবার নতুন সূচিতে লেনদেন শুরু হতেই প্রায় সব ক’টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম বেড়ে যায়। এতে প্রথম ১০ মিনিটের লেনদেনেই ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ৩৩ পয়েন্ট বেড়ে যায়। লেনদেনের শেষ পর্যন্ত সূচকের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা অব্যাহত থাকে।
এতে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ২৩ পয়েন্ট বেড়ে ৫ হাজার ১৮৮ পয়েন্টে উঠে এসেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে বাছাই করা ভালো কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসই-৩০ সূচক ৭ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ৯৬০ পয়েন্টে অবস্থান করছে। আর ডিএসইর শরিয়াহ্ সূচক ৫ পয়েন্ট বেড়ে ১ হাজার ১৮২ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।
বাজারটিতে দিনভর লেনদেনে অংশ নেয়া ১৫৮টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১১১টির। আর ৭৬টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
মূল্য সূচকের উত্থানের সঙ্গে ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণও আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে। দিনভর বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৪৯৪ কোটি ৩১ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ৪৫৬ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। সে হিসাবে লেনদেন বেড়েছে ৩৭ কোটি ৭৬ লাখ টাকা।
টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সব থেকে বেশি লেনদেন হয়েছে বেক্সিমকোর শেয়ার। কোম্পানিটির ৪৭ কোটি ৫৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা রবির ২১ কোটি ৮৫ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ২০ কোটি ৫৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে সেন্ট্রাল ইন্স্যুরেন্স।
এছাড়া ডিএসইতে লেনদেনের দিক থেকে শীর্ষ দশ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছেÑ জিবিবি পাওয়ার, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, এশিয়া প্যাসেফিক ইন্স্যুরেন্স, বেক্সিমকো ফার্মা, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্স, বিডি ফাইন্যান্স এবং কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্স।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্যসূচক সিএএসপিআই বেড়েছে ২৫ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ১৪ কোটি ৮ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ২০০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৮৯টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ৭৩টির এবং ৩৮টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
ব্লক মার্কেট : গতকাল সোমবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) ব্লক মার্কেটে ১৯টি কোম্পানি লেনদেনে অংশ নিয়েছে। এসব কোম্পানির ৪৮ কোটি টাকার লেনদেন হয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। কোম্পানিগুলোর ৫৬ লাখ ৪৪ হাজার ৭৪৬টি শেয়ার ৭৪ বার হাত বদল হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলোর ৪৮ কোটি ৪৯ লাখ ৪৯ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে।
কোম্পানিগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি অর্থাৎ ২৮ কোটি ৪২ লাখ ৩১ হাজার টাকার লেনদেন হয়েছে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৫ কোটি ১০ লাখ টাকার প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের এবং তৃতীয় সর্বোচ্চ ২ কোটি ৮০ লাখ ৯৯ হাজার টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে রেনেটার।
এ ছাড়া বিবিএস ক্যাবলসের ২৭ লাখ ৩০ হাজার টাকার, বিডি ফাইন্যান্সের ১ কোটি ৭ লাখ ১৪ হাজার টাকার, বেক্সিমকোর ১১ লাখ ২৩ হাজার টাকার, বেক্সিমকো ফার্মার ১ কোটি ৯৮ লাখ ৩৬ হাজার টাকার, ডিবিএইচের ৫৬ লাখ ২০ হাজার টাকার, ইস্টার্ন ব্যাংকের ২ কোটি ৪৮ লাখ ৩৮ হাজার টাকার, জিবিবি পাওয়ারের ২৯ লাখ ১৫ হাজার টাকার, গ্রামীণফোনের ৮৭ লাখ ৮১ হাজার টাকার, জনতা ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ১৩ হাজার টাকার, ম্যারিকোর ৭২ লাখ ১০ হাজার টাকার, রূপালী ইন্স্যুরেন্সের ৩৮ লাখ ৭৩ হাজার টাকার, সী পার্লের ৫১ লাখ ৩৫ হাজার টাকার, শাশা ডেনিমসের ৯ লাখ ৬৫ হাজার টাকার, সিমটেক্সের ১৭ লাখ ৬০ হাজার টাকার, সোনার বাংলা ইন্স্যুরেন্সের ৫ লাখ ৫ হাজার টাকার এবং উত্তরা ব্যাংকের ২ কোটি ৫০ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে।



আরো সংবাদ


পাকিস্তানের আবিদ আলীর ডাবল সেঞ্চুরি সাকিব করোনা নেগেটিভ, ফলের অপেক্ষায় মোস্তাফিজ লিচু পাড়তে না দেয়ায় খুন হলেন মামা আদালতে জামিন পাওয়া মানুষের অধিকার : বিশিষ্টজনদের অভিমত খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেয়ার প্রয়োজন আছে কিনা প্রশ্ন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রীর আসাদকে রক্ষায় রাশিয়ার ইসরাইলি ড্রোন প্রযুক্তি ব্যবহার দূরপাল্লায় প্রাইভেটকারের রাজত্ব, রমরমা ব্যবসা কোম্পানীগঞ্জে সংঘর্ষের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় আটক ৩ করোনার টিকা দ্বিতীয় ডোজ না নিলে কী হবে নোয়াখালীতে ইলেকট্রিক মিস্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যা, আটক ২ কুষ্টিয়ায় ব্যবসায়ীদের সহযোগিতায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করলেন হানিফ

সকল