১২ এপ্রিল ২০২১
`

বিভিন্ন স্থানে শিশুসহ নিহত ৬

-

দেশের বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন। এ ছাড়া গুরুতর আহত হয়েছেন আরো একাধিক ব্যক্তি। আহতরা স্থানীয় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতদের মধ্যে শিশু ছাড়াও বৃদ্ধ, পথচারী এবং সাধারণ যাত্রী রয়েছেন।
চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা জানান, চুয়াডাঙ্গায় মাইক্রোবাসের ধাক্কায় ইউসুফ নবী (৮০) নামে স্থানীয় যান পাখিভ্যানের যাত্রী নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর উপজেলার হিজলগাড়ি গ্রামের একটি ইটভাটার সামনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত বৃদ্ধ ইউসুফ নবী দামুড়হুদা উপজেলার কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়নের বাঘাডাঙ্গা গ্রামের মসজিদপাড়ার মৃত রব্বুল হোসেনের ছেলে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার দুপুরে হিজলগাড়ি ইটভাটার সামনে পাখিভ্যানটিকে পেছন থেকে একটি মাইক্রোবাস ধাক্কা দেয়। তাতে পাখিভ্যানটি উল্টে যাত্রীরা ছিটকে পাকা রাস্তায় পড়ে যান। পরে আহতদেরকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে গুরুতর আহত ইউসুফ নবীর মৃত্যু হয়। স্ত্রী মঞ্জুরা খাতুন বলেন, দুপুরে একটি পাখিভ্যানে আমার স্বামীসহ চারজন বাড়ি ফিরছিলাম। পথে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার হিজলগাড়ি ইটভাটার সামনে পেছন থেকে একটি মাইক্রোবাস ধাক্কা দেয়। দর্শনা থানার ওসি মাহবুবুর রহমান বলেন, বৃহস্পতিবার দুপুরে হিজলগাড়ি সড়কে একটি পাখিভ্যানকে মাইক্রোবাস ধাক্কা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। আহতদের মধ্যে ইউসুফ নবীকে হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয়। এ বিষয়ে অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
সুনামগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জ উপজেলায় ট্রলির ধাক্কায় এক শিশু নিহত হয়েছে। নিহত জিসান মিয়া (৪) উপজেলার উত্তর ইউনিয়নের পূর্ব কালিপুর গ্রামের সাফায়াত হোসেনের ছেলে। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে খবর পেয়ে জামালগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শিশুর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে।
নীলফামারী সংবাদদাতা জানান, বেপরোয়া গতির স্থানীয় যান পাগলু ও অটোবাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে হাবিবা বেগম (১০) নামের এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। একই সময় অন্তত গুরুতর আটজন। তাদের উদ্ধার করে নীলফামারী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেছেন স্থানীয়রা। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলফামারী-নীলসাগর সড়কের গোড়গ্রাম জুগিপাড়া নামক স্থানে এ দুর্ঘটনা ঘটে।
বড়াইগ্রাম (নাটোর) সংবাদদাতা জানান, বড়াইগ্রামে মহাসড়ক পারাপারের সময় মাইক্রোবাসের চাপায় ওমর ফারুক (৬৫) নামে এক বৃদ্ধ নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার উপজেলার মাঝগাঁও ইউনিয়নের তিরাইল সুতিরপাড় এলাকায় বনপাড়া-হাটিকুমরুল-ঢাকা মহাসড়কে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত ওমর ফারুক উপজেলার তিরাইল সুতিরপাড় গ্রামের মৃত সমেত আলী মণ্ডলের ছেলে।
নোয়াখালী অফিস জানায়, নোয়াখালীতে বেপরোয়া গতির সিএনজিচালিত অটোরিকশার ধাক্কায় গুরুতর আহত আব্দুল কাইয়ুম নাঈমের (২৩) চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। নিহত নাঈম নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জের সিরাজপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিরাহীমপুর গ্রামের ছমাদ আলী হাজী বাড়ি ওরফে মাইজ্জা মিয়ার বাড়ির আবদুর রহিমের ছেলে। নাঈম বাবার সাথে পাইপ ফিটার, গ্যাস ও ইলেকট্রিকের কাজ করতেন। নিহতের বন্ধু শরীফ জানান, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে নাঈম উপজেলার সিরাজপুর ইউনিয়নের চা ভিটি এলাকায় যান। কাজ শেষে মোটরসাইকেলে ফেরার পথে বসুরহাট-কবিরহাট প্রধান সড়কে উঠতে গেলে একটি বেপরোয়া গতির সিএনজিচালিত অটোরিকশা তাকে ধাক্কা দিলে মাথায় গুরুতর আঘাতপ্রাপ্ত হন। পরে তাকে স্থানীয়রা মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।
মানিকগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জের শিবালয়ের মুশুরিয়া এলাকায় বাস-পিকআপ সংঘর্ষে পিকআপ চালক নিহত হয়েছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত শামীম হোসেন (২৩) ভোলার লালমোহন উপজেলার মফিজুল ইসলামের ছেলে। বরংগাইল হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ওসি শামীম আল-মামুন জানান, পাটুরিয়াগামী একটি পিকআপ ভ্যানের সাথে বিপরীত দিক থেকে আসা গার্মেন্টস শ্রমিকবাহী বাসের সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে অন্তত ১০ জন গুরুতর আহত হন। আহতদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পিকআপ চালক শামীমের মৃত্যু হয়।



আরো সংবাদ