২৯ অক্টোবর ২০২০

শেয়ারবাজারে বড় পতন

-

সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে গতকাল সোমবার দেশের প্রধান শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হয়েছে। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সব ক’টি মূল্য সূচকের বড় পতনের সাথে কমেছে লেনদেনের পরিমাণও। নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান হিসেবে অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম দায়িত্ব নেয়ার পর গতকাল সূচকের সব থেকে বড় দরপতন হয়েছে। ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ৭৬ পয়েন্ট কমেছে।
শেয়ারবাজারের ক্রান্তিকালে গত ১৭ মে বিএসইসির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেন অধ্যাপক শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম। দায়িত্ব নেয়ার পর বন্ধ শেয়ারবাজারে ৩১ মে থেকে আবার লেনদেন শুরু হয়। তিনি দায়িত্ব নেয়ার পর শেয়ারবাজারে উত্থান-পতন প্রবণতা চলতে থাকে। তবে ১৭ আগস্ট ডিএসইর প্রধান সূচক ৭৪ পয়েন্ট পড়ে যায়। বিএসইসির নতুন চেয়ারম্যানের মেয়াদে এত দিন এটাই ছিল এক দিনে সূচকের সবচেয়ে বড় পতন।
অবশ্য এই বড় পতনের ধকল সামলাতে খুব একটা সময় লাগেনি। সুশাসন প্রতিষ্ঠায় নিয়ন্ত্রক সংস্থার একের পর এক কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার পরিপ্রেক্ষিতে টানা ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা দেখা দেয় শেয়ারবাজারে। এক মাসের বেশি সময় ধরে ঊর্ধ্বমুখী ধারায় রয়েছে শেয়ারবাজার। এ পরিস্থিতিতে গতকাল শেয়ারবাজারে বড় দরপতন হলো। এ দিন লেনদেনের শুরুতেই শেয়ারবাজারে পতনের আভাস পাওয়া যায়। প্রথম আধা ঘণ্টায় ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনে অংশ নেয়া বেশির ভাগ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিটের দাম কমে যায়। ফলে নিম্নমুখী হয়ে পড়ে সূচক। সময়ের সাথে সূচকের নিম্নমুখী প্রবণতা বাড়তে থাকে।
ফলে দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের চেয়ে ৭৬ পয়েন্ট কমে ৫ হাজার ১২ পয়েন্টে নেমে গেছে। অপর দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই-৩০ আগের দিনের চেয়ে ২৫ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ৭২৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৫ পয়েন্ট কমে ১ হাজার ১৩৮ পয়েন্টে অবস্থান করছে। এর মাধ্যমে টানা তিন কার্যদিবস সূচক কমলো। সূচকের এই পতনের দিনে ডিএসইতে অংশ নেয়া ৮২ প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও ইউনিট দাম বাড়ার তালিকায় নাম লিখিয়েছে। বিপরীতে দাম কমার তালিকায় স্থান করে নিয়েছে ২৫৯টি এবং ১৪টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৯৭৭ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। আগের কার্যদিবসে লেনদেন হয় ১ হাজার ১০৩ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। সে হিসাবে আগের দিনের চেয়ে লেনদেন কমেছে ১২৬ কোটি ৩০ লাখ টাকা।
টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং। কোম্পানিটির ২৬ কোটি ৬৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। দ্বিতীয় স্থানে থাকা বেক্সিমকোর ২৬ কোটি ৬২ লাখ টাকার লেনদেন হয়েছে। ২৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকার লেনদেনের মাধ্যমে তৃতীয় স্থানে রয়েছে রূপালী ইন্স্যুরেন্স। এ ছাড়া লেনদেনের শীর্ষ ১০ প্রতিষ্ঠানের তালিকায় রয়েছেÑ বেক্সিমকো ফার্মা, পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্স, ব্র্যাক ব্যাংক, বিডি ফাইন্যান্স, নিটল ইন্স্যুরেন্স, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল ও বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক মূল্য সূচক সিএএসপিআই কমেছে ২০৯ পয়েন্ট। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩১ কোটি ২৩ লাখ টাকা। লেনদেনে অংশ নেয়া ২৮৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৮৫টির দাম বেড়েছে। বিপরীতে দাম কমেছে ১৮৪টির এবং ১৭টির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
ব্লক মার্কেটে ৯ কোটি টাকার লেনদেন : ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) গতকাল সোমবার ব্লক মার্কেটে মোট ১৯ কোম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিগুলোর মোট ২০ লাখ ৪৫ হাজার ৯২০টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে। যার আর্থিক মূল্য ৯ কোটি ১৩ লাখ টাকা। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
গতকাল ব্লক মার্কেটে সবচেয়ে বেশি টাকার লেনদেন হয়েছে বারাকা পাওয়ারের শেয়ার। কোম্পানিটি ৩ কোটি ১০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করেছে। ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স ১ কোটি ৯৩ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে। ব্র্যাক ব্যাংক ৬২ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন করে তালিকার তৃতীয় স্থানে রয়েছে।
ব্লকে লেনদেন করা অন্য কোম্পানিগুলো হচ্ছেÑ আমান কটন ফাইবার্স, আমান ফিড, এমবি ফার্মা, বাংলোদেশ সাবমেরিন ক্যাবলস, সিএপিএম আইবিবিএল মিউচুয়াল ফান্ড, ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্স, গ্রামীণফোন, আইসিবি ইম্পোলয়েজ মিউচুয়াল ফান্ড, কেডিএস এক্সেসরিজ, এমএল ডাইং, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স, সী পার্ল বীচ, এসইএমএলএফবিএসএল গ্রোথ ফান্ড, এস কে ট্রিমস, স্কয়ার ফার্মা ও ইউপিজিডিসিএল।

 


আরো সংবাদ