১৭ জানুয়ারি ২০২১
`

রেমিট্যান্স বাড়াতে বৈদেশিক মুদ্রা নীতিমালা শিথিল

নগদ সহায়তা পেতে কমে যাবে হয়রানি
-

বৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে বৈদেশিক মুদ্রা নীতিমালা শিথিল করল বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আওতায় এখন থেকে রেমিট্যান্সের বিপরীতে সরকার ঘোষিত ২ শতাংশ নগদ সহায়তা পেতে স্থানীয়ভাবে প্রবাসীদের কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করা হবে। এতে সুবিধাভোগীদের নগদ সহায়তা পেতে কমে যাবে হয়রানি।
বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এ বিষয়ে গতকাল এক সার্কুলার পত্র জারি করা হয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রানীতি বিভাগের মহাব্যবস্থাপক (চলতি দায়িত্বে) মো: শহিদুল ইসলাম স্বাক্ষরিত সার্কুলারটি পরিপালনের জন্য গতকালই সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীকে অবহিত করা হয়েছে।
জানা গেছে, ব্যাংকিং চ্যানেলের মাধ্যমে বৈধ পথে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে ২ শতাংশ নগদ সহায়তা ঘোষণা করে সরকার। সুবিধাভোগীদের এ নগদ সহায়তা পেতে অধিকতর যাচাই-বাছাই করা হতো ব্যাংক থেকে। প্রথমে বিদেশী কোনো ব্যাংক বা এক্সচেঞ্জ হাউজের মাধ্যমে রেমিট্যান্স পাঠানো হলে প্রবাসীদের কাগজপত্র দেশে অবস্থিত ব্যাংকে পাঠাতে হতো। আবার অধিকত যাচাই দেশে থেকে প্রবাসীর সুবিধাভোগীদেরকেও স্থানীয় ব্যাংকে প্রবাসীদের কাগজপত্র জমা দিতে হতো। বিদেশ থেকে পাঠানো কাগজপত্র ও স্থানীয় কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করে ২ শতাংশ নগদ সহায়তা ছাড় করা হতো।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে এক দিকে যেমন সময় ক্ষেপণ হতো, অপর দিকে সুবিধাভোগীদের নগদ সহায়তা পেতেও হয়রানির শিকার হতে হতো। বিদেশী ব্যাংক বা এক্সচেঞ্জ হাউজগুলো প্রবাসীদের কাগজপত্র পাঠাতে দেরি হওয়ায় অনেকেই সরকার ঘোষিত নগদ সহায়তা পাচ্ছেন না। এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণের জন্যই নীতিমালা শিথিল করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।
বিদ্যমান নীতিমালা অনুযায়ী পাঁচ হাজার ডলার বা স্থানীয় মুদ্রায় পঁাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত নগদ সহায়তা পেতে কেনো কাগজপত্র যাচাই-বাছাই করতে হয় না; কিন্তু পাঁচ হাজার ডলারের উপরে বা পাঁচ লাখ টাকার উপরে কেউ রেমিট্যান্স পাঠালে নগদ সহায়তা পেতে হলে প্রবাসীদের সামগ্রিক তথ্য অধিকতর যাচাই-বাছাই করা হয়ে থাকে।
গতকাল বাংলাদেশ ব্যাংক ঘোষিত নীতিমালায় বলা হয়েছে, সরকার ঘোষিত ২ শতাংশ নগদ সহায়তা গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রাপক ব্যাংক নির্ধারিত শাখায় কাগজপত্রাদি জমা দেবে। রেমিট্যান্স প্রদানকারী ব্যাংক রেমিটারের কাগজপত্রাদি নিজ দায়িত্বে যাচাই করে দ্রুততম সময়ে নগদ সহায়তা ছাড় করণের জন্য রেমিট্যান্স আহরণকারী ব্যাংকের কাছে কনফার্মেশন প্রেরণ করবে। আলোচ্য কনফার্মেশনের ভিত্তিতে রেমিট্যান্স আহরণকারী ব্যাংক রেমিট্যান্স প্রদানকারী ব্যাংক বরাবর নগদ সহায়তা ছাড় করবে। রেমিট্যান্স আহরণকারী এবং প্রদানকারী ব্যাংক একই হলে রেমিট্যান্স প্রাপক থেকে রেমিটারের কাগজপত্রাদি সংগ্রহ এবং তা যাচাই-বাছাই রেমিট্যান্স আহরণকারী ব্যাংক নিজেই সম্পন্ন করবে। এ ক্ষেত্রে যাবতীয় দায়দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট ব্যাংককেই বহন করতে হবে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে, সরকার ঘোষিত ২ শতাংশ নগদ সহায়তা দেয়ার পর থেকে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়ে গেছে। তবে, এ প্রক্রিয়ায় কেউ যেন নগদ সহায়তা গ্রহণের ক্ষেত্রে কোনো নয়ছয়ের আশ্রয় না নেয়; সে জন্যই তাদের কাগজপত্রাদি অধিকতর যাচাই-বাছাই করা হতো। কিন্তু নীতিমালা শিথিল করায় এখন আর সে প্রক্রিয়া থাকল না। তবে, এতে রেমিট্যান্স প্রবাহ আরো বেড়ে যাবে এতে কোনো সন্দেহ নেই বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।



আরো সংবাদ