২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

জরিমানায় অবৈধদের দেশে ফিরতে আবারো সুযোগ দিলো মালয়েশিয়া

-

স্টুডেন্ট, ট্যুরিস্ট ও ভিজিট ভিসায় গিয়ে অবৈধ হওয়া বাংলাদেশীসহ বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের আবারো জরিমানা দিয়ে নিজ দেশে ফেরার সুযোগ দিয়েছে মালয়েশিয়া সরকার। গত বুধবার বিকেলে কুয়ালালামপুরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালক দাতুক সেরি খাইরুল দাজায়মি দাউদ জরিমানা দিয়ে দেশে যাওয়ার বিশেষ প্যাকেজ ঘোষণা দেয়ার কথা জানান।
অভিবাসন মহাপরিচালক বলেন, মালয়েশিয়ায় যারা এক বছরের কম সময় অবৈধভাবে বসবাস করছেন তারা এক হাজার রিঙ্গিত দিয়ে, আর যারা এক বছরের বেশি সময় ধরে অবৈধভাবে বসবাস করছেন তারা তিন হাজার রিঙ্গিত জরিমানা দিয়ে নিজ দেশে ফিরে যেতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে জরিমানা প্রদান করে বিশেষ পাস (স্পেশাল পাস) সংগ্রহ করতে হবে। আর ইমিগ্রেশন থেকে পাস সংগ্রহের সময় অবশ্যই সংশ্লিষ্ট দেশের নাগরিকদের বিমানের রিকনফার্ম টিকিট কর্মকর্তাদের দেখাতে হবে। সাথে করোনা সনদ নিয়ে ছাড়তে হবে মালয়েশিয়া।
প্রসঙ্গত করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার আগ পর্যন্ত দেশটিতে দালালদের খপ্পরে পড়ে পাড়ি জমিয়েছেন হাজার হাজার বাংলাদেশী। যাদের বেশির ভাগের ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পর তারা আর দেশে ফিরে আসেননি। এক পর্যায়ে তারা অবৈধ হয়ে পড়েন। এ ব্যাপারে গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার আগে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তার কাছে ক্ষুদেবার্তা পাঠিয়ে খবরের সত্যতা জানতে চাইলে তিনি কোনো উত্তর পাঠাননি।
সর্বশেষ করোনা মহামারীর মধ্যে মালয়েশিয়ায় অভিবাসন বিভাগের পুলিশ ও স্পেশাল ব্রাঞ্চের পুলিশ অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে ধরপাকড় শুরু করে। এক পর্যায়ে তারা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কুয়ালালামপুরের সিটি ওয়ান প্লাজায় অভিযান চালিয়ে কাগজপত্রবিহীন বাংলাদেশীসহ বিভিন্ন দেশের অবৈধ অভিবাসীদের আটক করে ইমিগ্রেশন সেন্টারে নিয়ে যায়। তবে লকডাউনের মধ্যে অবৈধ শ্রমিকদের হাতে হ্যান্ডকাপ পরিয়ে নেয়ার ঘটনাটি নিয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরায় ২৫ মিনিটের ব্যতিক্রমী ডকুমেন্টারি প্রচারিত হওয়ার পর মালয়েশিয়ায় তোলপাড় শুরু হয়। এই প্রতিবেদনে অভিবাসীদের পক্ষে সাক্ষাৎকার দিয়ে বেকায়দায় পড়েন বাংলাদেশী যুবক রায়হান কবির। এর পরই মালয়েশিয়ার অভিবাসন পুলিশ তাকে কালো তালিকায় ফেলে গ্রেফতারের জন্য ছবিসহ বিস্তারিত ওয়েবসাইটে প্রকাশ করে। দুই সপ্তাহ অনুসন্ধানের পর পুলিশ কুয়ালালামপুরের একটি কনডোনিয়াম থেকে তাকে গ্রেফতার করে ১৪ দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে।
এ নিয়ে মানবাধিকার সংস্থাগুলো তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে আসছে। রিমান্ড ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ শেষে তাকে বিমানে তুলে দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানা গেছে। গ্রেফতারের আগে অবশ্য রায়হান কবির ফেসবুক লাইভে পুরো পরিস্থিতি বর্ণনা করেন। তিনি বলেছেন, অভিবাসীদের পক্ষে তিনি যে সাক্ষাৎকার দিয়েছিলেন, সেটি সম্পূর্ণ সত্য। তিনি কোটি প্রবাসীর সমর্থনও চান। তার এই ঘটনার মধ্যে বুধবার দেশটির অভিবাসন বিভাগের মহাপরিচালকের পক্ষ থেকে অবৈধদের জরিমানা দিয়ে দেশ ত্যাগের ঘোষণা এলো। এর আগেও মালয়েশিয়া সরকারের ইমিগ্রেশন বিভাগ অবৈধ শ্রমিকদের দেশত্যাগ করার জন্য জরিমানা ঘোষণা করেছিল।


আরো সংবাদ